• রবিবার, ০৩ জুলাই ২০২২, ০২:৩৩ পূর্বাহ্ন |

একরাম কিলিং মিশনে অংশ নেয় ৪০ যুবক

77823_1ঢাকা: ছোট-ছোট গ্রুপে ভাগ হয়ে সকাল থেকে প্রায় ৪০ জন অজ্ঞাত যুবক ঘোরাফেরা করছিল। প্রকাশ্যে তাদের হাতে কিছু দেখা যায়নি। শরীরটা উঁচু দেখা যাচ্ছিল। বোঝা যাচ্ছিল জামার নিচে বা প্যান্টের পকেটে কিছু একটা আছে।

কথাগুলো বলছিলেন, ঘটনাস্থল থেকে কিছু দূরে অবস্থিত একটি চা স্টলের মালিক। তিনি একরাম হত্যাকাণ্ডের প্রত্যক্ষদর্শীদের একজন।

নাম প্রকাশ না করার অনুরোধ জানিয়ে তিনি বর্ণনা করেন, ‘সকাল ১০ টা ১৫ মিনিটের পর পর আসে একরামুল হকের গাড়ি। গাড়ি দেখামাত্র পিঁপড়ার মতো ছুটে আসে ওইসব লোক। জড়ো হয় একরামের গাড়ির সামনে। রিকশাভ্যান ও পাওয়ার টিলার দিয়ে রাস্তায় ব্যারিকেড দেয়। এর পরই প্রথমে গাড়ি ভাঙচুর পরে গাড়িতে থাকা একরামকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কোপাতে থাকে তারা।

‘ভয়ে গাড়িতে থাকা অন্য তিনজন নেমে যায়। একরাম বের হতে চাইলেই তাকে গুলি করা হয় কয়েক রাউন্ড। পরপরই দূরে গিয়ে বেশ কয়েকটি পেট্রোল বোমা নিক্ষেপ করে তারা। একরামসহ গাড়ি, পাওয়ার টিলার, রিকশাভ্যান পুড়ে যায়। দাউ দাউ করে জ্বলছিল আগুন। চিৎকারের শব্দ এসেছে। কেউ এগিয়ে আসেনি। গলির ভেতর দিয়ে চলে যায় হত্যাকারীরা। চেনা যায়নি কাউকে।’

মঙ্গলবার সকালে ফেনীর ফুলগাজী উপজেলা চেয়ারম্যান ও আওয়ামী লীগ সভাপতি একরামুল হক একরামকে এভাবে হত্যা করা হয়। ফেনীর একাডেমী রোডের বিলাসী সিনেমা হলের সামনে সন্ত্রাসের এ ঘটনা।

এসময় স্থানীয় পত্রিকার এক সাংবাদিক, একরামের দেহরক্ষী ও গাড়িচালকসহ ৩ জন অগ্নিদগ্ধ হয়। ঘটনার পর ফায়ার সার্ভিস এসে গাড়ির আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে। ততক্ষণে পুড়ে ছাই হয়ে গেছে একরামের দেহ।

ঘটনার পরপর তার সমর্থকরা জেলার বিভিন্ন স্থানে সড়ক ৩ ঘণ্টা অবোরোধ করে প্রায় ৫০ ছোট-বড় গাড়ি ভাঙচুর করে। জেলা আওয়ামী লীগ হত্যার প্রতিবাদে বিক্ষোভ করে। পুরো শহরে থমথমে পরিস্থিতি বিরাজ করছে। আইনশৃঙখলারক্ষাকারী বাহিনী সতর্ক অবস্থায় রয়েছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ