• সোমবার, ২৭ জুন ২০২২, ১০:৩৮ পূর্বাহ্ন |
শিরোনাম :
পদ্মা সেতুর রেলিংয়ের নাট খোলা বায়েজিদ আটক নীলফামারী জেলা শিক্ষা অফিসার শফিকুল ইসলামের শ্বশুড়ের ইন্তেকাল সৈয়দপুর সরকারি বিজ্ঞান কলেজের গ্রন্থাগারের মূল্যবান বইপত্র গোপনে বিক্রি ফেনসিডিলসহ সেচ্ছাসেবক লীগের নেতা গ্রেপ্তার এ সেতু আমাদের অহংকার, আমাদের গর্ব: প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশ-ভারতে রেল যোগাযোগ বন্ধ থাকবে ৮ দিন পদ্মা সেতুর উদ্বোধন বাংলাদেশের জন্য এক গৌরবোজ্জ্বল ঐতিহাসিক দিন: প্রধানমন্ত্রী পদ্মা সেতুর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে যেতে মানতে হবে যেসব নির্দেশনা সৈয়দপুরে বিস্কুট দেয়ার প্রলোভনে শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগ গণমানুষের সমর্থনেই পদ্মা সেতু নির্মাণ সম্ভব হয়েছে: প্রধানমন্ত্রী

বেদখল হয়ে যাচ্ছে কবি গোলাম মোস্তফার বসতভিটা

Kobi-Golam-Mostafaসিসিনিউজ : বে-দখল হয়ে যাচ্ছে কবি গোলাম মোস্তফার বসতভিটা। বাড়ির ২৪ শতাংশ জমি দখল করে নেওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। ইতিমধ্যে ওই জমিতে সীমানা-পিলার পুঁতে দিয়েছেন দখলদারের লোকজন। এই ২৪ শতাংশ জমির মধ্যে কবির থাকার ঘরের একাংশও পড়েছে। বিশ্বনবী, রক্তরাগ, হাসনাহেনা, সাহারা, বুলবুলিস্থান, বনি আদমসহ অসংখ্য কাব্যগ্রন্থের স্রষ্টা এই কবি।

কবি গোলাম মোস্তফা ১৮৯৭ সালে ঝিনাইদহের শৈলকুপা উপজেলার মনোহরপুর গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। কবির চার ছেলে ও এক মেয়ের মধ্যে বর্তমানে এক ছেলে ও এক মেয়ে বেঁচে আছেন। তারা হলেন বাংলাদেশ টেলিভিশনের সাবেক মহাপরিচালক মোস্তফা মনোয়ার ও মেয়ে রাশিদা হক। রাশিদা হক জাতীয় স্মৃতিসৌধের নকশাকার সৈয়দ মাইনুল হোসেনের মা।

মনোহরপুর গ্রামের বেশ কয়েকজন জানান, কবি গোলাম মোস্তফা শুধু নন, তার সন্তানেরাও স্ব-স্ব ক্ষেত্রে স্বনামধন্য। তাদের সবার জন্মস্থান আজ দখল করে নিচ্ছে এলাকার কয়েকজন দখলদার।

ওই গ্রামে প্রতিষ্ঠিত কবি গোলাম মোস্তফা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ও বিশিষ্ট সংগীতশিল্পী ফিরোজ খান নুন জানান, কবি গোলাম মোস্তফা ভারতের বালিগঞ্জ হাইস্কুল ও বাঁকুডা জেলা স্কুলের প্রধান শিক্ষক থাকা অবস্থায় ১৯৫০ সালে অবসর নেন। কবির তৈরি এই বাড়িতেই ১৯৬৪ সালে মারা যান তিনি।

কবির মেয়ে রাশিদা হক বলেন, ‘সর্বশেষ রেকর্ড অনুযায়ীও ওই ২৪ শতাংশ জমি আমাদের। এই বাড়িতে আমার পিতার অনেক স্মৃতি রয়েছে।’ তিনি আরও জানান, তাদের পরিবার চেয়েছিল বাড়িটি কবির স্মৃতি হিসেবে টিকে থাক। কিন্তু হঠাৎ করে বাড়ির জায়গা দখল শুরু হয়েছে। যারা এখন ওই জমি তাদের বলে দাবি করছেন, তাদের পূর্বপুরুষেরা কখনো ওই জমি তাদের দাবি করেননি।

দখলদার সদর উদ্দিনের ছেলে জিহাদ মিয়া দাবি করেন, তারা রেকর্ডে দেখছেন জমি তাদের। তাই দখল নিচ্ছেন।

শৈলকুপা উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ আলী জানান, দখলদারদের সরিয়ে দেওয়া হয়েছে। তবে দখলদারদের সীমানা-পিলার পুঁতে রাখার বিষয়টি তার জানা নেই। এ ব্যাপারে তিনি খোঁজ নেবেন। সূত্র: শীর্ষ নিউজ


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ