• শনিবার, ২৫ জুন ২০২২, ০৪:১৫ পূর্বাহ্ন |

কুড়িগ্রামে ব্রহ্মপূত্র নদের তীব্র ভাঙ্গনে তিন শতাধিক বাড়িঘর নদীগর্ভে

Kurigram river erosion pic,25-05-2014শাহ্ আলম, কুড়িগ্রাম:  অসময়ে হঠাৎ উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ী ঢলের কারণে ব্রহ্মপুত্র নদের ভাঙ্গন তীব্র আকার ধারণ করেছে। গত এক সপ্তাহে কুড়িগ্রাম সদর ও রাজিবপুর উপজেলায় এই ভাঙ্গনে প্রায় তিন শতাধিক বসতভিটা নদীগর্ভে বিলিন । ভাঙ্গন প্রতিরোধে সংশ্লিষ্ট বিভাগ থেকে এখন পর্যন্ত কোন প্রকল্প গ্রহণ করা হয়নি বলে পানি উন্নয়ন বোর্ড সূত্র জানিয়েছে।
গত এক সপ্তাহ ধরে কুড়িগ্রাম সদরের যাত্রাপুর ইউনিয়নের চর যাত্রাপুর, চর ঘনেশ্যামপুর, গারুহারা, চর পার্বর্তীপুর, ওয়াপদা বাজার, ফারাজী পাড়া এবং রাজিবপুর উপজেলার মোহনগঞ্জ ইউনিয়নের নয়াচর উত্তরপাড়া ও নয়াচর মুন্সি পাড়া গ্রাম দুটি সম্পূর্ণ রুপে বিলীন হবার পথে। গত কয়েক দিনের ভাঙ্গনে প্রায় তিন শতাধিক বসতবাড়িসহ শতাধিক বিঘা আবাদী জমি নদী গর্ভে বিলিন হয়ে গেছে। এই ভাঙ্গন প্রায় ৬ কিলোমিটার এলাকা জুড়ে  চলছে।
কুড়িগ্রাম সদর উপজেলার যাত্রাপুর ইউপি চেয়ারম্যান আলহাজ্ব আব্দুল গফুর জানান, ব্রহ্মপুত্র নদের পানি হঠাৎ বৃদ্ধির ফলে নদী তীরবর্তী এলাকায় ভয়াবহ ভাঙ্গন দেখা দিয়েছে। এই ভাঙ্গন অব্যাহত থাকলে ব্রহ্মপুত্র নদের সাথে মিশে যাবে কুড়িগ্রাম শহরের পাশ দিয়ে বয়ে যাওয়া ধরলা নদী । সেই সাথে নদী গর্ভে বিলিন হয়ে যাবে শতশত একর আবাদি জমি । গত কয়েক দিনের ভাঙ্গন সদর উপজেলার গারুহারা, চর পারবর্তীপুর, ওয়াপদা বাজার, ফারাজী পাড়ার প্রায় ৮০টি পরিবার গৃহহীন হয়ে পড়েছে।
অপরদিকে রাজিবপুর উপজেলা পরিষদ ভাইস চেয়ারম্যান বিলকিস বেগম জানান, অসময়ে পানি বৃদ্ধির ফলে ব্রহ্মপুত্রের ভয়াবহ ভাঙ্গন গত এক সপ্তাহে রাজিবপুর উপজেলার দু’টি গ্রাম নয়াচর উত্তরপাড়া ও নয়াচর মুন্সিপাড়া গ্রাম দুটি সম্পূণরুপে বিলিন হয়ে গেছে। এছাড়াও আংশিক ভাঙ্গনের শিকার হয়েছে আরো ৪টি গ্রাম। এতে আড়াই শতাধিক পরিবারের ঘরবাড়ি হারিয়ে নি:স্ব হয়েছে। তিনি আরও জানান, ব্রহ্মপূত্র যে হারে ভাঙ্গছে তা ঠেকানো না গেলে নয়াচর বাজার, ইউনিয়ন পরিষদ ভবন, নয়াচর ইসলামিয়া মাদ্রাসা, নয়াচর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় এবং বাজারে এক হাজারের ওপর ব্যবসা প্রতিষ্ঠান হুমকীর মধ্যে রয়েছে। বিষয়টি ইউএনও ও কুড়িগ্রাম জেলা প্রশাসককে অবহিত করা হয়েছে।
ব্রহ্মপুত্রের ভাঙ্গন প্রতিরোধে সরকারিভাবে কোনো উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে কুড়িগ্রাম পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো)-এর নির্বাহী প্রকৌশলী আবু তাহের জানান, নয়াচর এলাকায় ব্রহ্মপুত্রের ভাঙ্গন প্রতিরোধে কোনো প্রকল্প নেই।
কুড়িগ্রামের জেলা প্রশাসক এ বি এম আজাদ জানান, হঠাৎ করে পানির প্রবাহ বেড়ে যাওয়ায় ব্রহ্মপুত্র নদের ভাঙ্গন তীব্রতা বেড়েছে। কুড়িগ্রাম সদরের যাত্রাপুর, চিলমারী, রৌমারী ও রাজিবপুর উপজেলার বেশ কয়েকটি এলাকায় ভাঙন চলছে। নদী ভাঙ্গা মানুষের তালিকা তৈরী করা হচ্ছে। ভাঙ্গন প্রতিরোধে উর্দ্ধতন কর্তৃপকে অবহিত করা হয়েছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ