• শনিবার, ২৫ জুন ২০২২, ০৩:৪৩ পূর্বাহ্ন |

কলঙ্কিত র‌্যাব : মাথাচাড়া দিচ্ছে জঙ্গি সন্ত্রাসীরা

Rabসিসিনিউজ ডেস্ক: যে কারণে র‌্যাবের সৃষ্টি, জঙ্গি বাংলাভাই ও শায়েখ আব্দুর রহমানদের নির্মূলে র‌্যাবের যে অবদান, তা কে-উ-ই অস্বীকার করতে পারবে না। কিন্তু বর্তমান কিছু অনাকাঙ্কিত ঘটনার কারণে অথবা বর্তমান পরিস্থিতিকে কাজে লাগিয়ে র‌্যাব বিলুপ্তি বা র‌্যাব থেকে সেনা সদস্যদের প্রত্যাহারে একটি মহল ব্যাপক তৎপরতা শুরু করেছে। আইন প্রয়োগকারী সংস্থার এই এলিট ফোর্সটির বিলুপ্ত ঘটলে সন্ত্রাসী ও জঙ্গিরা মাথাচাড়া দিয়ে উঠবে। অপরদিকে র‌্যাব থেকে সেনাসদস্য প্রত্যাহার করা হলে র‌্যাব দুর্বল হয়ে যাবে। আর এর সুযোগ নেবে অপরাধী এবং সুযোগ সন্ধানী চক্র। এসব চক্রই র‌্যাবের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রে লিপ্ত। র‌্যাবের কয়েক দিনের নিষ্ক্রিয়তার সুযোগে এরই মধ্যে রাজধানীসহ সারাদেশে সক্রিয় হয়ে উঠেছে সন্ত্রাসী-অপরাধী চক্র। মাথাচাড়া দিয়ে ওঠার পরিকল্পনা করছে জঙ্গিরা। সংশ্লিষ্ট সূত্রে এসব তথ্য পাওয়া গেছে।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, ২০০১ সালের পর দেশের আইনশৃক্সখলা পরিস্থিতির মারাত্মক অবনতি ঘটে। রাজধানীর একেক এলাকা চলে যায় সন্ত্রাসীদের একেক গ্র“পের কাছে। তখন মথাচাড়া দিয়ে ওঠে জঙ্গি সংগঠনগুলো। ওই সময় অসহায় হয়ে পড়ে ব্যবসায়ীসহ সাধারণ মানুষ। একপর্যায়ে সেনাবাহিনী নামিয়ে শুরু হয় ‘অপারেশন ক্লিন হার্ট’। বেশিদিন সশস্ত্র বাহিনীকে মাঠে রাখা যায় না বিধায় ইনডেমনিটি দিয়ে তাদের সেনানিবাসে ফেরত পাঠানো হয়। তখন আইনশৃক্সখলা স্বাভাবিক রাখতে গঠন করা হয় প্রথমে র্যাট। পরে ২০০৪ সালের ২৬ মার্চ গঠন করা হয় র‌্যাব। উন্নত বিশ্বেও এ ধরনের বাহিনী আছে। যেমন আমেরিকায় আছে এফবি আই। ব্রিটেনে স্কটল্যান্ড ইয়ার্ড, আর ভারতে আছে ব্ল্যাক ক্যাট। সবারই লক্ষ্য সন্ত্রাস দমন। সন্ত্রাস দমনের পাশপাশি র‌্যাবের অন্যতম প্রধান কাজ জঙ্গি দমন।

প্রতিষ্ঠার পর থেকেই সারাদেশে র‌্যাব অ্যাকশন শুরু করে। র‌্যাবের ভয়ে পালাতে থাকে সন্ত্রাসীরা। জেএমবি সদস্য শায়খ আবদুর রহমান এবং বাংলাভাইসহ শীর্ষ জঙ্গি নেতাদের গ্রেপ্তার করে আইনের আওতায় আনার ক্ষেত্রে র‌্যাবের ভূমিকা প্রশংসনীয়। মূলত র‌্যাবের কারণেই ভেঙে পড়ে জঙ্গি নেটওয়ার্ক। জনমনে স্বস্তি নেমে আসে। অন্যদিকে সন্ত্রাসীরা হয়ে ওঠে আতঙ্কগ্রস্ত। বিএনপির সাংঠনিক সম্পাদক এম ইলিয়াস আলী, ওয়ার্ড কাউন্সিলর চৌধুরী আলমসহ কয়েকজন অপহরণের পর নিখোঁজ হওয়ার ঘটনায় র‌্যাবের বিরুদ্ধে অভিযোগ করা হয়। তবে র‌্যাবের পক্ষ থেকে দাবি করা হয়, এসব ঘটনার সঙ্গে র‌্যাব জড়িত নয়। সর্বশেষ নারায়ণগঞ্জে প্যানেল মেয়র নজরুলসহ সাতজনকে অপহরণ ও হত্যার ঘটনায় র‌্যাবের সংশ্লিষ্টতার অভিযোগ নতুন করে সমালোচনায় ফেলেছে র‌্যাবকে। বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াসহ সুশীল সমাজের কতিপয় সদস্য র‌্যাবকে বিলুপ্তি করার দাবি জানিয়েছেন। মঙ্গলবার র‌্যাব থেকে সেনা সদস্যদের প্রত্যাহার করে নেয়ার দাবি জানিয়েছেন বিএনপি নেতা সাদেক হোসেন খোকা। এসব বক্তব্যের প্রতিবাদ জানিয়েছেন অনেকেই। সংসদের বিরোধীদলীয় নেতা বেগম রওশন এরশাদসহ অনেকের দাবি, র‌্যাব বিলুপ্তির প্রস্তাব অযৗক্তিক। তবে র‌্যাবের সংস্কার প্রয়োজন রয়েছে। সংস্কারের মাধ্যমে র‌্যাবকে অধিকতর কার্যকর ও শক্তিশালী করতে হবে।

সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছে, যেসব সেনা কর্মকর্তা র‌্যাবে কাজ করছেন তারা ডেপুটেশনে এসেছেন। র‌্যাবে কাজ করা অবস্থায় তারা সেনাবাহিনীর কেউ নন। তারা পুলিশ সদর দপ্তরের অধীন কাজ করে। তাই কোনো র‌্যাব সদস্যের বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠলে পুলিশ সদর দপ্তর এর দায়-দায়িত্ব এড়াতে পারে না। নারায়ণগঞ্জের ঘটনায় যে র‌্যাব সদস্যের বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠেছে তাদের মূল বাহিনী অবসর দিয়েছে। তাদের বিচার সেনা আইনে হচ্ছে না। বিচার হচ্ছে ফৌজদারি আইনে। কারণ, তাদের বিরুদ্ধে যখন অভিযোগ ওঠে তখন তারা সেনা বাহিনীর কেউ ছিলেন না।

র‌্যাবের কর্তাব্যক্তিরা জানিয়েছেন, কোনো বাহিনীর দুই-এক সদস্য অপরাধ করলেই পুরো বাহিনী অপরাধী হয় না। এর আগেও অসাধু র‌্যাব কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। র‌্যাব প্রতিষ্ঠার পর গত দশ বছরে নানা অভিযোগের ভিত্তিতে প্রায় দুই হাজার সদস্যের বিরুদ্ধে দৃষ্টান্তমূলক ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। এবারও অভিযোগ প্রমাণ হলে ব্যবস্থা নেয়ার সুযোগ আছে। চট্টগ্রামে দরবার শরিফের দুই কোটি টাকা লুটের অভিযোগে র‌্যাব-৭-এর অধিনায়ক জুলফিকার আলী মজুমদারসহ র‌্যাব সদস্যদের বিরুদ্ধে তদন্ত হয়। অপরাধ প্রমাণ হওয়ায় তাদের বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা নেয়ার পাশাপাশি ফৌজদারি মামলায় বিচারের জন্য পুলিশে সোপর্দ করা হয় ।

র‌্যাবের মহাপরিচালক মোখলেছুর রহমান বলেন, একটি বা দুটি বিচ্ছিন্ন ঘটনা কেন্দ্র করে কোনো বিধিবদ্ধ সংস্থাকে বিলুপ্তি করে দেয়া ঠিক হবে না। যাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ এসেছে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে একাধিক তদন্ত হচ্ছে। র‌্যাব নিজস্ব উদ্যোগে তদন্ত করছে। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে তদন্ত হচ্ছে। আমার বিশ্বাস, সুষ্ঠু তদন্তের মাধ্যমে দোষীদের খুঁজে বের করে আইনের আওতায় আনা সম্ভব হবে। র‌্যাব ডিজি আরও বলেন, অনেক প্রত্যাশা নিয়ে গড়ে ওঠা এ ফোর্স নিয়ে ঢালাও অভিযোগ ঠিক নয়। সন্ত্রাসীগোষ্ঠীসহ অনেক পক্ষই র‌্যাবের কাজে ক্ষুব্ধ হতে পারে। তারা নানা প্রচারণার মাধ্যমে র‌্যাবের কাজে বিঘ্ন ঘটাতে চায়।

র‌্যাবের আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক উইং কমান্ডার এটিএম হাবিবুর রহমান বলেন, র‌্যাবে কাউকে ছাড় দেয়া হচ্ছে না। এখন পর্যন্ত নানা অভিযোগে এক হাজার ৯৪৯ সদস্যকে শাস্তি দেয়া হয়েছে। সাত শতাধিক পেয়েছে গুরুদ-।

র‌্যাব সদর দপ্তর সূত্র জানিয়েছে, র‌্যাবের বিরুদ্ধে বহুমুখী ষড়যন্ত্র চলছে। র‌্যাব পুলিশেরই একটি অঙ্গ প্রতিষ্ঠান। র‌্যাবের ডিজি পুলিশের একজন অতিরিক্ত আইজি। অতিরিক্ত দুই ডিজির মধ্যে একজন পুলিশের। অথচ অভিযোগ প্রমাণ হওয়ার আগেই সোমবার সকালে ঢাকা মহানগর পুলিশের অনলাইন ডিএমপি নিউজে ‘এবার অর্থ আত্মসাতে ১৮ র‌্যাব সদস্য প্রত্যাহার’ শিরোনামে একটি সংবাদ প্রকাশ করা হয়। ওই প্রতিবেদনে বলা হয়— অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে র‌্যাব-৩-এর সিপিসি-৩-এর কোম্পানি কমান্ডার মেজর আলী আহসানসহ ১৮ জনকে প্রত্যাহার করেছে সদর দপ্তর। এটি রুটিন রদবদল। একই সঙ্গে ডিএমপি নিউজে প্রকাশিত সংবাদকে ‘মিথ্যাচার’ বলে উল্লেখ করে র‌্যাব। এরপর ওই র‌্যাব সদস্যদের আবারও আগের পদে ফিরিয়ে আনা হয়।

র‌্যাব কর্মকর্তারা জানান, র‌্যাব বাংলাদেশ পুলিশের সহায়ক বাহিনী হওয়ার কারণে পুলিশ সদর দপ্তরের নির্দেশে পুলিশের সব রকম কাজে র‌্যাবকে অংশগ্রহণ করতে হয়। এ কারণেই এলিট ফোর্স র‌্যাবকে তার সুনির্দিষ্ট কাজের বাইরে টহল, গাড়িবহরে স্কট, চেকপোস্ট, টেন্ডারবাজি নিয়ন্ত্রণ, এমনকি ট্রাফিকের দায়িত্বও পালন করতে হয়। সঙ্গত কারণেই র‌্যাবের ব্যর্থতার দায়ভার পুলিশ সদর দপ্তরকে নিতে হবে।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, গত রবিবার র‌্যাব সদর দফতরে অনুষ্ঠিত এক বৈঠকের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী ওই দিন থেকে সারাদেশে র‌্যাবের টহল ও চেকপোস্ট প্রত্যাহার করে নেয়া হয়। এ সুযোগে সারাদেশে অপরাধমূলক কর্মকা- বেড়ে গেছে। ঘাপটি মেরে থাকা সন্ত্রাসীরা সদর্পে ফিরে আসতে শুরু করেছে। এতে আতঙ্কিত হয়ে পড়েছে দেশবাসী। দেশের বিভিন্ন এলাকায় হত্যাকা-, পরিকল্পিত খুন, অপহরণ, ছিনতাইসহ নানা অপরাধ ঘটছে।

মঙ্গলবার দিনেদুপুরে ফেনীর ফুলগাজী উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও ফুলগাজী উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি একরামুল হককে প্রথমে গুলি, পরে উপর্যুপরি কুপিয়ে এবং এক পর্যায়ে পুড়িয়ে হত্যা করা হয়। এ সময় একই গাড়িতে থাকা ফুলগাজী সদর ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) সাবেক চেয়ারম্যান মহিউদ্দিন, স্থানীয় পত্রিকা সাপ্তাহিক ফেনী সমাচারের প্রকাশক ও সম্পাদক মহিবুল্লাহ ফরহাদ ও গাড়িচালক মামুন অগ্নিদগ্ধ হন। বর্বরোচিত এ ঘটনাটি ঘটে প্রকাশ্যে। রাজধানীর দক্ষিণ বনশ্রী এলাকায় গতকাল দুপুরে মোবাইল ব্যাংকিং প্রতিষ্ঠান ‘বিকাশ’-এর এক কর্মীকে কুপিয়ে সাত লাখ টাকা ছিনতাই করে নেয় দুর্বৃত্তরা। সোমবার রাতে সন্ত্রাসীরা ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা ছাত্রলীগের সাবেক যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক জালাল হোসেন ভূঁইয়াকে হত্যার উদ্দেশে গলা ও পেটে গুলি করে। একই জেলার আশুগঞ্জে সোমবার পূর্ব বিরোধের জের ধরে দুই গ্র“পের মধ্যে সংঘর্ষ হয়। এ সময় দেশি অস্ত্রের আঘাতে রাশেদ মিয়া নামের এক ব্যক্তি নিহত হন। সোমবার রাতে হবিগঞ্জ জেলার বাহুবলে প্রতিপক্ষের হামলায় শুকুর আলী নামের একজন খুন হন। একই রাতে শরীয়তপুরের নড়িয়ায় সন্ত্রাসীদের অস্ত্রের আঘাতে কলেজছাত্র কামরুল হাসান রানা প্রাণ হারান।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপিকা জিনাত হুদা বলেন, র‌্যাব গঠন করা হয়েছিল জঙ্গিবাদ, মৌলবাদ, সন্ত্রাস নির্মূলের জন্য। র‌্যাবের টহল বা চেকপোস্ট প্রত্যাহার করা হলে সাধারণ মানুষের নিরাপত্তা ঝুঁকিতে পড়বে।

নিরাপত্তা বিশ্লেষক মেজর জেনারেল (অব.) মোহাম্মাদ আলী শিকদার বলেন, র‌্যাবের মতো একটি বাহিনী মাঠে না থাকলে ভয়াবহ ঝুঁকিপূর্ণ পরিস্থিতি তৈরি হবে। একটি এলিট বাহিনীর মনোবল ভেঙে দিতে যে অপরাজনীতি চলছে তাতে আমাদের জননিরাপত্তায় মারাত্মকভাবে বিঘ্ন ঘটবে। ব্যবসা-বাণিজ্য করাও কঠিন হয়ে যাবে। সন্ত্রাস-চাঁদাবাজি আবারও ভয়ঙ্কর চেহারা নিয়ে ফিরে আসবে।
নিরাপত্তা বিশ্লেষক মেজর জেনারেল (অব.) আবদুর রশিদ বলেন, কোনো বাহিনীর হঠাৎ অনুপস্থিতিতে আইনশৃক্সখলার অবনতি ঘটে। পুলিশ ও র‌্যাব দুটিই আইজিপির অধীনে। তাদের নিয়মিত উপস্থিতি আইনশৃক্সখলায় ভারসাম্য আনে। র‌্যাবের অনুপস্থিতিতে সব ধরনের অপরাধ বেড়ে যেতে পারে।
সাংবাদিক গোলাম মর্তুজা বলেন, আমি কোনোভাবেই র‌্যাবের বিলুপ্তির পক্ষে নই। যারা র‌্যাব বিলুপ্তির কথা বলছে তারা ঘোলা পানিতে মাছ শিকার করতে চায়। তবে এ কথা অস্বীকার করার উপায় নেই যে, র‌্যাবের আমূল সংস্কার প্রয়োজন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ