• শনিবার, ০২ জুলাই ২০২২, ০২:৩১ অপরাহ্ন |

আওয়ামী লীগে বাড়ছে খুন-আতঙ্ক

Awamili Flagসিসিনিউজ: গুম নয়, এবার খুন-আতঙ্ক আওয়ামী লীগে। বিএনপির নেতারা গুম আর আওয়ামী লীগের নেতারা হন খুন। সরকারের গত মেয়াদে বিএনপি নেতা চৌধুরী আলম-ইলিয়াস আলীসহ গুম হন দলটির বেশকিছু নেতা-কর্মী। বিএনপির অভিযোগ, এ ধারা এখনো অব্যাহত। অন্যদিকে গুমের তালিকায় না থাকলেও ক্রমেই দীর্ঘ হচ্ছে ক্ষমতাসীন দলের নেতা-কর্মীদের খুন হওয়ার তালিকা। নারায়ণগঞ্জের ঘটনা দিয়ে আলোচনায় আসলেও এটি এখন প্রায় নিত্যদিনের গল্প।

নারায়ণগঞ্জের প্যানেল মেয়রসহ সাতজনকে গুম করে খুনের ঘটনার রেশ কাটেনি এখনো। এরই মধ্যে মঙ্গলবার ফেনীর ফুলগাজী উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান একরামুল হককে গাড়ির ভেতরে গুলি করে ও আগুনে পুড়িয়ে হত্যা করা হয়। তিনি ফুলগাজী উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ছিলেন।

একরামুল হক হত্যার একদিন পর বৃহস্পতিবার লক্ষ্মীপুরে খুন হয়েছেন আওয়ামী লীগের দুই নেতা। নিহতরা হলেন, সদর উপজেলার চরশাহী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুল মান্নান ভূইয়া (৫০) এবং রায়পুর পৌরসভার ২ নম্বর ওয়ার্ডের সাধারণ সম্পাদক মো. আবদুল মজিদ (৫০)।

একই দিন বগুড়ায় রহস্যজনকভাবে খুন হয়েছেন যুবলীগকর্মী শিপলু (৩৫)। তিনি শহরের রহমান নগর এলাকার হাবিবুর রহমানের ছেলে।

এই ঘটনার দুদিন আগেই লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলার হাজিরপাড়ায় ছাত্রলীগের এক নেতা ও যুবদলের এক কর্মী খুন হন। এই মাসে লক্ষ্মীপুরে খুন হন যুবলীগের এক নেতা ও যুবদলের এক কর্মী।

একের পর এক এ ধরনের ঘটনাগুলো নিয়ে চরম অস্বস্তি দেখা দিয়েছে আওয়ামী লীগে। দ্বিতীয় মেয়াদে ক্ষমতাগ্রহণ করে প্রথমে কিছুটা স্বস্তি থাকলেও বর্তমানে একের পর দলীয় নেতা-কর্মীদের খুনের ঘটনায় মাঠপর্যায়ে আওয়ামী লীগের মধ্যে বিরাজ করছে চরম আতঙ্ক।

কয়েকদিন আগে এক আলোচনা সভায় অংশ নিয়ে ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক ও সংসদ সদস্য হাজী সেলিম বলেছেন, গত ৫ জানুয়ারির নির্বাচনের সময় বিএনপি ও জামায়াত সারা দেশে যেভাবে চোরাগোপ্তা হামলার সূচনা করেছিল, সেটাই এখনো চলছে। এতে তিনি নিজেও আতঙ্কে আছেন বলেও মন্তব্য করেন সেসময়।

তবে শুধু প্রতিপক্ষ নয়, এরই মধ্যে নিজ দলের লোকজনের হাতে আওয়ামী লীগের দলীয় নেতাকর্মী খুন অপহরণ এবং হামলার শিকার হওয়ার ঘটনা ঘটেছে একাধিক। যা আতঙ্ককে বাড়িয়েছে আরো কয়েক গুণ।

এদিকে বিষয়টি সবাই গণমাধ্যমে মুখ না খুললেও কেউ কেউ আবার প্রকাশ্যেই সমালোচনা করছেন সরকারের। ফুলগাজী উপজেলা চেয়ারম্যান ও আওয়ামী লীগের সভাপতিকে এমন নির্মনভাবে হত্যার ঘটনায় ক্ষোভ প্রকাশ করে দলের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত বৃহস্পতিবার এক আলোচনা অনুষ্ঠানে বলেছেন, দিন দিন প্রশাসন দুর্বল থেকে দুর্বল হয়ে পড়ছে। নারায়ণগঞ্জের পর ফেনীর ফুলগাজীই তার প্রমাণ।

খুন ঘুমের ঘটনা নিয়ন্ত্রণে আনতে না পারায় খোদ দলের মধ্যেও সমালোচনার ঝড় উঠছে। দলের সিনিয়র কয়েকজন নেতার সঙ্গে আলাপকালে তারা জানিয়েছেন, এভাবে আর চলতে দেয়া যায় না। আইনশৃঙ্খলা নিয়ন্ত্রণে আনতে আর হার্ডলাইনে যেতে হবে। এ বিষয়ে ইতিমধ্যে দলের পক্ষ থেকে সরকারকে হার্ডলাইনে যাবার পরামর্শ দেয়া হয়েছে বলেও জানান তারা।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক আওয়ামী লীগের এক সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য নতুন বার্তা ডটকমকে বলেন, দেশব্যাপী যেভাবে দলীয় নেতাকর্র্মী হত্যাকাণ্ডের শিকার হচ্ছে, তাতে তৃণমূলের নেতারা আতঙ্কগ্রস্ত হয়ে পড়েছেন। ক্ষমতায় থেকেও দলীয় নেতা-কর্মীদের এভাবে খুন হওয়া ক্রমেই ভীত করে তুলছে তাদের।

উৎসঃ   নতুন বার্তা


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ