• শনিবার, ২৫ জুন ২০২২, ১০:০৬ পূর্বাহ্ন |

একরামুল হক হত্যা ঠিকাদারি ভাগবাটোয়ারার ‘দ্বন্দ্বেই’ খুন

11সিসি নিউজ: ফেনীর ফুলগাজী উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি একরামুল হক একরাম (৪৭) ঠিকাদারী ব্যবসার সঙ্গে জড়িত ছিলেন। তার সম্পাদনায় প্রকাশিত হতো ‘ফেনী প্রতিদিন’ নামে একটি দৈনিক পত্রিকা। এ ছাড়াও ছিলেন ফেনী ডায়াবেটিক হাসপাতাল পরিচালনা পর্ষদের সাধারণ সম্পাদক।মঙ্গলবার সকালে ফেনী শহরের একাডেমি এলাকায় প্রথমে গুলি করে এবং পরে গাড়িতে আগুন দিয়ে একরামুল হক পুড়িয়ে মারে দুর্বৃত্তরা।

ঠিকাদারি কাজের ভাগবাটোয়ারাই এমন মর্মান্তিক খুনের নেপথ্যে বলে জানিয়েছেন নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক স্থানীয় একটি গোয়েন্দা সংস্থার কর্মকর্তা। তিনি জানান, কয়েক মাস আগে একটি তুচ্ছ ঘটনায় ফেনী ডায়বেটিক হাসপাতালে তালা লাগিয়ে দেন তার নিজ দলীয় এক প্রভাবশালী নেতার সমর্থকরা। এ ঘটনাসহ বিভিন্ন ঠিকাদারি কাজের ভাগবাটোয়ারা নিয়ে ওই প্রভাবশালী নেতার সঙ্গে তার অপ্রকাশ্য দ্বন্দ্ব চলে আসছিল। এ সব বিষয় নিয়ে হত্যাকাণ্ডের ঘটনার ‘ক্লু’ উৎঘাটনের চেষ্টা চলছে বলেও জানান ওই গোয়েন্দা কর্মকর্তা।

একরামুল হকের স্ত্রী তাসমিন আক্তারসহ পরিবারের অন্যান্য সদস্যরা ঢাকায় থাকায় এ ব্যাপারে তাদের বক্তব্য জানা যায়নি। তবে তারা ঢাকা থেকে ফেনীর উদ্দেশে রওনা দিয়েছেন বলে জানা গেছে।

জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আবদুর রহমান বিকম জানান, অবশ্যই এ ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত করে দোষীদের খুঁজে বের করে আইনের আওতায় আনতে হবে।

ফেনী-২ আসনের সংসদ সদস্য ও জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নিজাম উদ্দিন হাজারী এ ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত করে দায়ীদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণের আশ্বাস দেন। তিনি মঙ্গলবার বিকেল ৫টায় ঢাকা থেকে ফেনীতে এসে উত্তেজিত নেতাকর্মীদের শান্ত থাকার আহ্বান জানিয়ে বলেন, ‘দোষীদের আটক করে শাস্তির আওতায় আনার ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।’

ফেনী জেলা পুলিশ সুপার পরিতোষ ঘোষ জানান, ‘প্রকাশ্য দিবালোকে এমন ঘটনা অকল্পনীয়। অপরাধীদের গ্রেফতার করে আইনের আওতায় আনার চেষ্টা চলছে।’

তিনি আরও জানান, একরামুল হকের মৃতদেহ ডিএনএ টেস্টের জন্য চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। পুলিশ এ ঘটনার রহস্য উৎঘাটনের চেষ্টা চলাচ্ছে। পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে জেলায় বিজিবি ও অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।’

ফেনী মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি/তদন্ত) আবুল কালাম আজাদ জানান, এ ঘটনায় থানায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে। এ ব্যাপারে নিহতের পরিবারকে থানায় আসতে বলা হয়েছে।

উল্লেখ্য, ফেনীর ফুলগাজী উপজেলা চেয়ারম্যান ও ফুলগাজী উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি একরামুল হককে তার ব্যবহৃত প্রাডো জিপে প্রথমে গুলি করে এবং পরে আগুন দিয়ে পুড়িয়ে হত্যা করা হয়। মঙ্গলবার সকাল ১১টার দিকে শহরের একাডেমি এলাকার বিলাসী সিনেমা হলের সামনে এ ঘটনা ঘটে।

এ সময় গাড়িচালক মামুনসহ (৩০) চারজন গুরুতর আহত হন। তারা হলেন- ফুলগাজী সদর ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান মহি উদ্দিন সামু (৬০), উপজেলা চেয়ারম্যানের (একরামুল হক) দৈনিক ফেনী প্রতিদিন পত্রিকার নির্বাহী সম্পাদক মহিবুবুল্লাহ ফরহাদ (৩২) ও দেলোয়ার হোসেন।

আহতদের মধ্যে মহি উদ্দিন সামু ও মহিবুবুল্লাহ ফরহাদকে ফেনী জেলা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরে অবস্থার অবনতি হলে তাদের ঢাকায় প্রেরণ করা হয়। অপর আহত দেলোয়ার হোসেন ও গাড়িচালক মামুনকে প্রথমে ফেনী ডায়াবেটিক হাসপাতাল এবং পরে তাদেরও ঢাকায় প্রেরণ করা হয়।

এ ঘটনার প্রতিবাদে একরামুল হকের সমর্থকরা ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কসহ বিভিন্ন সড়ক অবরোধ করে রাখেন। ফুলগাজী ও দাগনভূঁঞা এলাকার রাস্তায় টায়ার জ্বালিয়ে বিক্ষোভ করেন তারা। এ সময় তারা একাধিক গাড়ি ভাঙচুর করেন।

এ ছাড়া ছাত্রলীগ ও যুবলীগের কর্মীরা দুপুর ২টা থেকে ৫টা পর্যন্ত ৩ ঘণ্টা ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের মহিপাল এলাকা অবরোধ করে রাখেন। পরে বিজিবি ও র‌্যাব সদস্যরা ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি স্বাভাবিক করেন।

ওই ঘটনার পর থেকে সারাদিন ফেনী শহরে অঘোষিত হরতাল পালিত হয়।

প্রত্যক্ষদর্শী ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, একরামুল হক প্রতিদিনের ন্যায় শহরের মাস্টার পাড়ার বাসা থেকে তার নির্বাচনী এলাকা জেলার ফুলগাজী উপজেলায় যাচ্ছিলেন। সকাল ১১টার দিকে তার গাড়ি শহরের একাডেমি এলাকায় এলে আগে থেকে ওৎ পেতে থাকা দুর্বৃত্তরা প্রথমে তার গাড়ি লক্ষ্য করে এলোপাতাড়ি গুলি করে। এ সময় গাড়ির চালক প্রাণরক্ষায় গাড়িটি দ্রুতবেগে চালাতে গেলে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে রাস্তার পাশের ডিভাইডারের উপর উঠিয়ে দেয়।

দুর্বৃত্তরা এ সময় একরামুল হককে কাছ থেকে গুলি করে তাকে হত্যা করে। এরপর তারা গাড়িতে আগুন দিয়ে দ্রুত সরে পড়ে। আগুনে একরামুলের পুরো শরীর ঝলসে যায়। তাকে চেনার কোন উপায় ছিল না।

খবর পেয়ে ফেনী ফায়ার সার্ভিসের সদস্যরা ঘটনাস্থলে পৌঁছাবার আগেই একরাম চেয়ারম্যানসহ গাড়িটি সম্পূর্ণ ঝলসে যায়।

এ খবর ছড়িয়ে পড়লে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও ফেনী সদর উপজেলার চেয়ারম্যান আবদুর রহমান বিকমের নেতৃত্বে শহরে একটি বিক্ষোভ মিছিল বের হয়। জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি এ ঘটনার জন্য কাউকে দায়ী না করে সুষ্ঠু তদন্তের জন্য প্রশাসনের নিকট জোর দাবি জানান।

পারিবারিক কবর স্থানে দাফন

জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আবদুর রহমান বিকম জানান, একরামুল হকের প্রথম নামাজে জানাজা বুধবার সকাল ১০টায় শহরের মিজান ময়দানে অনুষ্ঠিত হবে। এ জানাজায় যোগাযোগমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের অংশ নেবেন।

দুপুর ২টায় ফুলগাজী পাইলট হাই স্কুল মাঠে দ্বিতীয় এবং বিকেলে পৈত্রিক বাড়ি ফুলগাজী উপজেলার আনন্দপুর ইউনিয়নের বন্দুয়ার দৌলতপুর গ্রামে তৃতীয় নামাজে জানাজা শেষে পারিবারিক কবরস্থানে তার দাফন সম্পন্ন হবে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ