• সোমবার, ২৭ জুন ২০২২, ০৮:২৮ পূর্বাহ্ন |
শিরোনাম :
পদ্মা সেতুর রেলিংয়ের নাট খোলা বায়েজিদ আটক নীলফামারী জেলা শিক্ষা অফিসার শফিকুল ইসলামের শ্বশুড়ের ইন্তেকাল সৈয়দপুর সরকারি বিজ্ঞান কলেজের গ্রন্থাগারের মূল্যবান বইপত্র গোপনে বিক্রি ফেনসিডিলসহ সেচ্ছাসেবক লীগের নেতা গ্রেপ্তার এ সেতু আমাদের অহংকার, আমাদের গর্ব: প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশ-ভারতে রেল যোগাযোগ বন্ধ থাকবে ৮ দিন পদ্মা সেতুর উদ্বোধন বাংলাদেশের জন্য এক গৌরবোজ্জ্বল ঐতিহাসিক দিন: প্রধানমন্ত্রী পদ্মা সেতুর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে যেতে মানতে হবে যেসব নির্দেশনা সৈয়দপুরে বিস্কুট দেয়ার প্রলোভনে শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগ গণমানুষের সমর্থনেই পদ্মা সেতু নির্মাণ সম্ভব হয়েছে: প্রধানমন্ত্রী

রংপুরে লটকন চাষে অর্থনৈতিক সমৃদ্ধির সম্ভাবনা

Latkonসরকার মাজহারুল মান্নান: একসময় বনজঙ্গলে অবহেলা-অযত্নে বেড়ে ওঠা অপ্রচলিত কিন্তু খাদ্যগুণে সমৃদ্ধ লটকন ফল এখন অর্থনৈতিক সম্ভাবনার নতুন দুয়ার খুলে দিয়েছে রংপুর অঞ্চলে। এ অঞ্চলের এক শ্রেণীর সাহসী কৃষকের মাধ্যমে শুরু হয়েছে বাণিজ্যিকভাবে লটকন চাষ। এক লাখ হেক্টর উপযোগী জমিতে আধুনিক পদ্ধতিতে লটকন চাষের মাধ্যমে দেশের চাহিদা পূরণ করে মধ্যপ্রাচ্যে রফতানির মাধ্যমে প্রতি বছর তিন হাজার কোটি টাকার অতিরিক্ত অর্থনৈতিক সম্ভাবনার কথা বলছেন কৃষিবিদ, কৃষক ও বিশেষজ্ঞরা। এ জন্য কৃষি বিভাগের কার্যকর উদ্যোগ, বাজারজাত ও সংরক্ষণে গবেষণার কথাও বলছেন তারা।
কৃষি গবেষক, কৃষিবিদ ও কৃষকদের কাছ থেকে পাওয়া তথ্য মতে, লটকন বাংলাদেশের একটি অপ্রচলিত ও খাদ্যমানে সমৃদ্ধ ফল। ফলটি খেতে যেমন সুস্বাদু তেমনি এর চাষও লাভজনক। বনজঙ্গলে অযতেœ বেড়ে ওঠা ফলটি অনেকের কাছে এখনো অপরিচিত। গাছটি দণি এশিয়ায় বুনোগাছ হিসেবে জন্মালেও বাংলাদেশ, মালয়েশিয়া ও থাইল্যান্ডে বাণিজ্যিকভাবে এর চাষ হয়। সম্প্রতি লটকনের অর্থনৈতিক গুরুত্বের বিষয়টি চাষিদের কাছে স্পষ্ট হয়ে উঠেছে। টাঙ্গাইল, ময়মনসিংহ, গাজীপুর ও নরসিংদীর পর রংপুরের মিঠাপুকুরসহ এ অঞ্চলেও ইদানীং শুরু হয়েছে এর বাণিজ্যিক চাষ। অনেকটা লিচুর মতোই গুচ্ছ লটকন এখন পাড়া-মহল্লায় ফেরিওয়ালারা পসরা আর ফলের দোকানে সাজানো ঝুড়িতে রেখে বিক্রি করছেন।
সমৃদ্ধ করবে রংপুর অঞ্চলের অর্থনীতি : হাঁড়িভাঙা আমের আবিষ্কারক রংপুরের মিঠাপুকুরের আখিরাহাট বারোঘরিয়া সরদারপাড়া গ্রামের সাবেক সমবায় কর্মকর্তা আবদুস সালাম সরকার রংপুর অঞ্চলে প্রথম লটকনের বাণিজ্যিক চাষ শুরু করেন। তিনি তার আমবাগানের ভেতরে ছয় একর জমিতে তিন হাজার লটকন গাছ লাগান। গত বছর থেকে তার লটকন গাছ থেকে শুরু হয়েছে ফল সংগ্রহ। এতে বিশাল অঙ্কের লাভের স্বপ্ন দেখছেন তিনি। তার দেখাদেখি অনেকেই এ অঞ্চলের ছোটবড় আম, লিচু ও কাঁঠাল বাগানগুলোতে লটকনগাছের চারা লাগানোর উৎসাহ দেখাচ্ছেন। এখানকার উৎপাদিত লটকন ঢাকাসহ মধ্যপ্রাচ্যেও রফতানির প্রক্রিয়া চলছে।
মিঠাপুকুর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা ড. সারওয়ারুল হক জানান, বাণিজ্যিকভাবে মিঠাপুকুরের কিছু কিছু জায়গায় লটকনের চাষ শুরু হয়েছে। একটি পরিপূর্ণ লটকনগাছ থেকে আট থেকে ১০ মণ ফলন পাওয়া সম্ভব। এবং প্রতি মণ লটকন বাজারে দুই থেকে আড়াই হাজার টাকায় বিক্রি হচ্ছে। সে ক্ষেত্রে একটি গাছ থেকে একজন চাষি ২০ থেকে ২৫ হাজার টাকা আয় করতে পারবেন।
রংপুর আঞ্চলিক খামারবাড়ির একটি সূত্র জানায়, ভিটেবাড়ি বাদে রংপুর অঞ্চলের আট জেলার অন্তত এক লাখ হেক্টর জমি আছে যেখানে একসাথে আম, লিচু, কাঁঠালের বাগান করা সম্ভব। এসব জায়গায় হেক্টর প্রতি এক হাজার ৫০০ লটকনের গাছ লাগানোও সম্ভব। এসব বাগানে গাছ পরিপূর্ণ হয়ে উঠলে তা থেকে সারা বছর গড়ে ৩০ লাখ টাকা আয় করা সম্ভব। সে হিসাবে এই অঞ্চলে এক লাখ হেক্টর জমিতে ১৫ কোটি লটকন গাছ লাগানো সম্ভব। ১০ বছর মেয়াদি পরিকল্পনা নিয়ে এই লটকনের বাণিজ্যিক চাষ বাস্তবায়ন করা গেলে আগামী ১০ বছরের মাথায় এই লটকন থেকে তিন হাজার কোটি টাকা বাড়তি আসবে কৃষকের ঘরে। আর পাঁচ বছরের মাথায় তা থেকে দেড় হাজার কোটি টাকা প্রতি বছর আয় সম্ভব, যা এ অঞ্চলের অর্থনীতিকে করবে সমৃদ্ধ।
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উদ্ভিদবিজ্ঞান বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ জসীম উদ্দিন নয়া দিগন্তকে জানান, লটকনগাছের কাণ্ড থেকে মাথা পর্যন্ত ফল ধরে। এটি খুবই সম্ভাবনাময় একটি দেশীয় বৃ। আমাদের বৃরোপণ কর্মসূচিতে বৃটিকে তালিকাভুক্ত করে এর ব্যাপক প্রসার ঘটানো প্রয়োজন। কারণ এটি একদিকে মানুষেরও খাদ্য আবার বন্যপ্রাণীও এই ফল খেয়ে বেঁচে থাকতে পারে।
লটকনের পুষ্টিমান : বুড়িরহাট কৃষি গবেষণা সেন্টারের বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা হামীম রেজা জানান, ফলের ওজনের ৬৬ শতাংশ খোসা ও বীজ এবং বাকি ৩৪ শতাংশ খাদ্য উপযোগী অংশ। প্রতি ১০০ গ্রাম খাদ্যোপযোগী অংশে আমিষ, স্নেহ, শর্করা, আঁশ, ক্যালসিয়াম, ফসফরাস, আয়রন, ভিটামিন-এ, ভিটামিন-বি১, ভিটামিন-বি২, নায়াসিন, এসকরবিক, এসিড আছে।
লটকনের ঔষধিগুণ : কাউনিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কনসালট্যান্ট ডা: মোহাম্মদ হোসেন নয়া দিগন্তকে জানান, প্রতিদিন দুই থেকে চারটি লটকন খেলে দেহের ভিটামিন সির চাহিদা পূরণ করা সম্ভব। লটকন ফল খেলে হঠাৎ ওঠা বমিবমি ভাব দূর এবং পিপাসা নিবারণ হয়। শুকনো পাতার গুঁড়া খেলে ডায়রিয়া ও মানসিক চাপ কমে যায়।
বারির গবেষণা চলছে : লটকন নিয়ে বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউটে গবেষণামূলক কাজ হচ্ছে। বাংলাদেশে লটকনের স্থানীয় ও বন্য অনেক জাত থাকলেও অনুমোদিত জাত হলো বারি লটকন১। বারি লটকন জাতটি বাংলাদেশের চাষের জন্য ২০০৮ সালে অনুমোদন করা হয়। এ ছাড়া দেশের বাজারে দুই ধরনের লটকন পাওয়া যায়। এদের মধ্যে একটি তিন কোষবিশিষ্ট ছোট আকার এবং অন্যটি চার কোষবিশিষ্ট বড় আকারের। বড়টির কোষে রসের পরিমাণ এবং মিষ্টতা বেশি থাকে। চাষের জন্য চার কোষবিশিষ্ট জাতটি নির্বাচন করাই উত্তম। গাছ পাঁচ থেকে ছয় মিটার পর্যন্ত লম্বা হয়।
আবহাওয়া ও মাটি : লটকন উষ্ণ এবং নাতিশীতোষ্ণ অঞ্চলের আর্দ্র আবহাওয়ায় ভালো জন্মে। এ জন্য পানি দাঁড়ায় না অথচ বৃষ্টিপাত বেশি হয় এমন এলাকার বেলে-দোআঁশ, বা কাদা-দোআঁশ, ক্ষারবিহীন, ৫.৫ থেকে ৬.০ ভাগ অম্লযুক্ত মাটি লটকন চাষের জন্য বেশি উপযোগী। গৈরিক বা লাল রঙের মাটিতে প্রচুর ক্যালসিয়াম ও অন্যান্য খনিজ উপাদান রয়েছে। তাই এ মাটি লটকনের অত্যন্ত উপযোগী। লটকন চারা রোপণের উপযুক্ত সময় হচ্ছে এপ্রিল থেকে আগস্ট পর্যন্ত।
রংপুর আঞ্চলিক খামারবাড়ির অতিরিক্ত পরিচালক মজিবুল হক মিয়া জানান, লটকন চাষে রোগ বালাই তেমন একটা নেই। চাহিদাও প্রচুর। এসব কারণেই দিন দিন লটকন চাষের প্রসার ঘটছে। তিনি বলেন, হর্টিকালচার সেন্টারের মাধ্যমে স্বল্পমূল্যে উন্নত জাতের লটকনগাছের কলম ও চারা চাষিদের মধ্যে বিতরণ, প্রশিক্ষণ ও উপকরণ বিতরণের চিন্তাভাবনা করা হচ্ছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ