• বৃহস্পতিবার, ৩০ জুন ২০২২, ০৪:৪৮ পূর্বাহ্ন |

টহল ও চেকপোস্টে থাকবে না র‌্যাব

RABসিসিনিউজ ডেস্ক: দেশের একমাত্র এলিট ফোর্স র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন র‌্যাবকে এখন থেকে আর টহল কিংবা চেকপোস্টের দায়িত্ব পালন করতে দেখা যাবে না। আমর্ড পুলিশ ব্যাটালিয়ন বিধিমালা-১৯৭৯ সংশোধিত অনুচ্ছেদের ৬ অনুযায়ী বিশেষায়িত এই বাহিনীকে যে ছয়টি কাজ নির্দিষ্ট করে দেওয়া হয়েছে সেগুলো তারা যথাযথভাবে পালন করবে।

র‌্যাবের নির্দিষ্ট ছয়টি কাজের মধ্যে রয়েছে- অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তা নিশ্চিত করা, সশস্ত্র জঙ্গি সন্ত্রাসীদের গ্রেফতার, অবৈধ অস্ত্র গোলাবারুদ বিস্ফোরক উদ্ধার, অন্যান্য আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে সহায়তা করা, গোয়েন্দা তথ্য সংগ্রহ এবং সরকার নির্দেশিত যে কোনো অপরাধের তদন্ত কার্যক্রম পরিচালনা করা। দেশের সার্বিক আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি বিশেষ করে নারায়ণগঞ্জে আলোচিত সাত খুনের ঘটনার পর গতকাল সকালে উত্তরা র‌্যাব সদর দফতরের কনফারেন্স রুমে এক বিশেষ পর্যালোচনা সভার আয়োজন করা হয়। এতে সভাপতিত্ব করেন র‌্যাবের মহাপরিচালক মোখলেছুর রহমান। সদর দফতরের সিনিয়র কর্মকর্তা ছাড়াও উপস্থিত ছিলেন ঢাকায় অবস্থানরত সব ব্যাটালিয়নের কমান্ডিং অফিসাররা।

সকাল ১০টায় শুরু হওয়া এই বৈঠক শেষ হয় বেলা দেড়টায়। সভা শেষে ঢাকার বাইরে র‌্যাব ব্যাটালিয়নের কমান্ডিং অফিসারদের কাছে পর্যালোচনার সিদ্ধান্ত ফ্যাক্সের মাধ্যমে পাঠানো হয়। পর্যালোচনা সভায় র‌্যাবের বেশ কয়েকজন কর্মকর্তাকে এক ব্যাটালিয়ন থেকে অন্য ব্যাটালিয়নে বদলি করারও সিদ্ধান্ত হয়েছে। সভায় উপস্থিত ছিলেন এমন একজন কর্মকর্তা এই প্রতিবেদককে জানান, পর্যালোচনা সভায় সিদ্ধান্ত হয়- এখন থেকে র‌্যাব তার নির্দিষ্ট কাজের বাইরে কোনো কাজ করবে না। নির্দিষ্ট কাজের বাইরে সরকার তথা স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় দেশ ও জনগণের স্বার্থে কোনো লিখিত নির্দেশনা দিলে সে অনুযায়ী কাজ করবে। র‌্যাবের ক্ষুব্ধ কর্মকর্তারা বলেন, র‌্যাব বাংলাদেশ পুলিশের সহায়ক বাহিনী হওয়ার কারণে পুলিশ সদর দফতরের নির্দেশে পুলিশের সব রকম কাজে র‌্যাবকে অংশগ্রহণ করতে হয়। এ কারণেই এলিট ফোর্স র‌্যাবকে তার সুনির্দিষ্ট কাজের বাইরে টহল, গাড়িবহরে স্কট, চেকপোস্ট, টেন্ডার বক্স পাহারা এমনকি ট্রাফিকের দায়িত্ব পালন করতে হয়। যা কোনোভাবেই একটি বিশেষ বাহিনীর দায়িত্বের মধ্যে পড়ে না। বিশেষায়িত বাহিনীর কাজের বাইরে এসব দায়িত্ব পালন করার কারণে বাহিনীর নিজস্ব কার্যক্রমও কিছুটা ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। এতে করে মনোবল ও কর্মস্পৃহা হারাচ্ছেন বাহিনীতে কর্মরত সদস্যরা। এ কারণে র‌্যাবকে সংস্কার করা প্রয়োজন। পৃথিবীর অন্যান্য দেশে বিশেষায়িত বাহিনীগুলোর মতো র‌্যাবকেও সরাসরি স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অধীনে একটি স্বতন্ত্র বাহিনী হিসেবে পুনর্গঠন করার দাবি জানানো হয়। এতে করে র‌্যাবের কার্যকারিতা যেমন গতিশীল হবে, তেমনি এর কার্যকলাপ নিয়ন্ত্রণ ও জবাবদিহিতা নিশ্চিত করা অনেক সহজ হবে বলে অনেকেই মতামত দেন।

অপর একজন কর্মকর্তা বলেন, বিশেষায়িত এই বাহিনীর সদস্যদের শৃঙ্খলা ও জবাবদিহিতার বিষয়টিও বিশেষ। শুধু র‌্যাবেই স্পেশাল কোর্ট গঠন করে শাস্তির বিধান রয়েছে। এই বাহিনীতে প্রেষণে আসা সদস্যরা র‌্যাব বিধিমালার আওতাভুক্ত হলেও চাকরিচ্যুত একজন সামরিক বাহিনী থেকে আসা র‌্যাব সদস্য দেশের কোনো আদালতে আপিল করার সুযোগ পান না। পক্ষান্তরে অন্য বাহিনী থেকে আসা সদস্যরা আপিলের মাধ্যমে শুধু তাদের শাস্তিই মওকুফ করান না বরং চাকরিচ্যুত অবস্থায় থাকাকালীন সময়ের র‌্যাংক-ব্যাজসহ অন্য সব সুযোগ-সুবিধা ফিরিয়ে নেন। এতে করে বাহিনীর সদস্যদের মনোবল কর্মস্পৃহা স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা প্রশ্নবিদ্ধ হচ্ছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ