• বৃহস্পতিবার, ০৭ জুলাই ২০২২, ১১:০৫ অপরাহ্ন |

ফিরছেন নিরু, শামসুজ্জামান দুদুই হচ্ছেন বিএনপির মহাসচিব!

77738_1ঢাকা: আসন্ন বিএনপির ৬ষ্ঠ জাতীয় কাউন্সিলে সকল জল্পনা-কল্পনার অবসান ঘটিয়ে ছাত্রদলের সাবেক সফল সভাপতি শামসুজ্জামান দুদুই মহাসচিব হচ্ছেন। একই সাথে স্বৈরাচার বিরোধী আন্দোলনের অন্যতম সিপাহসালার ছাত্রদলের আরেক কিংবদন্তিতুল্য নেতা সানাউল হক নিরুকেও দলে ফিরিয়ে এনে গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব দেয়া মোটামুটি নিশ্চিত বলে দলীয় সূত্রে জানা গেছে।

ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের সাম্প্রতিক সময়ের কর্মকান্ডে ভীষণ ক্ষুদ্ধ দলের সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমান। সারা দেশের দলীয় নেতা-কর্মীরাও চরম হতাশ হয়েছেন মির্জা আলমগীরের কর্মকান্ডে। একতরফা নির্বাচনের সময় নিরাপদ আত্মগোপনে চলে গিয়ে বিএনপিকে প্রবল সমালোচনার মুখে ফেলে দেন মির্জা ফখরুল। তাই মির্জা ফখরুলকে পূর্ণাঙ্গ মহাসচিব করা হবে না এমন আভাস পাওয়া যাচ্ছে।

মহাসচিব হিসেবে যাদের নাম আলোচনায় রয়েছে, তাদের মধ্যে মহাসচিব হওয়ার দৌঁড়ে এগিয়ে রয়েছেন বিএনপির সাবেক সমন্বয়ক, সাবেক সংসদ সদস্য শামসুজ্জামান দুদু। বেগম খালেদা জিয়া ও তারেক রহমানের গুডবুকে দুদু রয়েছেন বলে জানা গেছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বিএনপির স্থায়ী কমিটির একজন সদস্য বলেন, শামসুজ্জামান দুদুই হচ্ছেন বিএনপির মহাসচিব। এখন শুধু আনুষ্ঠানিকতাই বাকি। বিএনপির স্থায়ী কমিটির বড় অংশটিই মহাসচিব হিসেবে দেখতে চান দুদুকে।

তবে, শামসুজ্জামান দুদু এ ব্যাপারে নিউজ ইভেন্ট ২৪ ডট কমকে জানান, বর্তমান ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর যথেষ্ট যোগ্য ও দলের চেয়ারপারসনের আস্থাভাজন। আমরা সকলে তাকে সহযোগিতা করছি। মহাসচিব হওযার মত সময় এখনো তার আসেনি বলে জানান এ বিনয়ী নেতা।

পশ্চিমাঞ্চলের চুয়াডাঙ্গা জেলায় জন্মগ্রহণকারী রাজনীতিবিদ দুদু ১৯৮১ সনে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগে মাস্টার্স পাশ করেন। তিনি ১৯৮৫ সনে কেন্দ্রীয় ছাত্রদলের বিপ্লবী সভাপতি নির্বাচিত হন। ১৯৯২ সনে কৃষক দলের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। বিএনপির ৫ম কাউন্সিলে তিনি বিএনপি চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা কাউন্সিলের সদস্য নির্বাচিত হন।

বর্ণাঢ্য রাজনৈতিক জীবনের অধিকারী দুদু দেশ সেরা বক্তাদের একজন। ব্যক্তিগত জীবনে তিনি ২ কন্যা সন্তানের জনক। তিনি চুয়াডাঙ্গা থেকে একাধিকবার সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন।

আজন্ম লড়াকু তুর্কি তরুণ হিসেবে সারা দেশের দলীয় নেতা-কর্মীদের কাছের মানুষ তিনি। ২০১৩ সালের মে মাসে বেগম জিয়ার নির্দেশে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে টানা ৬৫ দিন বিএনপির সমন্বয়কের দায়িত্ব পালন করে আরেক দফা সাহসীকতার প্রমাণ দেন আজন্ম লড়াকু এই নেতা। বিএনপির দৈন্যদশা কাটিয়ে উঠতে বিএনপির সাংগঠনিক বাস্তবতায় দুদুই হতে পারেন ব্যারিস্টার আব্দুস সালাম তালুকদারের মত মহাসচিব।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ