• সোমবার, ২৭ জুন ২০২২, ০৬:৩০ অপরাহ্ন |

খালেদার রিট শুনানি আগামী রোববার

khaledaঢাকা : দুর্নীতির দুই মামলায় খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠনকারী বিচারকের নিয়োগ বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে দায়ের করা রিট শুনানি শেষ হয়েছে। আগামী রোববার এ বিষয়ে আদেশ দেবেন আদালত।

মঙ্গলবার বিকেলে শুনানি শেষে বিচারপতি ফারাহ মাহবুব ও বিচারপতি কাজী মোঃ ইজহারুল হক আকন সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ এ দিন ধার্য করেন।

সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী আসাদুজ্জামান গত ১২ মে (সোমবার) খালেদা জিয়ার পক্ষে ওই রিটটি দায়ের করেন।

রিটে বলা হয়, খালেদা জিয়ার দুই মামলায় অভিযোগ গঠনের আদেশ দানকারী বিশেষ জজ আদালতের বিচারক বাসুদেব রায়ের নিয়োগের কোনো গেজেট প্রকাশিত হয়নি। বিধি অনুযায়ী বিশেষ জজ আদালতের নিয়োগে গেজেট প্রকাশ করতে হয়। কিন্তু এ ক্ষেত্রে তা মানা হয়নি। ফলে ওই বিচারকের নিয়োগ প্রক্রিয়া অবৈধ।

যে কারণে ওই বিচারকের দেওয়া আদেশ অনুযায়ী খালেদা জিয়ার ওই মামলার বিচারের কাজ চলতে পারে না। এবং খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন অবৈধ।

উল্লেখ্য, জিয়া অরফানেজ ট্রাস্টের দুই কোটি ১০ লাখ ৭১ হাজার ৬৪৩ টাকা আত্মসাতের অভিযোগ এনে খালেদা জিয়া ও তারেক রহমানসহ ৬ জনের বিরুদ্ধে ২০০৮ সালের ৩ জুলাই রমনা থানায় মামলা করে দুদক।

পরে ২০০৯ সালের ৫ আগস্ট আসামিদের বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করা হয়।

তিন কোটি ১৫ লাখ ৪৩ হাজার টাকা আত্মসাতের অভিযোগে ২০১১ সালের ৮ আগস্ট তেজগাঁও থানায় জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্টের দুর্নীতির মামলাটি করা হয়। পরে ২০১২ সালের ১৬ জানুয়ারি আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা। দু’টি মামলারই বাদী ও তদন্ত কর্মকর্তা দুদকের উপ-পরিচালক হারুনুর রশীদ।

জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় অন্য আসামিরা হলেন- বিএনপি নেতা হারিছ চৌধুরী, তৎকালীন একান্ত সচিব ও বর্তমানে বিআইডব্লিউটিএ-এর নৌ-নিরাপত্তা ও ট্রাফিক বিভাগের ভারপ্রাপ্ত পরিচালক জিয়াউল ইসলাম মুন্না ও ঢাকা সিটি করপোরেশনের সাবেক মেয়র সাদেক হোসেন খোকার একান্ত সচিব মনিরুল ইসলাম খান। তবে হারিছ চৌধুরী এ মামলায় শুরু থেকেই পলাতক। অন্যরা সবাই জামিনে রয়েছেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ