• বুধবার, ২৯ জুন ২০২২, ১১:০৮ অপরাহ্ন |

দায়িত্বের ভার হিমালয়ের চেয়েও ভারি

Mahabubমাহবুব উল্লাহ: ভারতের লোকসভা নির্বাচনে হিন্দুত্ববাদী দল বিজেপি ঈর্ষণীয় সাফল্য অর্জন করেছে। নির্বাচনী ফলাফলের পরিসংখ্যান থেকে জানা যায়, বিজেপি পেয়েছে ২৮৩ আসন, কংগ্রেস ৪৪ আসন, এআইএডিএকে ৩৪ আসন, তৃণমূল কংগ্রেস ৩৪ আসন এবং অন্যান্য দল মিলে পেয়েছে ১৪৫ আসন। জোটগতভাবে বিজেপি নেতৃত্বাধীন এনডিএ পেয়েছে ৩৩৬ আসন এবং কংগ্রেস নেতৃত্বাধীন ইউপিএ জোট পেয়েছে ৫৯ আসন। ভারতের লোকসভা নির্বাচনে এ ধরনের ফলাফল হবে তা আগে থেকেই অনুমান করা হচ্ছিল। নির্বাচন নিয়ে যেসব জনমত জরিপ হয়েছে, সেসব জরিপের পূর্বাভাস থেকে বোঝা যাচ্ছিল বিজেপি অনেকটাই এগিয়ে আছে। বাস্তব ফলাফলে দেখা গেল, বিজেপি এসব পূর্বাভাসের চেয়েও ভালো করেছে। বিজেপি যে পরিমাণ আসন পেয়েছে তার ভিত্তিতে বিজেপি এককভাবেই সরকার গঠন করতে পারে। কিন্তু ভারতের ভবিষ্যৎ প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি জানিয়ে দিয়েছেন, তারা জোটগতভাবেই সরকার গঠন করবেন। এ সরকারের দু’জন মুসলমান মন্ত্রী থাকবেন বলেও আভাস পাওয়া গেছে।

বিজেপির এ বিশাল সাফল্যের সম্ভাব্য ব্যাখ্যা কী হতে পারে? একটি ব্যাখ্যা হচ্ছে- নির্বাচনী প্রচার অভিযানের সময় হিন্দুত্ববাদী উক্তি ও প্রতীক ব্যবহার করে নরেন্দ্র মোদি হিন্দু ভোট তার পেছনে জড়ো করতে চেয়েছেন। এর ফলে শিক্ষা-দীক্ষায় অনগ্রসর ব্যাপক হিন্দু জনগোষ্ঠী বিজেপির পতাকাতলে সমবেত হয়েছেন। কিন্তু এটাই একমাত্র ব্যাখ্যা নয় বলে ভারতের অনেকেই মনে করেন। তাদের বক্তব্য হল- যে কোনো কারণেই হোক, ভোটারদের মধ্যে এমন একটি আস্থার সৃষ্টি হয়েছে যে, নরেন্দ্র মোদি সরকার চালাতে গিয়ে সিদ্ধান্ত গ্রহণের ক্ষেত্রে দোদুল্যমান থাকবেন না। ভারতের মতো একটি উন্নয়নশীল দেশ, যেখানে বহু প্রাতিষ্ঠানিক দুর্বলতা আছে, সেখানে দৃঢ়ভাবে সিদ্ধান্ত গ্রহণের বিষয়টি অনেক গুরুত্বপূর্ণ। নরেন্দ্র মোদি গুজরাটের প্রধানমন্ত্রী হিসেবে যথেষ্ট দক্ষতা ও যোগ্যতার পরিচয় দিয়েছেন। অর্থনীতির ক্ষেত্রে গুজরাট মডেল নামে একটি মডেলের প্রণেতা হিসেবেও মোদিকে দেশের ভাবী প্রধানমন্ত্রী হিসেবে জনগণ বিবেচনায় রেখেছিল। চুলচেরা বিশ্লেষণে এ মডেলের অন্তঃসারশূন্যতা নিয়ে অনেক সমালোচনা করা যেতে পারে। বিশেষ করে অর্থনৈতিক দর্শনের দিক থেকে এ মডেলটি নিও-লিবারেল ধারণার সঙ্গে সাযুজ্যপূর্ণ। এ মডেলে দারিদ্র্য নিরসন এবং সমাজের প্রান্তিক গোষ্ঠীর সামাজিক অগ্রগতির বিষয়গুলো অবহেলিত হয়। মুষ্টিমেয় ধনিক শ্রেণীর স্ফীতি ঘটে। সমাজে অর্থনৈতিক বৈষম্য বাড়ে। ব্যাপক জনগোষ্ঠীর ক্ষুধা ও দারিদ্র্যের অবসান ঘটে না। কিন্তু অর্থনীতির বহিরাঙ্গে দৃশ্যমান পরিবর্তন ঘটে। এক ধরনের জৌলুস ও চাকচিক্য দেখা দেয়। এটাকেই উন্নয়ন বলে ভ্রম সৃষ্টি হতে পারে। যাই হোক, ভারতের জনগণ গুজরাটের সাফল্য দেখে ধরে নিয়েছে ভারতের জন্য এ ধরনের উন্নয়নই দরকার। তবে কালক্রমে এ ধারণাও দৈনন্দিন জীবনের নিষ্ঠুর অভিজ্ঞতায় ভেঙে যেতে পারে।

বিজেপি ও তার নেতৃত্বাধীন জোটের সাফল্যের একটি বড় কারণ কংগ্রেস শাসনের ব্যর্থতা। কংগ্রেস গত ১০ বছর ভারতের কেন্দ্রীয় সরকারের দায়িত্বে ছিল। তুলনামূলকভাবে এই ১০ বছরের প্রথম ৫ বছরে কংগ্রেস ভালোই করেছে। কিন্তু দ্বিতীয় মেয়াদে অর্থাৎ পরবর্তী ৫ বছরে সাফল্যের চেয়ে ব্যর্থতার পাল্লাই ভারি হয়েছে। এ সময় ভারতের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি শ্লথ হয়ে এসেছিল। মারত্মক ধরনের দুর্নীতির কেলেংকারিও উদ্ঘাটিত হয়েছে। এছাড়া জনজীবনে স্বস্তি ও নিরাপত্তা নির্বিঘ্ন ছিল না। নারী ধর্ষণের ঘটনায় জনগণ বিক্ষোভে ফেটে পড়েছে। বংশানুক্রমিক নেতৃত্বের ধারায় কংগ্রেস যাকে সামনে এনেছে, তার ক্যারিশমায় ঘাটতি ছিল। সেই তুলনায় নরেন্দ্র মোদি নিজেকে অনেক বেশি ক্যারিশমেটিক হিসেবে তুলে ধরতে সক্ষম হয়েছেন। ভারতীয় মিডিয়ায় নির্বাচনী প্রচারাভিযানে মোদিকে যতটা দৃশ্যমান হতে দেখা গেছে, সেই তুলনায় রাহুল গান্ধী ছিলেন অনেক ম্রিয়মাণ। ভারতীয় কর্পোরেট সেক্টরের দৃঢ় আস্থা জন্মেছে যে, মোদি শুধু তাদের স্বার্থ রক্ষা করবেন না, যুগপৎ তাদের অবস্থান আরও দৃঢ় করতে মোদি কংগ্রেসের তুলনায় অনেক বেশি সহায়ক ভূমিকা পালন করবেন। এ কারণে ভারতের বড় বড় কর্পোরেট হাউস মোদির নির্বাচনী প্রচারাভিযানে অর্থের জোগান দিয়েছে। সব মিলিয়ে বলা যায়, ভারতের জনগণ একটি পরিবর্তন চেয়েছিল। এ পরিবর্তন পরিবারতান্ত্রিকতার বিরুদ্ধে এবং পাশ্চাত্য ধাঁচের অর্থনৈতিক রূপান্তরের পক্ষে। এখন আমাদের দেখতে হবে ক্ষমতার আসনে বসে মোদি ভারতের মতো একটি বিশাল দেশকে কতটুকু পরিবর্তনের পথে নিয়ে যেতে পারেন।

মোদির বিরুদ্ধে সবচেয়ে বড় অভিযোগ হল, ২০০২ সালে গুজরাটের দাঙ্গায় মুসলিম জনগোষ্ঠীকে নিরাপত্তা দিতে না পারা। এ দাঙ্গায় দু’হাজারেরও বেশি মুসলমান প্রাণ হারিয়েছেন। হারিয়েছেন তাদের সহায়-সম্পত্তি। মুসলিম নারীরা তাদের সম্ভ্রম হারিয়েছেন। এ ভয়াবহ দাঙ্গার জন্য ভারতে অনেকেই মোদিকে ইন্ধনদাতা হিসেবে মনে করেন। গুজরাট দাঙ্গার পর মোদি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র সফরের জন্য ভিসা পাওয়ার অযোগ্য ঘোষিত হন। এখন মার্কিন প্রশাসনও তার ঘনিষ্ঠ হওয়ার চেষ্টা করছে। প্রেসিডেন্ট ওবামাও মোদিকে অভিনন্দিত করেছেন। আসল কথা হল, সবাই শক্তির পূজারি। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র তার স্বার্থের কথা বিবেচনা করে মোদির প্রতি মুখ ফিরিয়ে থাকতে পারে না। শত হলেও ভারত বৃহত্তম গণতান্ত্রিক দেশ। সেখানে হিন্দু মৌলবাদীরা নির্বাচনী প্রক্রিয়ার মাধ্যমে ক্ষমতায় এলে তাকে তুচ্ছ জ্ঞান করতে পারে না মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। সাম্প্রতিক বছরগুলোতে মনে হচ্ছিল ভারত, রাশিয়া ও চীন অনেক আন্তর্জাতিক প্রশ্নে একই সমতলে অবস্থান করছে। এর ফলে বিশ্ব ক্ষমতার ভারসাম্যে একটি পরিবর্তনের ধারাও সূচিত হচ্ছিল। কিন্তু লোকসভা নির্বাচনের মাধ্যমে ভারতে যে পটপরিবর্তন ঘটল, তার ফলে ভারত অনেক বেশি মার্কিনমুখী হবে বলে ধারণা করা হয়। বিজেপি ভাবাপন্ন বুদ্ধিজীবীদের দৃষ্টিতে কংগ্রেস অনুসৃত ভারতের পররাষ্ট্রনীতি অতীতের জোটনিরপেক্ষতার ধারা থেকে বেরিয়ে আসতে পারেনি। তারা মনে করেন, এর ফলে ভারত অনেক ব্যাপারে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এখন সময় এসেছে জোটনিরপেক্ষতার মনভঙ্গি ত্যাগ করে স্পষ্ট অবস্থান গ্রহণের। এ বিশ্লেষণ যদি সঠিক হয়, তাহলে মনে করতে হবে আগামী দিনগুলোতে ভারত-মার্কিন সম্পর্ক আরও নিবিড় হবে। ড. মনমোহন সিং সরকারের নিরাপত্তা উপদেষ্টা শিবশংকর মেনন তার উত্তরসূরির জন্য একটি নোট রেখে যাবেন। এ নোটে চীন ও বাংলাদেশের প্রতি কংগ্রেস সরকার অনুসৃত নীতি অব্যাহত রাখার জন্য বিজেপি সরকারের প্রতি অনুরোধ থাকবে। এখন দেখার বিষয়, এ অনুরোধ কতটা প্রতিপালিত হয়।

বাংলাদেশের পাঁচ জানুয়ারির ভোটারবিহীন নির্বাচন সত্ত্বেও সাংবিধানিক বৈধতার ওজর টেনে আওয়ামী লীগ ও তার নেতৃত্বাধীন মহাজোট এখন বাংলাদেশের রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় অধিষ্ঠিত। ভারতের কংগ্রেস সরকারের আশীর্বাদ থাকায় আওয়ামী লীগের জন্য ক্ষমতায় থাকা সহজ হয়েছে। অথচ পশ্চিমা দেশগুলো এ অবস্থাটি গ্রহণযোগ্য মনে করেনি। তারা মনে করে, সব দলের অংশগ্রহণমূলক নির্বাচনের জন্য সংলাপ শুরু করতে হবে। দিল্লির নতুন সরকার পাশ্চাত্যের এই অবস্থানের প্রতি সংহতি জানায় কিনা সেটাও দেখার বিষয়। তবে আওয়ামী লীগের সঙ্গে কংগ্রেসের মতো বিজেপির নিবিড় সম্পর্ক নেই বলেই বাংলাদেশের অনেকেই মনে করেন। কংগ্রেস বাংলাদেশ আওয়ামী লীগকে তার অত্যন্ত ঘনিষ্ঠ বন্ধু দল বলে মনে করে। কংগ্রেসের এই মনোভাব কংগ্রেস অতীতে কখনও লুকানোর চেষ্টা করেনি। কংগ্রেস মনে করে, আদর্শগতভাবে আওয়ামী লীগ তাদের অনেক কাছাকাছি। এছাড়া ভারত বাংলাদেশের কাছ থেকে যেসব ব্যাপারে আশ্বস্ত হতে চায়, সেসব ব্যাপারে কংগ্রেসের দৃষ্টিতে আওয়ামী লীগের চাইতে বাংলাদেশে বিশ্বাসযোগ্য আর কোনো দল নেই। স্বাভাবিকভাবে কংগ্রেসের পরাজয় আওয়ামী লীগকে অস্বস্তিকর অবস্থায় ফেলেছে। এই অস্বস্তিকর অবস্থা কাটিয়ে ওঠার জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ইতিমধ্যেই উদ্যোগ গ্রহণ করেছেন। তিনি নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে টেলিফোনে কথা বলেছেন। এছাড়া দিল্লিতে বাংলাদেশী হাইকমিশনার আহমেদ তারেক করিম বেশ কিছুদিন আগেই বিজেপির সঙ্গে যোগাযোগ করেছেন। অন্যদিকে বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া বেশ ত্বরিৎ গতিতেই নরেন্দ্র মোদিকে অভিনন্দন জানিয়েছেন। প্রতিবেশী রাষ্ট্রের সঙ্গে সুসম্পর্ক সবারই কাম্য। তবে এটি হতে হবে সমতার ভিত্তিতে। মনে রাখতে হবে, সৌজন্য প্রদর্শন এক কথা, কিন্তু আশীর্বাদধন্য হতে চাওয়া ভিন্ন কথা। আমাদের দেশ ভৌগোলিক আয়তনে ছোট হলেও আমরা আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলে সম্মানের সঙ্গে বিচরণ করার সক্ষমতা রাখি। সবকিছুই নির্ভর করে রাজনৈতিক ইচ্ছা ও দৃঢ়তার ওপর।

নির্বাচনে জয়ের পর নরেন্দ্র মোদি হিন্দুত্ববাদী পরিচয় থেকে সরে আসার চেষ্টা করছেন। তিনি ইতিমধ্যেই বলে দিয়েছেন, জাতি-ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে সবার প্রতি দায়িত্ব পালন করতে চান। তিনি আরও চান, তার শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠানে যেন সোনিয়া গান্ধী ও রাহুল গান্ধী উপস্থিত থাকেন। মোদ্দাকথা হল, দায়িত্বের বাইরে থাকলে যে আচরণ করা যায়, দায়িত্ব গ্রহণের পর ঠিক সেভাবে আচরণ করা যায় না। দায়িত্বের ভার হিমালয়ের চেয়েও ভারি।
ড. মাহবুব উল্লাহ : ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অবসরপ্রাপ্ত অধ্যাপক
(যুগান্তর)


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ