• রবিবার, ০৩ জুলাই ২০২২, ০৬:০৮ পূর্বাহ্ন |

সেন্টু হত্যার নেপথ্যে প্রেমিকা প্রিয়া !

Sentoসিসিনিউজ: সেন্টুর সাথে অনৈতিক সম্পর্ক ছিল প্রিয়ার। আর সেই সম্পর্কের টানে স্বামীর ঘর ছেড়ে সেন্টুকে বিয়ে করতে চেয়েছিল প্রিয়া। এ ক্ষেত্রে প্রিয়া ব্যর্থ হয়। সেন্টু প্রতিবেশী অন্য এক মেয়েকে বিয়ে করে। এতে ক্ষুব্ধ হয় প্রিয়া। অনেক চেষ্টা করেও সেন্টুকে বাগে আনতে পারেনি। অবশেষে প্রেমিকা থেকে খুনি বনে যায় মোরশেদা আক্তার প্রিয়া (৩২)। ১০ লাখ টাকার বিনিময়ে সোহাগকে দিয়ে সেন্টুকে হত্যা করার পরিকল্পনা করে সে। রাজধানীর হাতিরঝিলে নাটোরের বড়াইগ্রাম উপজেলা যুবদলের প্রচার সম্পাদক জিয়াউল হক সেন্টু (৩৮) হত্যার রহস্য উদঘাটন করতে গিয়ে এমন চাঞ্চল্যকর তথ্য পেয়েছে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ।

সেন্টু হত্যার অভিযোগে মূল পরিকল্পনাকারী প্রিয়াসহ সাতজনকে গ্রেফতার করেছে গোয়েন্দা পুলিশ। গ্রেফতারকৃত অন্যরা হলো : সোহাগ হাসান (২২), হাবিব (২১), আবুল হাসান (২০), পারভেজ (২২), সুজন শেখ (২১) ও সোহেল রানা (২২)। গত বুধবার গভীর রাতে রমনা এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেফতার করা হয়। এ সময় হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত মাইক্রোবাসটি (চট্টমেট্রো- চ-১১-২৮১৯) জব্দ করে পুলিশ।
বৃহস্পতিবার দুপুরে ঢাকা মহানগর পুলিশের মিডিয়া সেন্টারে এক সংবাদ সম্মেলনে এ কথা জানান গোয়েন্দা পুলিশের ডিসি কৃষ্ণ পদ রায়।
তিনি জানান, গত ১৫ মে বৃহস্পতিবার রাত সোয়া ২টার দিকে হাতিরঝিলের ৪০ বস্তিঘরের সামনের মাইক্রোবাস থেকে সেন্টুকে নামিয়ে ছুরিকাঘাত করে দুর্বৃত্তরা। এ সময় তার হাত-পা বাঁধা ছিল। ঘটনাস্থলের কাছেই কর্মরত দিনমজুরেরা ঘটনাটি দেখে ধাওয়া দিলে তারা গাড়ি নিয়ে সটকে পড়ে। যাওয়ার সময় গাড়িচাপা দিয়ে সেন্টুর মৃত্যু নিশ্চিত করে যায় দুর্বৃত্তরা। পরে খবর পেয়ে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ মর্গে পাঠায়। ঘটনার পরদিন সেন্টুর বড় ভাই মোস্তফা কামাল বাদি হয়ে রমনা থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন। থানা পুলিশের পাশাপাশি ডিবিও ছায়া তদন্ত শুরু করে। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে গত বুধবার রাতে ডিবির এসি হাসান আরাফাতের নেতৃত্বে রমনার মীরবাগ ও মধুবাগ এলাকায় অভিযান চালিয়ে আসামিদের গ্রেফতার করা হয়।
কৃঞ্চ পদ রায় বলেন, প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে গ্রেফতারকৃতরা জানিয়েছে, সেন্টুর সাথে প্রিয়ার ১০ বছর ধরে অনৈতিক সম্পর্ক ছিল। প্রিয়া স্বামীর সংসার ছেড়ে সেন্টুকে বিয়ে করতে চেয়েছিল। গত দুই বছর আগে সেন্টু তার গ্রামের এক মেয়েকে বিয়ে করলে ক্ষুব্ধ হন প্রিয়া। তিনি সেন্টুকে স্ত্রীর সাথে সম্পর্ক ছিন্ন করার জন্য চাপ দিতে থাকেন। এতে সেন্টু রাজি না হওয়ায় তাকে হত্যার পরিকল্পনা করে প্রিয়া। এরই মধ্যে গাড়িচালক সোহাগ হাসানের সাথে অনৈতিক সম্পর্কে জড়িয়ে পড়ে প্রিয়া। প্রিয়া ১০ লাখ টাকার বিনিময়ে সোহাগকে দিয়ে সেন্টুকে হত্যার পরিকল্পনা করে।
গ্রেফতারকৃতরা আরো জানিয়েছে, গত ১৫ মে সেন্টুকে ঢাকা আসতে বলা হয়। ঢাকায় এলে প্রিয়ার গাড়িতে সেন্টু ও প্রিয়া ঘুরতে বের হন। বিভিন্ন স্থানে ঘোরাফেরা শেষে রাত পৌনে ২টার দিকে হাতিরঝিলে সেন্টুকে নিয়ে আসে প্রিয়া। সেখানে আগে থেকেই অবস্থান করছিল সোহাগ ও তার সহযোগীরা। হাতিরঝিলের ঘটনাস্থলে পৌঁছানোর সাথে সাথে সেন্টুকে ছুরিকাঘাত করতে থাকে তারা। এ সময় সেখানে অবস্থানকারী বালুশ্রমিকেরা ঘটনা প্রত্যক্ষ করেন এবং তাদের ধাওয়া দিলে দুর্বৃত্তরা মাইক্রোবাসে করে পালিয়ে যাওয়ার সময় সেন্টুর মৃত্যু নিশ্চিত করতে তার গায়ের ওপর দিয়ে গাড়ি চালিয়ে দেয়।
জানা গেছে, বড়াইগ্রাম উপজেলা যুবদলের প্রচার সম্পাদক ছিলেন জিয়াউল হক সেন্টু। তিনি উপজেলার কামারদহ গ্রামের ওয়াজেদ আলী মাস্টারের ছেলে।
নিহতের পরিবার জানায়, কিছু দিন ধরেই সেন্টু ব্যবসায়িক কাজে ঢাকার সাভারে অবস্থান করছিলেন। গত ১৫ মে বৃহস্পতিবার দুপুর ১২টার দিকে তিনি সাভার থেকে ঢাকার উদ্দেশে রওনা দিয়ে আর বাসায় ফেরেননি। ওই দিন গভীর রাতে রমনা থানা পুলিশ হাতিরঝিল এলাকা থেকে তার হাত-পা বাঁধা লাশ উদ্ধার করেন। সেন্টু কাঁচামাল ও জায়গা-জমির ব্যবসা করতেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ