• শনিবার, ২৫ জুন ২০২২, ০৪:২৪ পূর্বাহ্ন |

বিজেপির সঙ্গে টেকসই সম্পর্ক গড়তে ব্যস্ত আওয়ামী লীগ

Awamili Flagসিসিনিউজ: ভারতের লোকসভা নির্বাচনে ক্ষমতার পালাবদলে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ খানিকটা চিন্তিত হলেও এ নিয়ে কোনো অস্বস্তি কাজ করছে না দলটি ও সরকারের শীর্ষ মহলে। পরিস্থিতি পর্যালোচনায় ভারতের নতুন সরকারের সঙ্গে আরো টেকসই সম্পর্ক গড়ে তোলার জন্য কাজ শুরু করেছে আওয়ামী লীগ। প্রধানমন্ত্রীর সার্বিক তত্ত্বাবধানে এরই মধ্যে কাজ শুরু করেছে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ও প্রধানমন্ত্রীর পররাষ্ট্র উপদেষ্টা গওহর রিজভীসহ আওয়ামী লীগের জ্যেষ্ঠ নেতারা। সরকার গঠনের পর পরই বাংলাদেশ সরকারের একটি উচ্চ পর্যায়ের প্রতিনিধি দল যাবে ভারতে। ভারতের সরকারপ্রধানকে বাংলাদেশে আসার জন্য প্রধানমন্ত্রীর পক্ষ থেকে আনুষ্ঠানিক আমন্ত্রণপত্রও দেবে তারা। দুই দেশের অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তার বিষয়টি সুসংহত রাখার ব্যাপারে বাংলাদেশের সহযোগিতার কথাও জানাবে ভারতের নতুন সরকারকে। আওয়ামী লীগের শীর্ষ পর্যায়ের নেতারা বলেন, কংগ্রেসের সঙ্গে আওয়ামী লীগের আদি সম্পর্ক থাকায় দলটি ক্ষমতায় থাকায় বাড়তি কিছু সুবিধা ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ পেয়েছে। সেদিক থেকে বিজেপির সঙ্গে সম্পর্ক অতটা গভীর নয়। ফলে কংগ্রেসের কাছ থেকে যেভাবে সহযোগিতা পেয়ে আসছিল বিজেপির কাছ থেকে তা নাও পেতে পারে ক্ষমতাসীনরা। এমন ধারণা সরকারকে একটু চিন্তাগ্রস্ত করেছে। বিষয়টি মাথায় রেখে এ ক্ষেত্রে ব্যক্তি নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে সরকার ও দলের যেসব নেতার আগে থেকেই ব্যক্তিগত যোগাযোগ ও সম্পর্ক ছিল তাদের কাজে লাগানোর উদ্যোগ নেয়া হচ্ছে। আর এই ব্যক্তি পর্যায়ের যোগাযোগে দেশে হিন্দু সম্প্রদায়ের ওপরে জামায়াত-বিএনপির আক্রমণের বিষয়টি তুলে ধরা হচ্ছে।
আওয়ামী লীগের একাধিক সূত্র জানায়, এরই অংশ হিসেবে ভারতের সঙ্গে সম্পর্ক জোরদার করতে ৫ জানুয়ারির নির্বাচনের আগে ভূমিকা রাখা প্রধানমন্ত্রীর পররাষ্ট্রবিষয়ক উপদেষ্টা ড. গওহর রিজভীকে আবারো দায়িত্ব দেয়া হয়েছে। প্রয়োজনে আরো অন্য কাউকে এর সঙ্গে যুক্ত করা হতে পারে বলে জানা গেছে। ইতোমধ্যে গওহর রিজভী প্রাথমিক কাজও শুরু করেছেন। ব্যক্তি পর্যায়ের যোগাযোগ বাড়াচ্ছেন বিজেপি দলীয় কয়েক এমপির সঙ্গে। নরেন্দ্র মোদির মন্ত্রিসভা গঠনের পর এ পক্রিয়া পুরোদমে শুরু করা হবে।
তাছাড়া হবু প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে আওয়ামী লীগের যেসব নেতার ব্যক্তিগত সম্পর্ক রয়েছে তাদেরও মোদি সরকারের সঙ্গে সম্পর্কোন্নয়নে সক্রিয় করে তোলার পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে। এক্ষেত্রে দলের বর্ষীয়ান নেতাদের এ প্রক্রিয়ার সঙ্গে যুক্ত করা হবে বলে জানা গেছে। বিজেপির সঙ্গে যোগাযোগের বাড়তি দায়িত্ব পেতে পারেন আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য তোফায়েল আহমেদ, সুরঞ্জিত সেনগুপ্তের মতো নেতারা। আওয়ামী লীগের নীতি-নির্ধারণী পর্যায়ের নেতারা এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।
নির্ভরযোগ্য একটি সূত্র জানায়, বিজেপির বা নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে ব্যক্তিগত সম্পর্ক রয়েছে আওয়ামী লীগের নেতা এমন কাউকে মন্ত্রিসভায় অন্তর্ভুক্ত করে তাকে কাজে লাগানোর সম্ভাবনার কথাও রয়েছে। সেক্ষেত্রে দক্ষ কাউকে পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিসেবে নিয়োগ দেয়া হতে পারে।
এ প্রসঙ্গে পররাষ্ট্রবিষয়ক উপদেষ্টা ড. গওহর রিজভী বলেন, নতুন করে দায়িত্ব দেয়া না দেয়ার কিছু নেই। প্রতিবেশী রাষ্ট্র হিসেবে ভারতের সঙ্গে সম্পর্কোন্নয়নে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে থেকে আগেও কাজ করেছি এখনো করব। সম্পর্কোন্নয়নে কাজ শুরু করেছেন এমন ইঙ্গিত দিয়ে তিনি বলেন, আমি আশা করি অতীতের চেয়ে ভারতের সঙ্গে সম্পর্ক আরো জোরদার হবে। বিএনপির প্রতি আঙ্গুল তুলে তিনি বলেন, আমাদের দেশে কিছু লোক আছে যারা বিদেশের দিকে তাকিয়ে থাকে। বিদেশিরা সাহায্য করে তাদের ক্ষমতায় বসিয়ে দেবে। এটা হয় না। তিনি বলেন, ভারতের ‘ফরেন পলিসি’ সব সময়ে সব দলকে রাজি করিয়ে হয়। আমাদের সঙ্গে তাদের যে পলিসি ছিল তা বিজেপিকে রাজি করিয়েই করা হয়েছে। সুতরাং এখানে নড়চড় হওয়ার কোনো সুযোগ নেই।
এদিকে শিগগিরই বিজেপির সঙ্গে রাজনৈতিক যোগাযোগ শুরু করা হবে বলে জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক ফারুক খান। এ যোগাযোগ কখন থেকে শুরু হবে জানতে চাইলে তিনি বলেন, যোগাযোগ তো শুরুই হয়ে গেছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা টেলিফোনে কথা বলেছেন নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে। তিনি তো আওয়ামী লীগ সভাপতিও। ফারুক খান আরো বলেন, ভারতের জন্য বাংলাদেশ গুরুত্বপূর্ণ একটি দেশ। নিশ্চয়ই বিজেপি বাংলাদেশের সঙ্গে সেই চিন্তা থেকে কাজ করবে। তিনি বলেন, বিজেপির সরকারের সঙ্গে আগেও কাজ করার অভিজ্ঞতা শেখ হাসিনার সরকারের রয়েছে। তিস্তা চুক্তি, শুল্কমুক্ত সুবিধা বাংলাদেশ পেয়েছিল বিজেপির সরকারের সময়েই। সুতরাং সম্পর্ক খারাপ হওয়ার কোনো কারণ নেই।
সূত্রমতে, সম্পর্কোন্নয়নের অংশ হিসেবেই প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা সময়ক্ষেপণ না করে নরেন্দ্র মোদি ও বিজেপির সভাপতি রাজনাথ সিংকে চিঠি লিখেছেন। পাশাপাশি শেখ হাসিনা ভারতের হবু প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে টেলিফোনে কথা বলেছেন এবং বাংলাদেশ সফরের আমন্ত্রণ জানিয়েছেন।
আওয়ামী লীগ সূত্রে জানা গেছে, বিজেপি ক্ষমতায় আসাতে খুব বেশি আতঙ্কিত না হতে দলের বিভিন্ন স্তরে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। গত বুধবার দলের কার্যনির্বাহী সংসদের সভায় আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা দলীয় নেতাদের উদ্দেশে বলেন, ভারতের সরকার পরিবর্তন হলেও কোনো সমস্যা নেই। আমরা তো ক্ষমতায় আছি। এছাড়া গত রোববার নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার টেলিফোন আলাপের পরে দলের শীর্ষ নেতাদের মধ্যে যে চিন্তার রেখা ছিল সেটা কেটে গেছে।

উৎসঃ   মানবকন্ঠ


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ