• শনিবার, ০২ জুলাই ২০২২, ০২:২৬ পূর্বাহ্ন |

শিগগিরই ফেনীতে আরও লাশ পড়বে : জয়নাল হাজারী

Hazariসিসিনিউজ: ফেনীর এক সময়কার আলোচিত রাজনৈতিক খলনায়ক জয়নাল হাজারী বলেছেন, শিগগিরই ফেনীতে আরও লাশ পড়বে। এই তালিকায় তিনি নিজেও রয়েছেন। এছাড়াও আছেন প্রধানমন্ত্রীর তথ্য উপদেষ্টা ইকবাল সোবহান চৌধুরী, চট্টগ্রাম এলাকার এক বিচারক, ফেনী জেলা যুবলীগের যুগ্ম আহবায়ক সাখাওয়াত হোসেন ও ধর্মপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আরজুু। বৃহস্পতিবার যুগান্তরকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে কথাগুলো বলেছিলেন ফেনীর সাবেক এমপি ও এক সময়কার আলোচিত গডফাদার ফেনীর আতংক জয়নাল আবেদীন হাজারী। দীর্ঘদিনের রাজনৈতিক অভিজ্ঞতা ও কিছু চাঞ্চল্যকর তথ্যের ভিত্তিতে তার কাছে মনে হয়েছে উল্লিখিত ব্যক্তিরা এখন নিরাপদ নন। যে কোনো সময় তিনিসহ তারা সবাই খুন হতে পারেন। আর এই সিরিয়াল খুনের নাটের গুরু ও নেপথ্যে আছেন ফেনীর বর্তমান এমপি নিজাম উদ্দিন হাজারী। বিষয়টি ইতিমধ্যে তিনি স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ও আইজিপিকেও জানিয়েছেন বলে জানান। কিন্তু তার ধারণা, ফেনী জেলার বর্তমান পুলিশ প্রশাসন স্থানীয় এমপি নিজামের পোষা চাকর। এদের দিয়ে কোনোভাবে এসব সিরিয়াল কিলিং নিয়ন্ত্রণ করা যাবে না। তার মতে, ফেনীর ফুলগাজী উপজেলা চেয়ারম্যান একরামুল হককেও প্রকাশ্যে নির্মমভাবে হত্যা করেছে নিজাম হাজারী। কিলিং মিশনের পুরো বাহিনীর নেতৃত্ব দিয়েছে নিজাম হাজারীর ক্যাডার ও তার মামাতো ভাই আবীর। একরামুল হককে প্রথম গুলি চালিয়েছে তার মামাতো ভাই। জয়নাল হাজারী এ অবস্থায় প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করে অবিলম্বে নিজাম হাজারীকে গ্রেফতার করে প্রয়োজনে ডান্ডাবেড়ি পরিয়ে জিজ্ঞাবাদ করার দাবি জানান। তার মতে, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নারায়ণগঞ্জের ঘটনায় যে শক্তিশালী ভূমিকা রেখেছেন, ফেনীর ঘটনায় এ ধরনের ভূমিকা না রাখলে ফেনী জ্বলেপুরে ছারখার হয়ে যাবে। আগুন জ্বলবে ফেনীর আকাশে বাতাসে।
আপনাকে রিমান্ডে এনে জিজ্ঞাসাবাদ করলে একরামুল হকের খুনের রহস্য বেরিয়ে আসবে- বর্তমান এমপি নিজাম হাজারীর সংবাদ সম্মেলনে দেয়া বক্তব্য প্রসঙ্গে জানতে চাইলে জয়নাল হাজারী বলেন, এটা রাজনৈতিক অপকৌশল। হত্যাকাণ্ডের রহস্য ধামাচাপা দেয়া এবং জনগণের দৃষ্টিভঙ্গি অন্য দিকে ফিরিয়ে দেয়ার কৌশল। তিনি বলেন, রিমান্ডে নেয়ার দরকার হবে না। এমনিতেই সব তথ্য ফাঁস করে দেব। কিলিং মিশনের ভিডিও ফুটেজ থেকেই সব রহস্য বেরিয়ে আসবে কারা একরামুলকে হত্যা করেছে। আর খুনের পর কারা গানপাউডার দিয়ে একরামুলের নিথর দেহ জ্বালিয়ে ছাই করে দিয়েছে, সেটাও জানা যাবে। বর্তমান তথ্যপ্রযুক্তির যুগে দেশে কেউ না কেউ এই হত্যাকাণ্ডের ছবি ধারণ করে রেখেছেন। যে কোনো সময় এই ফুটেজও বেরিয়ে আসবে। তিনি বলেন, একরামুলের হত্যাকাণ্ডের মধ্যে যে নির্মমতা আর নৃশংসতা ছিল তাতেই প্রমাণ করে কারা তাকে খুন করেছে। কারা তার প্রতিপক্ষ। তার মতে, ফুলগাজী উপজেলা চেয়ারম্যান একরামুলই ছিলেন নিজাম হাজারীর একমাত্র পথের কাঁটা। তাই নির্মমভাবে তাকে সরিয়ে দেয়া হয়েছে।
একরামুলের খুনের রহস্য কি জানতে চাইলে জয়নাল হাজারী বলেন, নির্বাচন কমিশনের কাছে দেয়া হলফনামায় নিজাম হাজারীর দেয়া মিথ্যা তথ্য এবং দুই বছর ১০ মাস সাজা কম খেটে কারাগার থেকে বেরিয়ে যাওয়ার চাঞ্চল্যকর তথ্য জেনে গিয়েছিল তারই প্রতিপক্ষ উপজেলা চেয়ারম্যান একরামুল। আর এ কারণেই পথের কাঁটা সরিয়ে দেয়া হয়েছে। জয়নাল হাজারী বলেন, নিজাম হাজারী ছিলেন এক সময়ের চট্টগ্রাম এলাকার ছাত্রশিবিরের দুর্ধর্ষ ক্যাডার নাসির ও সাজ্জাদের ঘনিষ্ঠ সহচর নিজাম। নিজামের ধারণা ছিল এসব চাঞ্চল্যকর তথ্য নিয়ে একমাত্র একরামুলই আদালতে চ্যালেঞ্জ করতে পারে। তাছাড়া টেন্ডারবাজি, ক্ষমতার আধিপত্য, চাঁদার টাকার ভাগবাটোয়ারা এসব নিয়েই মূলত একরামুলকে খুন করা হয়েছে বলে তিনি মনে করেন। তবে জয়নাল হাজারী দ্ব্যর্থহীন কণ্ঠে বলেন, স্থানীয় প্রশাসনকে (এসপি থেকে থানার এসআই) সরিয়ে দিয়ে যদি নিরপেক্ষ তদন্ত করা হয় তাহলে কোনোভাবেই খুনিরা পার পাবে না। কারণ কোনো না কোনো আলামত রেখে গেছে খুনিরা। খুনের সঙ্গে যাদের নাম ইতিমধ্যে বিভিন্নভাবে প্রকাশ্যে এসেছে তারা সবাই নিজাম হাজারীর ক্যাডার। এটা ফেনীর জনগণ দূরের কথা আকাশ বাতাস পর্যন্ত জানে। তিনি বলেন, যদি নিজাম হাজারী এই খুনের সঙ্গে জড়িত না থাকত তাহলে এতদিনে সব খুনিকে গ্রেফতার করা যেত। কিন্তু স্থানীয় প্রশাসন সবকিছু জেনেশুনেও রহস্যজনক কারণে কিলিং মিশনের সঙ্গে জড়িত কাউকে গ্রেফতার করছে না।
জয়নাল হাজারী আরও বলেন, একরামুল হত্যাকাণ্ডের সুষ্ঠু বিচার না হলে এবং খুনিদের গ্রেফতার করতে না পারলে আরও লাশ পড়বে ফেনীতে। ইতিমধ্যে জেলা যুবলীগের যুগ্ম আহবায়ক সাখাওয়াত জীবনের নিরাপত্তা চেয়ে তার কাছে এসেছিলেন। কিছুদিন আগে তিনি সাখাওয়াতকে নিয়ে স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামালের কাছে গিয়েছিলেন। তাকে সব কথা খুলে বলেছেন। কারা কারা খুনের তালিকায় আছেন সেই তথ্যও দেয়া হয়েছে প্রতিমন্ত্রীর কাছে। স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী তাৎক্ষণিকভাবে স্থানীয় পুলিশ সপারকে টেলিফোন করে এসব বিষয়ে কঠোর পদক্ষেপ গ্রহণের কথা বলেছেন। কিন্তু স্থানীয় এসপি কোনো ব্যবস্থা নেননি। এরপর জয়নাল হাজারী সাখাওয়াতকে নিয়ে পুলিশের অতিরিক্ত আইজিপি শহিদুল হক খানের কাছেও গিয়েছিলেন নিজের নিরাপত্তাসহ সাখাওয়াত ও অন্যদের নিরাপত্তার জন্য। আইজিপিও স্থানীয় এসপিকে টেলিফোন করে ব্যবস্থা নেয়ার জন্য বলেছেন। কিন্তু এসপিসহ থানা পুলিশের এসআই, কনস্টেবল পর্যন্ত স্থানীয় এমপি নিজাম হাজারীর চাকরের মতো চলে। এদের মাধ্যমে তাদের জীবন কোনোভাবেই নিরাপদ নন বলেও তিনি মনে করেন। জয়নাল হাজারী বলেন, চট্টগ্রাম এলাকার এক বিচারকও নিজাম হাজারীর কিলিং জোনে আছেন। এছাড়া প্রধানমন্ত্রীর তথ্য উপদেষ্টা ইকবাল সোবহান চৌধুরীও রয়েছেন নিজাম হাজারীর তালিকায়।
উৎসঃ   যুগান্তর


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ