• শনিবার, ০২ জুলাই ২০২২, ০২:৫২ অপরাহ্ন |

বীরগঞ্জে নিষিদ্ধ কোটরাইপারি ধান চাষে কৃষকের সর্বনাশ

_- (3) copyবীরগঞ্জ (দিনাজপুর) প্রতিনিধি: বীরগঞ্জে শত শত বিঘা ইন্ডিয়ান কোটরাইপারি জাতের ধান চাষ করে  কৃষকরা ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে।
জানা গেছে, উপজেলার সুজালপুর  নিজপাড়া, ভোগনগর ইউনিয়নে ও বীরগঞ্জ পৌরসভার বিভিন্ন ওয়ার্ডে  ইন্ডিয়ান কোটরাইপারি ধানের শীষ মরে যাওয়ায় কৃষকের মাথায় হাত পড়েছে।  প্রত্যেক এলাকায় কিছু কিছু চাষীর কোটরাইপারি জাত ধানের ফলন বিপর্যয় হওয়ার সংবাদ পেয়ে উপজেলার সুজালপুর ইউনিয়নের মদনপুর গ্রামের ফজলে আলম শাহীনের ক্ষেতে গিয়ে দেখা যায় ধানের গোট শিষ সাদা ও চিটা হয়ে গেছে সে জানায় ২ বিঘা জমিতে ২০ মন ধান হতে পারে। জগদল গ্রামের সুরু মিয়ার ক্ষেতের শীষ লাল হয়ে চিটা ধরেছে, তিনি জানান বিঘায় ৫ মন ধানও হবে না। দামাইত্রে নওগাও গ্রামের আমির উদ্দিন জানান তার ১ বিঘা জমিতে ধানের খড় ছাড়া অন্য কিছুই নেই সম্পূর্ণ চিটা হয়ে গেছে। এ ব্যাপারে উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা প্রমদ চন্দ্র রায় জানান, এই কোটরাইপারি ধানটি যেই চাষ করে তারই দশা খারাপ হয়, তাই আমরা এই ধানটির নাম দিয়েছি ”দশাপারি’’। কৃষকদের হাজার বার নিশেধ করা সত্তেও কৃষকেরা কৃষি বিভাগের ভাল পরামর্শ উপো করে নিষিদ্ধ জাতের কোটরাপারি ধান চাষ করে নিজেরাই সমস্যা তৈরী করেছে। এক সময় এ জাতের বীজ ব্যপক চাষ করা হয়েছিল তখন ফলনও ভাল হয়েছে। ১ম পর্যায়ে বিঘা প্রতি ৪০থেকে ৪৫মন ধান উৎপন্ন হয়েছে কিন্তু  ২য় বার একই জমিতে যারা কোটরাইপারি জাতের ধান চাষ করেছে তারাই ঠকেছে। সেই থেকে সরকার এই ধান নিষিদ্ধ করেছে। তদুপরী ভারত থেকে কাল বাজারে পাচার হয়ে আসা বীজ ব্যবহার  করে কৃষকেরা সমস্যার পড়ছে। তবে পর্যাপ্ত সেচ, ভিটামিন ও কীটনাষক ব্যবহার করে কিছুটা ফলন রা করা সম্ভব হলেও খরচ প্রচুর হওয়ার কারনে লাভের চেয়ে তি বেশী। সরকারের পক্ষ থেকে ব্যপক প্রচারনার মাধ্যমে কৃষকদের সচেতন করা না হলে কৃষকেরা বার বার প্রতারিত হবে এবং সর্বশান্ত হবে বলে সচেতন মহলের আশংকা।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ