• সোমবার, ২৭ জুন ২০২২, ০৬:১৮ অপরাহ্ন |

জিপিএ-৫ বাড়াতে শিক্ষা বোর্ডে ধরনা

Exa_collageসিসিনিউজ: এসএসসি ও সমমানে পরীক্ষায় বিস্ময়কর ফলের পর জিপিএ-৫ বাড়াতে বোর্ডে তদবির শুরু হয়েছে। ১০টি শিক্ষা বোর্ডে ১ লাখ ৪২ হাজার ২৭৬ জন শিক্ষার্থী জিপিএ-৫ পাওয়ায় এটা এখন প্রেস্টিজ ইস্যু হয়ে দাঁড়িয়েছে। যে সব অভিভাবকের ছেলেমেয়ে এ গ্রেড পেয়েছে বা গোল্ডেন জিপিএ-৫ পায়নি তারাই মূলত তদবির করছেন। বোর্ডের চেয়ারম্যান ও পরীক্ষা নিয়ন্ত্রকের কাছে তারা নানাভাবে তদবির করছেন। গতকাল ঢাকা শিক্ষা বোর্ডে সরজমিনে পরিদর্শন করে এর প্রমাণ পাওয়া যায়। সকালেই মিরপুর থেকে এক অভিভাবক তার ছেলেকে নিয়ে পরীক্ষা নিয়ন্ত্রকের কক্ষে যান। সঙ্গে তার স্ত্রীও ছিলেন। তার ছেলে সব বিষয়ে জিপিএ-৫ পেলেও ইংরেজিতে পেয়েছে এ গ্রেড। ওই অভিভাবক পরীক্ষা নিয়ন্ত্রককে বলেন, তার স্ত্রী সারারাত ঘুমাননি। এখনও আবেগতাড়িত। কিভাবে ইংরেজিতেও জিপিএ-৫ করা যায় তার পরামর্শ চান। পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক পুনঃনিরীক্ষার আবেদন করার কথা বলেন। আরেকজন পেশাজীবী তার ছেলে কি করে জিপিএ-৫ পায় সে জন্য বোর্ডে খোঁজ নেন। তার ছেলে এ গ্রেড পেয়েছে। খোঁজ নিয়ে জানা যায়, সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত ঢাকা বোর্ডে অর্ধশতাধিক তদবির আসে। এর মধ্যে বেশির ভাগই জিপিএ-৫ বাড়ানোর। যারা তদবির করেছেন তাদের মধ্যে রাজনীতিবিদ, সরকারি কর্মকর্তা, শিক্ষক, সাংবাদিক, প্রকৌশলীসহ বিভিন্ন পেশার প্রভাবশালী ব্যক্তিরা রয়েছেন। বিভিন্ন পর্যায়ের ব্যক্তিরা বোর্ডে ফোন করছেন এ বিষয়টি স্বীকার করেছে বোর্ড। এবার রেকর্ড সংখ্যক ১ লাখ ৪২ হাজার ২৭৬ জন শিক্ষার্থী জিপিএ-৫ পেয়েছে। এর মধ্যে ঢাকা বোর্ডে ৪৬ হাজার ৭৯৫, রাজশাহী বোর্ডে ১৯ হাজার ৮১৫, কুমিল্লা বোর্ডে ১০ হাজার ৯৪৫, যশোর বোর্ডে ১০ হাজার ৯৪৪, চট্টগ্রাম বোর্ডে ১০ হাজার ৮৮৪, বরিশাল বোর্ডে ৪৭৬২, সিলেট বোর্ডে ৩৩৪১, দিনাজপুর বোর্ডে ১৪ হাজার ৮২১, মাদরাসা বোর্ডে ১৪ হাজার ১২ ও কারিগরি বোর্ডে ৫৯৫০ জন। রেকর্ডসংখ্যক শিক্ষার্থী জিপিএ-৫ এবং পাস করায় বিভিন্ন মহল থেকে সমালোচনা হচ্ছে। খোঁজ নিয়ে জানা যায়, ফল প্রকাশের পরপরই সেরা এবং পুরনো একটি শিক্ষা বোর্ডের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রকের মেয়ে আমেরিকা থেকে তার বাবাকে ফোনে জিজ্ঞেস করেন এত শিক্ষার্থী কিভাবে জিপিএ-৫ পেলো? জবাবে পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক বলেন, পড়ালেখা ভাল করেছে তাই জিপিএ-৫ পেয়েছে। এতে অবাক হওয়ার কিছু নেই। গতকাল ঢাকা শিক্ষা বোর্ড, মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তর (মাউশি) এবং শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের বিভিন্ন দপ্তরে আলোচ্য বিষয় ছিল জিপিএ-৫ এবং পাসের হার নিয়ে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ভিসি অধ্যাপক এমাজউদ্দীন আহমদ বলেন, উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে পাসের হার ও জিপিএ-৫ বাড়ানো হচ্ছে। অথচ শিক্ষার্থীদের যোগ্যতা বাড়ছে না। প্রবীণ এ শিক্ষাবিদ বলেন, এতে শিক্ষার্থীরাই ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। ভাল ফল করছে অথচ দেখা যচ্ছে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষায় এসব শিক্ষার্থী গণহারে ফেল করছে। এতে লাভ কি হলো? অধ্যাপক আহমদ বলেন, যোগ্যতা বাড়াতে না পারলে ১০০ ভাগ শিক্ষার্থী পাস করলেই লাভ কি? কোন লাভ নেই। এতে ছেলেমেয়েদেরই ক্ষতি হচ্ছে। ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক অধ্যাপক এসএম ওয়াহিদুজ্জামান বলেন, ফলাফলে সন্তুষ্ট না হয়ে অনেকেই ফোন করে খোঁজখবর নিচ্ছেন। তিনি বলেন, বেশির ভাগ অভিভাবকই জানতে চাচ্ছেন পুনঃনিরীক্ষণ কিভাবে করতে হয়। তিনি বলেন, সৃজনশীল পদ্ধতির কারণে এবার ফল প্রভাব পড়েছে। এদিকে ১৮ই মে থেকে পুনঃনিরীক্ষণের আবেদন গ্রহণ শুরু হয়েছে। ২৪শে মে পর্যন্ত আবেদন করা যাবে। শুধু টেলিটক প্রি-পেইড মোবাইল ফোন থেকে আবেদন করা যাবে। আবেদন করতে মোবাইলের মেসেস অপশনে গিয়ে জঝঈ লিখে স্পেস দিয়ে বোর্ডের নামের প্রথম তিন অক্ষর দিয়ে স্পেস দিয়ে বিষয় কোড লিখে ১৬২২২ নম্বরে পাঠাতে হবে। প্রতিটি বিষয়ের প্রতিটি পত্রের জন্য ১২৫ টাকা ফি দিতে হবে। একাধিক আবেদন করা যাবে। যেসব বিষয়ের দুটি পত্র রয়েছে সেসব বিষয়ের একটি বিষয় কোড (বাংলার জন্য ১০১, ইংরেজির জন্য ১০৭) এর বিপরীতে দু’টি পত্রের জন্য আবেদন হিসেবে গণ্য হবে। ২৫০ টাকা আবেদন ফি দিতে হবে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ