• শনিবার, ০২ জুলাই ২০২২, ০২:৩২ অপরাহ্ন |

বিশ্বকাপ ২০১৪ : যাদের অনুপস্থিতি কষ্ট দেবে

Fifa Cupখেলাধুলা ডেস্ক: আগামী ১২ জুন থেকে ১৩ জুলাই পুরো ফুটবল দুনিয়াই বুঁদ হয়ে থাকবে ব্রাজিল বিশ্বকাপ নিয়ে। প্রাথমিক দল ঘোষণা করে বিশ্বের সেরা দলগুলো নিজেদের প্রস্তুতি এরই মধ্যে শুরু করে দিয়েছে। বিশ্বকাপ ফুটবলের কুড়িতম আসর শুরু হতে বাকি তিন সপ্তাহেরও কম সময়। এখন অপেক্ষা গ্রেটেস্ট শো অন আর্থ শুরুর। অংশগ্রহণকারী ৩২টি দেশের কে কোন গ্রুপে খেলবে, এর সবই চূড়ান্ত। অপেক্ষা শুধু মাঠে গড়ানোর। এ বিশ্বকাপে জায়গা করে নিতে ফেবারিট অনেক দলকেই অপেক্ষা করতে হয়েছে শেষ সময় পর্যন্ত। বিশেষ করে ফ্রান্স, পর্তুগালের মতো দলগুলো একেবারে খাদের কিনারে পৌঁছে গিয়েছিল। সেই আলোচিত দলগুলো অবশেষে ব্রাজিল বিশ্বকাপে অংশ নিতে যাচ্ছে! তবে বিস্ময়টা পর্তুগালের জন্য নয় বরং ফ্রান্সের জন্যই কিছুটা বেশি ছিল। ইউক্রেনের কাছে প্রথম পর্বে ২-০ গোলে পিছিয়ে থেকে ফিরতি লেগে অবিশ্বাস্য কামব্যাক! ফুটবলের বড় আসরের ইতিহাসে যা প্রথম ঘটনা।
বিগত আসরের সব চ্যাম্পিয়ন দল থাকছে এবারের আসরে। কয়েক মাস আগেই শেষ হয়েছে চূড়ান্ত পর্বের দল বাছাই প্রক্রিয়া। ২০১১ সালের মাঝামাঝি সময় থেকে শুরু হয়েছিল ব্রাজিলের বিমান ধরার মিশন। ৩২টি নির্ধারিত স্থানের একটি স্বাগতিক ব্রাজিলের জন্য। বাকি ৩১টির মধ্যে এশিয়া থেকে ৪, ইউরোপ থেকে ১৩, আফ্রিকা থেকে ৫, লাতিন আমেরিকা থেকে ৪ এবং উত্তর-মধ্য আমেরিকা ও ক্যারিবিয়ান দ্বীপপুঞ্জ (কনকাকাফ) থেকে ৩টি দল বিশ্বকাপে খেলার যোগ্যতা অর্জন করে। বাকি দুটি স্থানের জন্য নির্ধারিত মহাদেশীয় প্লে-অফ। এশিয়ার পঞ্চম এবং লাতিন আমেরিকার পঞ্চম স্থান অধিকারী থেকে একটি, অন্যটি নির্ধারিত হয় কনকাকাফ এবং ওশেনিয়ান অঞ্চলের প্লে-অফ থেকে। শেষ পর্যন্ত সে প্রক্রিয়াও শেষ হয়েছে। ব্রাজিল পেয়ে গেল বিশ্বকাপের সম্ভাব্য ৩২ প্রতিযোগীকে। বাদ পড়তে হয়নি কোনো ফেভারিটকেই। এখন ময়দানী লড়াইয়ে কে বাজিমাত করে সেটাই দেখার বিষয়।

দল হিসেবে এই বিশ্বকাপে সুইডেনের বাদ পড়াটা যেমন বিস্ময়ের জন্ম দিচ্ছে, ঠিক তেমনি খেলোয়াড় হিসেবে ফর্মের তুঙ্গে থেকেও আর্জেন্টিনার কার্লোস তেভেজ, ফ্রান্সের সামির নাসরিকে দর্শক হয়েই কাটিয়ে দিতে হচ্ছে। এর বাইরে গত ফুটবল মৌসুমে সর্বোচ্চ পারিশ্রমিকে স্প্যানিশ জায়ান্ট রিয়াল মাদ্রিদে যোগ দেওয়া গ্যারেথ বেল থাকছেন না বিশ্বকাপে। কারণ তার দল ওয়েলস বিশ্বকাপে কোয়ালিফাই করতে পারেনি। কোন মহাদেশ থেকে কোন দল প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছে দেখা যাক এবার।

লাতিন আমেরিকার প্রতিনিধি যারা
বিশ্বকাপ শুরুর আগে থেকেই আর্জেন্টাইন সুপারস্টার লিওনেল মেসি বিশ্বকাপ জয়ের জন্য ব্যকুল হয়ে পড়েছেন। তার কাছে কিংবদন্তি হওয়ার জন্য একটা ট্রফি তার চাই-ই। তার হাতে একবারের জন্য হলেও উঠুক বিশ্বকাপটা, এ প্রার্থনা কোটি কোটি ভক্তের। ব্রাজিল বিশ্বকাপটা হতে পারে একান্তই মেসির। বার্সা তারকার একক ক্যারিশমায় নিজ মহাদেশে অনুষ্ঠিতব্য এই আসরটি জিততে পারে আর্জেন্টিনাই। ফেভারিটের তালিকা থেকে বাদ দেওয়া যাবে না স্বাগতিক ব্রাজিলকেও। লুই ফেলিপে স্কলারির অধীনে যেভাবে ঘুরে দাঁড়িয়েছেন নেইমাররা, তাতে এখনই বিশ্বকাপের অন্যতম ফেভারিট হিসেবে তকমা পেয়ে গেছেন সেলেকাওরা। বিশেষ করে ফিফা কনফেডারেশন্স কাপ জয়ের পর ব্রাজিলকে নিয়ে ভক্তদের প্রত্যাশা বেড়ে গেছে আরও বেশি। তাদের বিশ্বাস, নেইমারের হাত ধরে ষষ্ঠ বিশ্বকাপটা পেয়েও যেতে পারে ব্রাজিল। একই সঙ্গে স্বাগতিকদের জন্য ১৯৫০ বিশ্বকাপের সেই ট্র্যাজেডিও বড় ধরনের অনুপ্রেরণা। মোট কথা, এবারের বিশ্বকাপের পোস্টারবয়ই হচ্ছেন নেইমার। বার্সা এবং জাতীয় দলের হয়ে তার ক্লাসিক্যাল ফুটবল, ব্রাজিলের বিশ্বকাপ জয়ের সম্ভাবনা বাড়িয়েছে কয়েক গুণ। রাদামেল ফ্যালকাওয়ের কলম্বিয়া ১৯৯৮ সালের পর এই প্রথম বিশ্বকাপে। অ্যালেক্সিজ সানচেজের চিলি কিংবা পাওয়ার হাউস ইকুয়েডরকে পেছনে ফেলতে পারবে না কেউ। সবশেষে উরুগুয়ে। প্লে-অফ খেলে গতবারও তারা বিশ্বকাপে গিয়েছিল। শেষ পর্যন্ত ফোরলানরাই সেমিফাইনালিস্ট। ব্রাজিলে বিশ্বকাপ হলে তো তারা এমনিতেই উজ্জীবিত হয়ে ওঠে। ১৯৫০ বিশ্বকাপই যার প্রমাণ। এর বাইরে রয়েছে ইকুয়েডর, চিলি ও উরুগুয়ে।

ইউরোপ থেকে খেলবে যারা
সর্বশেষ আসরের চ্যাম্পিয়ন স্পেনের অবস্থান ইউরোপে। অভিজাত এ অঞ্চল থেকে এবার ১৩টি দল অংশগ্রহণ করছে। ১৩টি দল থেকে যে কেউ বিশ্বকাপ জেতার দাবি করতে পারে। ফেভারিটদের সবাই রয়েছে এবারের বিশ্বকাপে। বাছাইপর্ব থেকে নিরঙ্কুশ আধিপত্য বিস্তার করে স্পেন, জার্মানি, ইতালি ও নেদারল্যান্ডস বিশ্বকাপে ঠাঁই করে নিয়েছে। সাবেক বিশ্বচ্যাম্পিয়ন ইংল্যান্ড আর ফ্রান্স থাকবে শিরোপার লড়াইয়ে। ইউরো জয়ী গ্রিস কাউকে ছেড়ে কথা বলবে না। রাশিয়া, বেলজিয়াম, সুইজারল্যান্ড, ক্রোয়েশিয়া কিংবা বসনিয়া হার্জেগোবিনা নিজ নিজ ক্ষেত্রে অনেক শক্তিশালী। যেকোনো পরাশক্তিকে চ্যালেঞ্জ করতে পারে তারা। সর্বশেষ বাকি থাকল পর্তুগাল। রাশিয়ার সঙ্গে একই গ্রুপে পড়ে প্লে-অফ খেলতে হয়েছে তাদের। কিন্তু সুইডেনের বিপক্ষে যেভাবে একা পারফরম্যান্স দেখিয়েছেন রোনালদো, তাতে আগামী বিশ্বকাপ তার একার হতে পারে বললেও ভুল বলা হবে না। এই যেমন ফ্রান্সের কিংবদন্তি ফুটবলার জিনেদিন জিদান প্রত্যাশা করেছেন বিশ্বকাপে যেন মেসি আর রোনাল্ডো দুজনেই সেরা ফর্মে থাকেন।

আফ্রিকার ভাগ্য যাদের হাতে
বিশ্বকাপে এখনো কোনো আফ্রিকান দেশ শিরোপা জিততে পারেনি। তবে তারা অঘটন ঘটাতে বেশ পটু। গত কয়েকটি বিশ্বকাপের দিকে তাকালেই স্পষ্ট হয়ে যায়, আফ্রিকার যেকোনো একটি দল হাজির হয় চমক নিয়ে। ২০০২ সালে সেনেগাল, ২০০৬ এবং ২০১০ সালে ঘানা, এর আগে নাইজেরিয়া, ক্যামেরুনের ইতিহাস তো কেউ ভুলে যায়নি। এবারের বিশ্বকাপে সেনেগাল না থাকলেও ঘানা, নাইজেরিয়া, ক্যামেরুন রয়েছে। সঙ্গে আছে দিদিয়ের দ্রগবার আইভরিকোস্ট। বিশ্বকাপের জন্য ফেভারিট না হলেও যেকোনো পর্বে যেকোনো বড় দলের জন্য মূর্তিমান আতঙ্ক হিসেবে হাজির হতে পারে আফ্রিকার পাঁচ দলের যে কোনো একটি।

এশিয়ার প্রতিনিধিত্বকারীরা
২০০২ সালে বিশ্বকাপ আয়োজনের পাশাপাশি সেমিফাইনালে উঠে সবাইকে চমকে দিয়েছিল দক্ষিণ কোরিয়া। এটাই এ যাবৎকালে এশিয়ার সেরা পারফরম্যান্স। আফ্রিকার মতো এশিয়ারও চমক দেখানো ছাড়া আর কিছু নেই। এশিয়া থেকে সরাসরি বিশ্বকাপে খেলার যোগ্যতা অর্জন করে চারটি দল। দীর্ঘ বাছাই শেষে ব্রাজিলে সবার আগে নাম লিখিয়েছে জাপান, ইরান, দক্ষিণ কোরিয়া ও অস্ট্রেলিয়া। আফ্রিকান অঞ্চলের দেশগুলোর মতো খুব বেশি চমক দেখাতে না পারলেও এশিয়ান অঞ্চলের দেশগুলোর সম্ভাবনা রয়েছে বিশ্বকাপে। দক্ষিণ কোরিয়া এবং জাপানই হচ্ছে এশিয়ার পতাকাবাহী। গত বিশ্বকাপে জাপান খেলেছিল দ্বিতীয় রাউন্ডে। দক্ষিণ কোরিয়া ২০০২ সালে খেলেছিল সেমিফাইনাল। ইরান নিয়ে স্বপ্ন দেখতে পারে এশিয়ানরা।

উত্তর আমেরিকা থেকে যারা
লাতিন আমেরিকা আর ইউরোপের বাইরে যারা বিশ্ব ফুটবলে নিজেদের প্রতিনিধিত্ব করছে তারা খুব বেশি সাফল্য পায়নি। এদের মধ্যে অংশগ্রহণটাই অনেক বড়। উত্তর ও মধ্য আমেরিকা এবং ক্যারিবীয় দ্বীপপুঞ্জ নিয়ে গঠিত কনকাকাফ। এ অঞ্চল থেকে সরাসরি বিশ্বকাপে খেলার যোগ্যতা অর্জন করে তিন দল। যুক্তরাষ্ট্রই এখানকার নিরঙ্কুশ ফেভারিট এবং সেরা দল হয়েই তারা বিশ্বকাপে নাম লিখিয়েছে। মধ্য আমেরিকার দেশ হন্ডুরাস এবং কোস্টারিকাও সরাসরি বিশ্বকাপে জায়গা করে নেয়। প্লে-অফে নিউজিল্যান্ডকে হারিয়ে মেক্সিকোও বিশ্বকাপে খেলার যোগ্যতা অর্জন করেছে। যে কারও জন্য হুমকি হয়ে উঠতে পারে। দলগুলো।

যাদের অনুপস্থিতি কষ্ট দেবে
প্রতিটা বিশ্বকাপ শুরুর আগে সেরা তারকাদের কে কে অনুপস্থিত থাকেন এসব নিয়ে বিস্তর না হলেও কিছুটা আলোচনা হয়। এবারের আসরে কারা কারা থাকছেন না, তা এরই মধ্যে নির্ধারিত হয়ে গেছে। ব্রাজিল বিশ্বকাপের চূড়ান্ত লড়াইয়ে কঠিন প্রতিদ্বন্দ্বিতাই প্রত্যাশা ভক্ত-সমর্থক ও বোদ্ধাদের। বাছাইপর্ব থেকে ফেভারিট দেশ কিংবা তারকা ফুটবলারদের তেমন কেউ বাদ পড়েননি। তবে দু’একজন তারকা যে একেবারেই বাদ পড়েননি, তা নয়। ব্রাজিল বিশ্বকাপ সবচেয়ে বেশি মিস করবে ফ্রান্স দল পিএসজির সুইডিশ তারকা জাতান ইব্রাহিমোভিচকে। এরপর আছেন রিয়াল মাদ্রিদের হান্ড্রেড মিলিয়ন তারকা গ্যারেথ বেল, জার্মান ক্লাব বরুশিয়া ডর্টমুন্ডের রবার্ট লেওয়ানডস্কি কিংবা চেলসির গোলরক্ষক এবং চেক প্রজাতন্ত্রের পিটার চেক। ইউরোপিয়ান অঞ্চলে ‘সি’ গ্রুপে জার্মানির সঙ্গেই পড়েছিল ইব্রাহিমোভিচের সুইডেন। সরাসরি না পারলেও প্লে-অফ থেকে সম্ভাবনা ছিল বিশ্বকাপে খেলার। কিন্তু এখানে এসে মুখোমুখি হতে হলো ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদোর। দুই পর্বের দুই ম্যাচে একাই রোনালদো করলেন হ্যাটট্রিকসহ চার গোল। সুতরাং বাদ পড়তেই হলো ইব্রাকে। টটেনহ্যাম থেকে শত মিলিয়ন ইউরোয় রিয়াল মাদ্রিদে যোগ দিয়ে তারকাখ্যাতি পেলেও গ্যারেথ বেলের ওয়েলস ছিল ‘এ’ গ্রুপের ছয় দলের মধ্যে পঞ্চম। অর্থাৎ বিশ্বকাপে খেলার ন্যূনতম যোগ্যতাই অর্জন করতে পারেননি সবচেয়ে দামি তারকা। লেওয়ানডস্কি বরুশিয়ার হয়ে গত চ্যাম্পিয়ন্স লিগের সেমিফাইনালে রিয়াল মাদ্রিদের জালে একাই করেছিলেন চার গোল। এরপর তারকাখ্যাতি পেলেও ‘এইচ’ গ্রুপে তার দেশ পোল্যান্ড হয়েছে চতুর্থ। গ্রুপ ‘বি’-তে পিটার চেকের চেক প্রজাতন্ত্র হয়েছে তৃতীয়। ফলে প্লে-অফ খেলারই সুযোগ পায়নি তার দল।

বিশ্বকাপে অংশগ্রহণকারী ৩২টি দল
ইউরোপ : নেদারল্যান্ড, ইতালি, বেলজিয়াম, জার্মানি, সুইজারল্যান্ড, স্পেন, ইংল্যান্ড, রাশিয়া, বসনিয়া-হার্জেগোভেনিয়া, গ্রিস, ক্রোয়েশিয়া, পর্তুগাল, ফ্রান্স।
এশিয়া : জাপান, অস্ট্রেলিয়া, ইরান, দক্ষিণ কোরিয়া।
দক্ষিণ আমেরিকা : ব্রাজিল (স্বাগতিক), আর্জেন্টিনা, কলম্বিয়া, ইকুয়েডর, চিলি, উরুগুয়ে।
উত্তর আমেরিকা : যুক্তরাষ্ট্র, কোস্টারিকা, হন্ডুরাস, মেক্সিকো।
আফ্রিকা : নাইজেরিয়া, আইভরি কোস্ট, ক্যামেরুন, ঘানা, আলজেরিয়া।

বিশ্বকাপের গ্রুপিং
গ্রুপ ’এ’
ব্রাজিল, ক্রোয়েশিয়া, মেক্সিকো ও ক্যামেরুন।
গ্রুপ ’বি’
স্পেন, নেদারল্যান্ড, চিলি ও অস্ট্রেলিয়া।
গ্রুপ ’সি’
কলম্বিয়া, গ্রিস, আইভরি কোস্ট ও জাপান।
গ্রুপ ’ডি’
উরুগুয়ে, কোস্টারিকা, ইংল্যান্ড ও ইতালি।
গ্রুপ ’ই’
সুইজারল্যান্ড, ইকুয়েডর, ফ্রান্স ও হন্ডুরাস।
গ্রুপ ’এফ’
আর্জেন্টিনা, বসনিয়া হার্জেগোভিনা, ইরান ও নাইজেরিয়া।
গ্রুপ ’জি’
জার্মানি, পর্তুগাল, ঘানা ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র।
গ্রুপ ’এইচ ’
বেলজিয়াম, আলজেরিয়া, রাশিয়া ও দক্ষিণ কোরিয়া।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ