• মঙ্গলবার, ০৫ জুলাই ২০২২, ০৩:০১ পূর্বাহ্ন |
শিরোনাম :

প্রথম বিদেশ সফরে ঢাকা আসছেন মোদি

Modiআন্তর্জাতিক ডেস্ক: বিশ্বের সবচেয়ে বড় গণতান্ত্রিক দেশ ভারতের ১৬তম লোকসভা নির্বাচনের মধ্যে প্রধানমন্ত্রী হতে যাওয়া নরেন্দ্র মোদি দায়িত্ব গ্রহণের পর প্রথম বিদেশ সফর হিসেবে ঢাকাকে বেছে নিতে পারেন এবং এ সফরে হয়ে যেতে পারে বহুল কাঙ্খিত তিস্তা চুক্তিও। আজ বৃহস্পতিবার ভারতের শীর্ষস্থানীয় অর্থনীতি বিষয়ক ইংরোজি দৈনিক পত্রিকা ‘বিজনেস স্ট্যান্ডার্ড’ -এর প্রধান প্রতিবেদনে এ খবর প্রকাশ করা হয়েছে। প্রতিবেদনে বলা হয়, সম্প্রতি মোদির সাথে বাংলাদেশে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার টেলিফোন আলাপ আলাপে এ বিষয়টি আলোচনা করা হয়েছে। এতে বলা হয়, ওই টেলিসংলাপে ভারতের প্রধানমন্ত্রী হিসেবে মোদিকে তার প্রথম বিদেশ সফর হিসেবে বাংলাদেশ বেছে নেয়ার অনুরোধ জানান শেখ হাসিনা। একই সঙ্গে ঢাকাকে তার দ্বিতীয় বাড়ি হিসেবে বিবেচনা করার জন্য শেখ হাসিনা অনুরোধ অনুরোধ জানিয়েছে বলেও উল্লেখ করা হয়েছে।
প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ভারতের ১৪ প্রধানমন্ত্রী হিসেবে নরেন্দ্র মোদি তার প্রথম রাষ্ট্রীয় সফরের জন্য ঢাকাকে বেছে নিতে পারেন। একই সঙ্গে মোদির ওই সফরের সময় ভারতের সঙ্গে বাংলাদেশের বহু আকাঙ্ক্ষিত তিস্তা পানি বন্টন চুক্তিও হতে পারে। কূটনৈতিক সূত্রের বরাত দিয়ে এ প্রতিবেদনটি তৈরি করেছেন নয়নিমা বসু। এতে বলা হয়, দুই নেতার টেলিফোন আলাপের একটি বড় অংশ জুড়ে ছিল তিস্তা পানি চুক্তির বিষয়টি। শেখ হাসিনাকে মোদি বলেন, দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ক জোরদার করতে বাস্তব সম্মত ও তাৎপর্যপূর্ণ পদক্ষেপ নেবেন তিনি।
পত্রিকাটির প্রতিবেদনে বলা হয়, সদ্যসমাপ্ত ভারতের লোকসভা নির্বাচনে পরাজিত কংগ্রেসের নেতৃত্বাধীন তত্কালীন ক্ষমতাসীন সংযুক্ত প্রগতিশীল জোট (ইউপিএ) পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিরোধিতার কারণে বাংলাদেশের সঙ্গে তিস্তা পানি চুক্তি করতে ব্যর্থ হয়েছে। ভারতীয় জনতা পার্টি (বিজেপি) ১৬ তম লোকসভা নির্বাচনে নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জন করেছে। তাই বিজেপির প্রধানমন্ত্রী মোদি অবশ্যই মমতাকে এ বিষয়ে রাজি করাতে পারবেন।
সূত্রের বরাত দিয়ে পত্রিকাটি দাবি করেছে, রাজ্যের উন্নয়নে অর্থনৈতিক প্যাকেজ দিয়ে পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতাকে তিস্তা চুক্তিতে রাজি করাতে সক্ষম হতে পারেন। প্রধানমন্ত্রীর শপথ অনুষ্ঠানে মমতাকে আমন্ত্রণ জানিয়েছেন মোদি। এমনকি পশ্চিমবঙ্গের সঙ্গে তিস্তা পানি ভাগাভাগিতে সিকিমের মুখ্যমন্ত্রীকেও রাজি করাতে পারেন তিনি। এতে বলা হয়, প্রতিবেশী দেশগুলোর সঙ্গে ভারতের বাণিজ্যিক ও সুসম্পর্ক স্থাপনে মোদির প্রথম পদক্ষেপ হতে পারে তিস্তা পানির চুক্তি।
প্রসঙ্গত আগামী ২৬ মে সোমবার সন্ধ্যা ৬ টায় ভারতের রাষ্ট্রপতি ভবনের বিশাল আঙিনায় দেশ বিদেশের অন্তত তিন হাজার আমন্ত্রিত ব্যক্তির সামনে নরেন্দ্র দামোদারদাস মোদি প্রধানমন্ত্রী পদে শপথ নেবেন। একই সঙ্গে শপথ নেবেন তার মন্ত্রিসভার অন্তত ৩০ জন সদস্যও। শপথ অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকতে সার্ক সদস্যভুক্ত দেশগুলোর সরকার ও রাষ্ট্রপ্রধানদের আমন্ত্রণ জানিয়েছেন ভারতের ভাবী প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। মোদির শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠানে বাংলাদেশের প্রতিনিধিত্ব করবেন জাতীয় সংসদের স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরী। ৪ দিনের পূর্বনির্ধারিত রাষ্ট্রীয় সফরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২৫ মে জাপান যাচ্ছেন। এ জন্য মোদির শপথ অনুষ্ঠানে স্পিকার যাবেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ