• রবিবার, ০৩ জুলাই ২০২২, ০৫:৩৫ পূর্বাহ্ন |

নিজের চেষ্টায় আলোকিত আসাদুজ্জামান ও অনুপ

সারোয়ার আলম সুমন, বদরগঞ্জ(রংপুর): হতদরিদ্র দিন মজুর বাবার মেধাবী সন্তান আসাদুজ্জামান। পিতার অভাবের সংসারে দিনমজুরের আয়ে তাদের দিন চলে না। মা সাজেদা বেগম অন্যের বাড়িতে ঝিয়ের কাজ করে সংসারে জোগান দেন। তবুও  দুই বেলা তাদের ঠিকভাবে ভাত জোটে না। সন্তানের লেখাপড়ার খরচ জোগাতে না পেয়ে বাবা রফিকুল ইসলাম আসাদুজ্জামানের পড়া বন্ধ করে দেন। স্কুলে যেতে না পেয়ে আসাদ হতাশাগ্রস্থ হয়ে পড়েন। কিন্তু তার লেখা পড়ার প্রবল ইচ্ছার কাছে অভাব দৈন্যতাকে হার মারিয়েছে। নিজের চেষ্টা শক্তিকে কাজে লাগিয়ে আবার স্কুলে যাওয়া শুরু করে আসাদ। এক পর্যায়ে খরচ জোগাতে সে বেছে নেয় রাজমিস্ত্রীর কাজ। মাঝে মধ্যেই স্কুলে না গিয়ে শ্রমিকের কাজে হাজিরায় বেরিয়ে পড়ে আসাদ। শ্রমিকের কাজ করে  এভাবেই চলতে থাকে তার লেখাপড়া। আসাদুজ্জামান আশরাফগঞ্জ উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এবারে দিনাজপুর শিক্ষাবোর্ডের অধিনে মানবিক বিভাগে জিপিএ ৫ লাভ করে। তার বাড়ি রংপুরের বদরগঞ্জ উপজেলার দক্ষিণ রামনাথপুর ইউনিয়নের পাঠানপাড়ায়।
আসাদুজ্জামানের বাড়িতে গিয়ে দেখা যায়, একটি মাত্র কুড়ের মাটির ঘর। ঘরের এক কোনে ভাঙা পড়ার টেবিল। বাড়িতে নেই বিদ্যুতের ব্যবস্থা। কেরোসিন তেলের কুপির আলোয় চলে আসাদের পড়া লেখা। আসাদ জানান, প্রায় সময় কেরোসিন তেল কেনারও টাকা জুটতো না। এ জন্য সে বেশির ভাগ সময় দিনের আলোয় লেখাপড়া চালায়। গতকাল রবিবার আসাদের বাড়িতে গিয়ে দেখা যায়, সে অন্যের বাড়িতে দিন মজুরির কাজ করছে। খবর পেয়ে কিছুক্ষণের জন্য সেখান থেকে বাড়িতে আসে। আসাদের মা সাজেদা বেগম বলেন, বাবা ছইলটা নিজের চেষ্টাতে লেখা পড়া করে। হামরা ওর খরচ দিবার পারি না। ওই জন্যে রাজমিস্ত্রির কাজ করে। ভাত না থাকলেও আসাদ স্কুল যাওয়া বন্ধ করে না। এখন ছইলটাক নিয়া বিপদ হয়া গেল। কারণ কলেজে ভর্তি হইলে অনেক টাকা পাইসা খরচ হইবে। হামার তা নাই। কেমন করি ওর পড়া লেখা হইবে। ওই চিন্তাত পড়ি গেইনো।
আসাদুজ্জামান বলেন, লেখাপড়া শেষ করতে পারলে ভবিষ্যতে আমি সরকারী কর্মকর্তা হতে চাই। লেখাপড়ার ব্যাপারে বিদ্যালয়ের সকল শিক্ষক আমাকে উৎসাহ জুগিয়েছে।
অপর এক অদম্য মেধাবী অনুপ রায়
একই বিদ্যালয় থেকে রিক্সাভ্যান চালক বিনয় চন্দ্র রায়ের ছেলে অনুপ কুমার রায় জিপিএ ৫ অর্জন করে। তার বাড়ি উপজেলার রামনাথপুর ইউনিয়নের হিন্দুপাড়ায়। বাবা পেশায় রিক্স্যাভ্যান চালক। নিজের জায়গা জমি নেই। অন্যের জমিতে অস্থায়ীভাবে বসবাস করছেন। তিন ভাইয়ের মধ্যে অনুপ সবার ছোট। অনুপের মা বীনা রানী অন্যের বাড়িতে ফাইফরমাস খেটে কোন রকম সংসারে জোগান দেন। বাবার দিন মজুরির খাটুনিতে তিন ভাইয়ের সংসার চলে না। মাঝে মধ্যেই অনাহারে অর্ধহারে থাকতে হয় তাদের।  অনুপ এবারে আশরাফগঞ্জ উচ্চ বিদ্যালয় থেকে দিনাজপুর শিক্ষা বোর্ডের অধিনে বিজ্ঞান বিভাগে জিপিএ ৫ লাভ করে। অনুপের বাড়িতে গিয়ে দেখা যায়, একটি ভাঙা মাটির ঘর। মেধাবী ওই পরিবারে যেন দৈন্যতা হামলে পড়েছে। এক ঘরেই বাবা-মার সঙ্গে তিন ভাইয়ের বসবাস। শত অভাব আর দৈন্যদশায় চলে তাদের সংসার। যেদিন বাবা বিনয় কুমার অসুস্থ থাকেন সে দিন অনুপ রিক্সাভ্যান নিয়ে বেরিয়ে পড়েন। সবার প্রিয় মুখ অনুপ বাড়ির সামনে লালদীঘি-টেকসেরহাট সড়কে রিক্সা চালান। ভ্যান চালিয়ে অনুপ লেখা পড়ার খরচ জুগিয়ে সংসারেও জোগান দেন।
অনুপ বলেন, বাবা প্রায়ই অসুস্থ হয়ে পড়েন। উপায় না পেয়ে স্কুল শেষে বাবার ভ্যান চালাই। এতে কিছুটা খরচ জোগানো যায়। ভবিষ্যতে আমি প্রকৌশলী হয়ে দেশ সেবা করতে চাই।
আশরাফগঞ্জ উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মাহফুজার রহমান বলেন, অন্য ছেলে মেয়েদের তুলনায় আসাদুজ্জামন ও অনুপ অনন্য। তাদের প্রখর মেধা শক্তি রয়েছে। ভবিষ্যতে পড়ার সুযোগ পেলে ওরা ভালো কিছু করতে পারবে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ