• শনিবার, ২৫ জুন ২০২২, ১০:৩৯ পূর্বাহ্ন |

জলঢাকায় ঘুর্ণায়মান ঋণের চাকায় পিষ্ট হচ্ছে দরিদ্র ঋণ গ্রহিতারা

Takaহাসানুজ্জামান সিদ্দিকী, জলঢাকা: সমাজে স্বচ্ছল ও স্বাবলম্বী হবার জন্য প্রত্যেকেই স্বপ্ন দেখে। সে স্বপ্ন বাস্তবায়নের জন্য দারিদ্রতার কষাঘাত থেকে মুক্তির উদ্দেশ্যে অনেকেই শরনাপন্ন হন বিভিন্ন ব্যাংক অথবা বেসরকারী এনজিও সংস্থার নিকট। কেউ ব্যবসায়িক কেউবা বিভিন্ন খামার নয়তো ুদ্রঋণ নিতে আগ্রহী হন। বাস্তবে দু’চারজন সেসব সংস্থা হতে ঋণ নিয়ে স্বাবলম্বী হলেও সিংহভাগই চলে গেছে হতদরিদ্র  বা অতিদরিদ্রের পর্যায়ে। সংস্থাগুলো তাদের প্রদান করা ঋণের টাকার সুদ যা কাটার তা ঠিকই কেটে নিচ্ছেন। অপরদিকে ঋণ গৃহিতার সঞ্চয়ের সুদের সুবিধা থেকে তারা বঞ্চিত হচ্ছে। হাসিব, আসাদ, আব্দুস সোবহান, জহির উদ্দিন তারা ব্যবসায়িক ভাবে সফল হতে একেকজন একেক সংস্থায় নাম লেখায় ঋণের জন্য। কিন্তু ব্যবসায়িক ভাবে সফলতা তো দূরের কথা ঋণ নিয়ে তারা যে অবস্থানে ছিল তারও অনেক নিচে চলে গেছে। এমনকি কিছু কিছু ঋণ গৃহিতা তাদের শেষ আশ্রয়স্থল ছোট টিনের চালাটিও বিক্রি করে এসব ঋণ পরিশোধ করে নি:স্ব হয়েছে। সূত্রে জানা যায়, নীলফামারীর জলঢাকা উপজেলায় কত এনজিও কাজ করে যাচ্ছে। যার সঠিক পরিসংখ্যান উপজেলা প্রশাসন নিজেও জ্ঞাত নয়। তাই জলঢাকা উপজেলায় কর্মরত এনজিওদের এক পরিসংখ্যানে দেখা গেছে, গত ২৭ আগষ্ট/০৯ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে অত্র এলাকায় এনজিও বিষয়ক কার্যক্রম সম্পর্কে যে তথ্য দেয়া হয়েছে তাতে ২০টি এনজিও উপজেলাটিতে কাজ করছে। এসবের মধ্যে ৯টি সংস্থার ঋণ কার্যক্রমের অনুমোদন আছে। উপজেলার বিভিন্ন এনজিও’র অফিসগুলোতে গত ২০০৯-১০ অর্থবছরে ঋণ সংক্রান্ত তথ্য জানতে চাওয়া হলে জলঢাকা ব্র্যাক এরিয়া ম্যানেজার রায়হানুল হক বলেন, জানুয়ারী-ডিসেম্বর পর্যন্ত আমাদের অর্থবছর ধরা হয়। জলঢাকা এরিয়া অফিসে ১৩ কোটি ২৬ ল টাকা ঋণ বিতরণের ল্যমাত্রা ধরা হয়েছে। আমরা জুন/১০ পর্যন্ত অর্জন করতে পেরেছি ৫ কোটি ৪৬ ল টাকা। আদায়ের ল্যমাত্রা ধরা হয়েছে ৬ কোটি ৩৬ ল টাকা। মুসলিম এইড বাংলাদেশ জলঢাকা ব্রাঞ্চ ম্যানেজার রহমত আলী জানান, গত অর্থবছরে আমাদের ঋণ বিতরণের ল্যমাত্রা ১ কোটি ৮ ল টাকা, অর্জন হয় ১ কোটি ৪ ল ১৫ হাজার টাকা, আদায় হয় ১ কোটি ৬ ল ৮১ হাজার ৮শ ১০ টাকা। ঠেঙ্গামারা মহিলা সবুজসংঘ (টিএমএসএস) জলঢাকা ব্রাঞ্চ ম্যানেজার সফিয়ার রহমান বলেন, আমাদের এখানে ুদ্রঋণ বিতরণ করা হয়। কৃষি বা শস্যের ঋণ এ শাখা হতে দেয়া হয় না। তবে ব্যবসায়ীদের মাঝে ২২ জনকে ব্যবসাঋণ এ শাখা হতে দেয়া হয়েছে। এ শাখা হতে গত অর্থবছরে ঋণ বিতরণের ল্যমাত্রা ধরা হয়েছিল ৬৪ ল ৭২ হাজার টাকা। অর্জন হয়েছিল ৯৭ ল ৪৬ হাজার টাকা, ঋণ আদায়ের ল্যমাত্রা ধরা হয়েছিল ৫৪ ল ২৪ হাজার ৬শ ৬৩ টাকা। আদায় হয় ৫৫ ল ২৭ হাজার টাকা। আশা আঞ্চলিক ব্যবস্থাপক জলঢাকা অঞ্চল উদয় চন্দ্র রায় বলেন, ৪এপ্রিল/৯২ সাল হতে জলঢাকা অঞ্চলে আশার ুদ্রঋণ কর্মসূচী চলছে। এ অঞ্চলে আশার ঋনী সদস্য ৯ হাজার ১শ ৩৩ জন। টাকার পরিমাণ ৬ কোটি ৪৪ ল ৭৫ হাজার ২শ ৪৫ টাকা, খেলাপীর সংখ্যা ১ হাজার ১শ ৯জন, খেলাপীর পরিমাণ ৬৩ ল আট হাজার ৭শ ৮৩ টাকা। আরডিআরএস জলঢাকা এরিয়া ম্যানেজার আব্দুল গণি বলেন, ১৯৯২ সালে অত্র এলাকায় আমাদের ঋণ কর্মসূচী চালু হয়। গত অর্থবছরে ঋণ বিতরণ ল্যমাত্রা ধরা হয়েছিল ৮ কোটি ৬৯ ল টাকা, অর্জিত হয় ৯ কোটি ৬০ ল টাকা। আদায়ের ল্যমাত্রা ৭ কোটি ৮৭ ল ১৩ হাজার টাকা, আদায় হয় ৯ কোটি ১৬ ল ৪৮ হাজার টাকা। ইতিপূর্বে শার্প এনজিও সংস্থার দুজন ম্যানেজার পি.কে.এস.এফ-এর অর্থায়নে পরিচালিত দারিদ্র বিমোচন কর্মসূচীর ২০ ল ২৬ হাজার ও ৯ ল ৮ হাজার টাকা আত্মসাত করে যারা পরবর্তীতে আইনানুগ জটিলতায় চাকুরি হারিয়েছে। বর্তমানে শার্প জলঢাকা এরিয়া ম্যানেজার সোহেল রানা বলেন, জলঢাকা উপজেলায় আমাদের চারটি শাখা অফিস আছে। সেসব হতে শস্য ঋণ ও দারিদ্রদের স্বাবলম্বী করার ল্েয ৫ হাজার হতে ৩৫ হাজার টাকা পর্যন্ত ঋণ বিতরণ করা হয়। গত অর্থবছরে এখানে ঋণ বিতরণের ল্যমাত্রা ছিল ১ কোটি ২০ ল টাকা, অর্জিত হয় ১ কোটি ৭৯ হাজার ১শ ১৯ টাকা। আদায়ের ল্যমাত্রা ৯০ ল টাকা। আদায় হয়েছে ৮৯ ল টাকা। সিএমইএস ব্রাঞ্চ ম্যানেজার কাজিমুদ্দিন বলেন, আমাদের ঋণ বিতরণ ল্যমাত্রা ৬৫ ল টাকা, অর্জন হয় ৪৬ ল ৪৫ হাজার টাকা, আদায় ল্যমাত্রা ৩৫ ল ৯৯ হাজার ৫শ ৪৩ টাকা। আদায় হয় ৩৩ ল ৬৭ হাজার ১শ ৯৭ টাকা। ২০০৩ সাল হতে এ শাখা ঋণ কার্যক্রম শুরু হয়। আমাদের খেলাপীর সংখ্যা ৮শ ৪২ জন। টাকার পরিমাণ ১৬ ল্য ৪৬ হাজার ৬শ ৬০ টাকা। পপি এরিয়া অফিসে এ বিষয়ে তথ্য জানতে চাওয়া হলে অফিসের উপস্থিত থাকা এরিয়া ম্যানেজার পরিচয়ে ব্যক্তি বলেন, আমাদের এখানে যেকোন তথ্য দেওয়া সম্পুর্ণ ভাবে নিষেধ। তাই কোন তথ্য জানতে চাওয়া হলে আমাদের হেড অফিসে চিঠি দিয়ে জানতে হবে। আমরা কোন তথ্যই দিতে পারবো না। অপরদিকে বাংলাদেশ ব্যাংকের অর্থায়নে ঋণ কার্যক্রম পরিচালনাকারী বিচিত্রা সংস্থাটির কার্যালয়ের কোন অস্তিত্বই সারা উপজেলায় খুঁজে পাওয়া যায়নি। উপজেলার সচেতন মহল বলছে, এসব এনজিও সংস্থা স্বাধীনতার পরবর্তী সময় দেশের আবির্ভূত হলেও তারা নিজেরাই ফেলে-ফুঁপে উঠছেন, আর শোষিত হচ্ছে সারাদেশের মধ্য ও দারিদ্র শ্রেণীর মানুষ। তবে দেশের বেকারত্বের অভিশাপ থেকে যুবসমাজের বিরাট একটি অংশ এসব সংস্থায় কাজ করে তাদের কর্মসংস্থান হয়েছে ঠিকই। অপরদিকে সেসব কর্মরত যুবকদের দিন-রাত কাজ করে নিতে কার্পন্য করছে না এনজিও সংস্থাগুলো। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কিছু এনজিও কর্মকর্তা জানায়, সরকারী ছুটি সপ্তাহে দুইদিন থাকলেও তারা সেসবের কিছ্ইু ভোগ করতে পারে না। বরং বন্ধের দিনেও তাদেরকে টিমওয়ার্ক করে বেড়াতে হয়। দূরে থাকা পরিবার-পরিজনের সাথে মাসেও দেখা হওয়ার সুযোগ থাকে না। উর্দ্ধতন কর্মকর্তাদের কঠোর নির্দেশে বাড়তি কাজ চাপিয়ে দেয়া হয়। এমনও নজির আছে; ঋণ আদায়ের কিস্তির টাকার জন্য উর্দ্ধতন কর্তৃপ গভীর রাত পর্যন্ত ঋণ গৃহীতার ঘরের দরজার সামনে দাড়িয়ে রেখে কিস্তির টাকা আদায়ের জন্য নির্দেশ দেন। এ আদেশ অমান্য করলে পরদিন হয়তো সেসব ফিল্ড লেভেলের কর্মচারীদের বদলী নয়তো চাকুরিচ্যুত হওয়ার আশংকা থাকে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ