• শনিবার, ২৫ জুন ২০২২, ০৪:৩৬ পূর্বাহ্ন |

বদলে যাচ্ছে বিসিএস পরীক্ষা পদ্ধতি

BCSসিসি নিউজ: বিসিএস পরীক্ষা পদ্ধতিই বদলে যাচ্ছে। ৩৫তম বিসিএস থেকেই দেখা যাবে এই পরিবর্তন। প্রিলিমিনারি, লিখিত ও মৌখিক সব পর্যায়েই ঘটবে এই বদল। এই ধারায় নম্বর যেমন বাড়বে, তেমনি পরীক্ষার বিষয় ও পদ্ধতিতে থাকবে নতুনত্বের ছোঁয়া। এ উদ্দেশ্যে সংশোধন করা হচ্ছে বাংলাদেশ সিভিল সার্ভিস (বয়স, যোগ্যতা ও সরাসরি নিয়োগের জন্য পরীক্ষা) বিধিমালা।
এ ছাড়া বিসিএস পরীক্ষার আবেদন অনলাইনে নেওয়া হলেও ফি বাড়ছে। অনলাইনে ফরম পূরণ করে পরীক্ষায় বসতে হচ্ছে বলে ছাপানো ফরম এখন আর নেই। বর্তমানে বিসিএস পরীক্ষার ফি ৫০০ টাকা। এটা বাড়িয়ে ৭০০ টাকা করা হচ্ছে আগে প্রচলিত ম্যানুয়াল ফরমের দাম পুষিয়ে নেওয়ার জন্য। প্রতিবন্ধী বা অনগ্রসর নাগরিক গোষ্ঠীর ফিও বাড়ছে। তাদের বর্তমান ফি ৫০ টাকা। তা এখন বেড়ে হবে ২৫০ টাকা।
বদলে যাচ্ছে বিসিএস পরীক্ষা পদ্ধতি
লিখিত পরীক্ষার ওপর চাপ কমাতে আগামী পরীক্ষায় প্রিলিমিনারির নম্বর বাড়ছে। বর্তমানে ১০০ নম্বরের প্রিলিমিনারি পাস করে লিখিত পরীক্ষায় বসতে হয়। এই পর্যায়ে অনেকে ঝরেও পড়ে। কিন্তু পাবলিক সার্ভিস কমিশনকে (পিএসসি) সবার জন্যই পরীক্ষার আয়োজন করতে হয়। এতে দীর্ঘ সময় লেগে যায়। একই সঙ্গে লিখিত পরীক্ষায় দুর্নীতির শঙ্কাও বাড়ে।
এসব ঝামেলা এড়াতে প্রিলিমিনারি পরীক্ষার নম্বর ১০০ থেকে বাড়িয়ে ৩০০ করা হচ্ছে। নম্বরের সঙ্গে সঙ্গে সময়ও বেড়ে যাবে। এক ঘণ্টার পরীক্ষা হবে তিন ঘণ্টায়। এ ছাড়া প্রিলিমিনারি পরীক্ষার উত্তরপত্র পুনঃ পরীক্ষণের সুযোগ থাকবে না। উত্তরপত্র কোনো প্রার্থী বা তাঁর প্রতিনিধিকে দেখানো হবে না। মৌখিক পরীক্ষার ন্যূনতম পাস নম্বর ৪০ থেকে বেড়ে ৫০ হচ্ছে।
জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব ড. কামাল আবদুল নাসের চৌধুরী কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘বিসিএস পরীক্ষার পদ্ধতি, ফি, অনলাইনে আবেদনপত্র জমাসহ কয়েকটি বিষয়ে পরিবর্তন আসছে। বিষয়টি শিগগিরই মন্ত্রিসভা বৈঠকে তোলা হবে। সেখানে অনুমোদিত হলে সংসদে যাবে।’
বর্তমানে ৩৩তম বিসিএসের নিয়োগ প্রক্রিয়া প্রায় শেষ পর্যায়ে। ৩৪তম বিসিএসের লিখিত পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হচ্ছে। এতে অংশ নিচ্ছে দুই লাখ ১৭ হাজার পরীক্ষার্থী। এ অবস্থায় বিসিএস-সংশ্লিষ্ট বিধিটি পরিবর্তন করা হচ্ছে। সংশোধন হলে ৩৫তম বিসিএস থেকেই নতুন নিয়ম কার্যকর হবে।
আগে বিসিএসে ম্যানুয়াল পদ্ধতির আবেদন ফরমের দাম ছিল ২০০ টাকা। সেই ফরম পূরণ করে ৫০০ টাকার পরীক্ষা ফিসহ তা পাবলিক সার্ভিস কমিশনে জমা দিতে হতো। ৩২তম বিসিএস পরীক্ষা পর্যন্ত এই ম্যানুয়াল আবেদনপত্র চালু ছিল। ৩৩তম পরীক্ষা থেকে অনলাইনে আবেদনপত্র গ্রহণের সিদ্ধান্ত নেয় কমিশন। ফলে ফরম বিক্রি করার সুযোগ হারায় কমিশন। এতে পিএসসির আয়ও কমে যায় ৩৩ ও ৩৪তম বিসিএস পরীক্ষায়। এ কারণে ৩৫তম বিসিএস থেকে তারা পরীক্ষার ফি বাড়িয়ে ফরমের দামের ক্ষতি পুষিয়ে নিতে চাচ্ছে।
এই সিদ্ধান্তের প্রতিবাদ জানিয়েছেন বিসিএস পরীক্ষার্থীরা। তাঁদের বক্তব্য, ম্যানুয়াল আবেদন ফরমের দাম পরীক্ষার ফি বাড়িয়ে পুষিয়ে নেওয়া উচিত নয়। কারণ ১০০ নম্বরের প্রিলিমিনারির খাতা অপটিক্যাল মার্ক রিডার (ওএমআর) পদ্ধতিতে পরীক্ষা করা হয়। ৩০০ নম্বরের খাতাও ওএমআর পদ্ধতিতেই পরীক্ষা করা হবে। যন্ত্রের সাহায্যে করা হয় বলে পিএসসির বাড়তি খরচও নেই। তবে পাবলিক সার্ভিস কমিশনের যুক্তি হচ্ছে, বিসিএস পরীক্ষায় নিয়োজিত পরীক্ষক, মডারেটর ও প্রশ্ন প্রণেতাদের সম্মানী ভাতা সম্প্রতি বেড়েছে। ভবিষ্যতে আরো ব্যয় বৃদ্ধির সম্ভাবনা রয়েছে। তাই পরীক্ষার যাবতীয় ব্যয় নির্বাহের বিষয়টি বিবেচনায় রেখেই পরীক্ষা ফি ৭০০ টাকা করা দরকার বলে কমিশন মনে করে। তবে সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, ২০০ টাকা বাড়ানো বিষয়ে খোদ কমিশনের কর্মকর্তাদের মধ্যে মতপার্থক্য রয়েছে।
তবে বিসিএস নতুন পদ্ধতির মধ্যে কিছু ভালো পরিবর্তনও খুঁজে পেয়েছেন পরীক্ষার্থীরা। তাঁদের মতে, ৩০০ নম্বরের প্রিলিমিনারি পরীক্ষা হলে ভালো পড়াশোনা না করলে শুরুতেই বেশির ভাগ পরীক্ষার্থী ঝরে যাবে। ফলে লিখিত পরীক্ষায় অংশগ্রহণকারী কমবে। এতে মেধাবীদের সুযোগ বাড়বে। অনেক ক্ষেত্রে পদের তুলনায় ১০ গুণের বেশি লিখিত পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করেন। ফলে নতুন পদ্ধতিতে নির্দিষ্টসংখ্যক পরীক্ষার্থী লিখিত ও ভাইভায় অংশগ্রহণ করতে পারবেন। ৩৩তম বিসিএস পরীক্ষায় দেখা গেছে, পরীক্ষার্থী বেশি হওয়ায় একজন অংশগ্রহণকারী ভাইভাতে মাত্র ৮-১০ মিনিট সময় পেয়েছেন, যা মেধা যাচাইয়ের জন্য পর্যাপ্ত নয়। নতুন পদ্ধতিতে দুর্নীতিও কমবে। পরীক্ষার্থীদের ভালো ও পর্যাপ্ত পড়াশোনা করতে আগ্রহী করে তুলবে। মেধাবীদের জন্য সুযোগ বাড়বে। প্রচুর পড়াশোনা ও দক্ষতা ছাড়া যে বিসিএসে ভালো করা সম্ভব নয়, আগামী বিসিএসে পরীক্ষার্থীরা উপলব্ধি করতে পারবেন।


জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, যে পাঁচটি বিষয়ের ওপর বিসিএস পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়, তাতেও পরিবর্তন আসবে। ইংরেজি, বাংলা, গণিত, বিজ্ঞান ও সাধারণ জ্ঞান ছাড়াও মানসিক দক্ষতাও এতে অন্তর্ভুক্ত হতে পারে। এসব বিভাগকে ৫০ নম্বর হিসেবে বণ্টন করা হতে পারে। অথবা ইংরেজি বিষয়কে আরো বেশি প্রাধান্য দেওয়া হতে পারে। এতে পরীক্ষার্থীদের প্রতিটি বিভাগে আগের চেয়ে অনেক বেশি দক্ষতা দেখাতে হবে। যেমন, আগে ২০ নম্বরের ইংরেজি ছিল। এতে পরীক্ষার্থীরা দক্ষ না হলেও পরীক্ষায় সহজে উতরে যাওয়া সম্ভব হতো। বেসরকারি ব্যাংকগুলোর মতো পরীক্ষার্থীদের দক্ষতা যাচাইয়ে ইংরেজি প্রশ্ন আগের চেয়ে আরো গোছানো হবে। ভালো মানের ইংরেজি জানা না থাকলে প্রশ্নের উত্তর দেওয়া কঠিন হয়ে যেতে পারে। ভাসা ভাসা না হয়ে গণিত ও বিজ্ঞানে আরো গভীর প্রশ্ন হতে পারে। প্রতিটি বিভাগের নম্বর এবং সময় বেশি থাকায় আগের তুলনায় প্রশ্নের আকারও বড় হবে। এতে পরীক্ষার্থীদের গণিতের প্রশ্নগুলোর সমাধান করে উত্তর নির্ণয় করতে হবে। এ ক্ষেত্রে যাঁদের একই সঙ্গে প্রিলিমিনারি ও লিখিত পরীক্ষার প্রস্তুতি থাকবে, তাঁরাই ভালো করতে পারবেন। বাংলা ও ইতিহাসের খুঁটিনাটি জ্ঞান না থাকলে কিছু প্রশ্নের উত্তর দেওয়া সম্ভব, কিন্তু সব প্রশ্নের উত্তর দিতে গেলে প্রচুর জানাশোনা ও গভীর জ্ঞান থাকতে হবে।
১৯৭৫-পরবর্তী বিভিন্ন সামরিক শাসনামলে প্রণীত অধ্যাদেশ বা রুলসকে অবৈধ ঘোষণা করেছেন উচ্চ আদালত। এসব অধ্যাদেশের মধ্যে যেগুলোর কার্যকারিতা রয়েছে সেগুলোকে আইনে পরিণত করা হচ্ছে। এসব আইন প্রণয়ন হচ্ছে বাংলায়। বর্তমানে বিসিএস পরীক্ষা নেওয়া হয় ‘দ্য বাংলাদেশ সিভিল সার্ভিস (এইজ, কোয়ালিফিকেশন অ্যান্ড এক্সামিনেশন ফর ডিরেক্ট রিক্রুটমেন্ট) রুলস ১৯৮২ অনুসারে। এই রুলসকে বাংলায় রূপান্তর করার সময় কিছু গুরুত্বপূর্ণ পরিবর্তন আসবে। কী কী পরিবর্তন আসবে তার একটি খসড়া পাঠিয়েছে পাবলিক সার্ভিস কমিশন। কমিশনের খসড়া চূড়ান্ত করেছে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়। এরই মধ্যে প্রথম দফা পর্যালোচনা হয়েছে প্রশাসনিক উন্নয়নসংক্রান্ত সচিব কমিটির বৈঠকে। খসড়া বিধিটি শিগগিরই মন্ত্রিসভা বৈঠকে উপস্থাপন করা হবে। অনুমোদিত হলে তা সংসদে বিল আকারে তোলা হবে।
উৎসঃ   কালের কণ্ঠ


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ