• শনিবার, ০২ জুলাই ২০২২, ০১:৪০ পূর্বাহ্ন |

আওয়ামী লীগ থেকে বহিষ্কার হননি নূর হোসেন

nurসিসিনিউজ: সিদ্ধিরগঞ্জ থানা ও মহানগর আওয়ামী লীগের সুপারিশ সত্ত্বেও গত ১৪ দিনে আওয়ামী লীগ থেকে বহিষ্কার হননি নূর হোসেন।
আওয়ামী লীগ সূত্রে জানা গেছে নারায়ণগঞ্জের চাঞ্চল্যকর ৭ হত্যার প্রধান আসামি নূর হোসেনকে সিদ্ধিরগঞ্জ থানা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতির পদ থেকে বহিষ্কারের চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে নেওয়া হয়নি।
২৭ এপ্রিল প্যানেল মেয়র নজরুল ইসলাম ও সিনিয়র আইনজীবী চন্দন সরকারসহ সাত জনকে অপহরণের পরদিন ফতুল্লা থানায় নূর হোসেনসহ ছয় জনের নামে মামলা হয়। এরপর নজরুল ইসলামের শ্বশুর শহীদুল ইসলাম ওরফে শহীদ চেয়ারম্যান নূর হোসেনকে সিদ্ধিরগঞ্জ থানা আওয়ামী লীগ থেকে বহিষ্কারের দাবি জানিয়েছিলেন।
এতদিন পরেও নূর হোসেনকে বহিষ্কার না করায় শহীদ চেয়ারম্যান দ্য রিপোর্টের কাছে ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, আমি অত্যন্ত ক্ষুব্ধ। তার মতো জঘন্য মানুষকে দল (আওয়ামী লীগ) থেকে বহিষ্কার করতে এত সময় লাগে?
উল্লেখ্য, অপহৃত সাত জনের লাশ উদ্ধারের ১০ দিন পর গত ১০ মে সিদ্ধিরগঞ্জ থানা আওয়ামী লীগ সংগঠনটির সহ-সভাপতি নূর হোসেন ও সাধারণ সম্পাদক ইয়াসিন মিয়াকে বহিষ্কারের সিদ্ধান্ত নেয়। ওইদিনই মহানগর কমিটি বরাবর তাদের সিদ্ধান্ত জানানোর কথা বলেছেন থানা সভাপতি মুজিবুর রহমান।
তিনি দ্য রিপোর্টকে বলেন, আমরা সিদ্ধান্ত নিয়ে লিখিতভাবে মহানগর কমিটিকে জানিয়েছি। তাদের কাছ থেকে কোনো সিদ্ধান্তের কথা এখনও আমাকে জানানো হয়নি।
জানতে চাইলে নারায়ণগঞ্জ মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এ্র্যাডভোকেট খোকন সাহা দ্য রিপোর্টকে বলেন, আমরা মহানগরের পক্ষ থেকে নূর হোসেনকে অব্যাহতি দিয়েছি। তাকে বহিষ্কারের জন্য গত সতের কি আঠার (মে) তারিখ ডাকযোগে কেন্দ্রে চিঠি দিয়েছি। কেন্দ্র থেকে কোনো চূড়ান্ত সিদ্ধান্তের কথা এখনও জানতে পারিনি। তবে শীঘ্রই ব্যবস্থা নেওয়া হবে।
আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় উপ-দফতর সম্পাদক মৃণাল কান্তি দাসের কাছে এই বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, অসুস্থতার কারণে কয়েকদিনের খবর জানি না। তবে মহানগর থেকে সুপারিশ এসে থাকলে হয়ত ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে বা শিগগিরই ব্যবস্থা নেওয়া হবে।
চাঞ্চল্যকর ঘটনায় সারাদেশ উদ্বিগ্ন অথচ আওয়ামী লীগের মতো দলের পদ থেকে নূর হোসেনকে এতদিনেও বহিষ্কার করা হলো না, অনেকে বিস্ময় প্রকাশ করছেন।–এমন প্রশ্নের জবাবে মৃণাল কান্তি বলেন, বিষয়টা পুরোপুরি জানি না। ব্যবস্থা তো নেওয়া হতেও পারে।
‘আওয়ামী লীগের সিদ্ধান্ত তো মিডিয়ায় জানানো হয়। এমন কোনো খবর তো পাওয়া যায়নি।’-এমন কথার জবাবে মৃণাল কান্তি বলেন, সাংগঠনিক প্রক্রিয়াও একটি বড় বিষয়। সাংগঠনিকভাবেই কাজ করছি আমরা।
অনেক নেতার বির্তকিত কাজে কেন্দ্রীয়ভাবে তাৎক্ষণিক অনেক ব্যবস্থা নেওয়া হয়। চাঞ্চল্যকর সাত হত্যার প্রধান আসামির বিষয়ে এই শৈথিল্যে আওয়ামী লীগের স্থানীয় নেতারা হতাশ হয়েছেন। এ ক্ষেত্রে বিষয়টিকে কীভাবে দেখছেন-এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, এই বিষয়ে চূড়ান্তভাবে কথা বলার মতো নেতা আমি নই। আপনি দরকার মনে করলে আরও উপরের পর্যায়ের কোনো নেতার সঙ্গে কথা বলেন।
এরপর আওয়ামী লীগের দফতর সম্পাদক আবদুস সোবহান গোলাপের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, মহানগরের পাঠানো চিঠি এখনও পাইনি। চিঠি পেলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। দ্য রিপোর্ট২৪


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ