• শনিবার, ০২ জুলাই ২০২২, ০২:০২ অপরাহ্ন |

পঞ্চগড়ে তরমুজের বাম্পার ফলন

TORMUJ PIC 01ফারহানা আকতার ববি, পঞ্চগড়: মাটির উরর্বতা শক্তি এবং পরিমিত উপাদান পরিপুর্ন থাকার কারনে পঞ্চগড় জেলার বির্স্তীণ অঞ্চলে ব্যাপক আকারে আবাদ হচ্ছে উচ্চ ফলনশীল তরমুজের। উৎপাদিত তরমুজের ভালো দাম এবং প্রচুর চাহিদা থাকার কারনে সাধারন কৃষকের পাশাপাশি ক্ষুদ্র এবং প্রান্তিক চাষিরা ঝুকে পড়েছে তরমুজের আবাদে। হিমালয়ের কোল ঘেষা পঞ্চগড় জেলার মাটিতে পাথর এবং বালির আধিক্য থাকায় সেচ সাশ্রয়ী এবং স্বল্প কালীন ফসল উৎপাদনে তরমুজের বাম্পার আবাদ করে খুশি তরমুজ চাষীরা।
পঞ্চগড় জেলার বিভিন্ন উপজেলায় শত শত একর জমি পড়ে আছে দীর্ঘ দিন ধরে। এসব পতিত জমিতে সেচের অভাবে তেমন কোন ফসল না হবার কারনে বছরের পর বছর পতিত থাকে এসব জমি। সেচ দিয়ে বোরো ,ভূট্টা সহ অন্যান্ন ফসল করলেও উৎপাদন খরচ দিয়ে লাভের মুখ দেখা কঠিন হয়ে পড়ে চাষিদের। তাই উচ্চ ফলনশীল আবাদের দিকে ঝুকে পড়েছে এ জেলার চাষিরা। অল্প পুজি দিয়ে স্বল্প সময়ে লাভজনক ফসল ফলাতে গিয়ে তরমুজ চাষে আগ্রহী হয়ে পড়েছে পঞ্চগড়ের চাষিরা। বিঘা প্রতি ১৫ থেকে ২০ হাজার টাকা খরচ করে লাধিক টাকা আয় করছে এ জেলার চাষিরা।
তরমুজ চাষের মাঝামাঝি সময়ে দেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে ব্যাপারীরা এসে তরমুজ ক্রয়ের জন্য আগাম বায়না করে যায়। ফলে তরমুজ বিক্রির বিষয়ে কৃষকদের বাড়তি কোন সমস্যায় পড়তে হয়না। ব্যাপারীরা জানায়, এই অঞ্চলের তরমুজ অত্যান্ত সুসাদু, আকার এবং কড়া লাল বর্ণের কারনে এর চাহিদা বেশী এবং দামও পাওয়া যায় ভালো।
এদিকে বাড়তি এই আবাদের কারনে এলাকার বেকার মানুষদের কর্মসংস্থানের সৃষ্টি হয়েছে। এলাকার প্রতিটি শ্রমিক দিনে গড়ে আয় করছে ৪ থেকে ৫শ টাকা।
পঞ্চগড় জেলার মাটিতে পর্যাপ্ত পরিমান ফসফরাস সহ মাটির অনান্য উপাদান তরমুজ চাষের জন্য উপযোগী হবার কারনে চাষীরা আগ্রহী হয়ে উঠছে। সেই ক্ষেত্রে তাদের পক্ষ থেকে চাষীদের প্রয়োজনীয় পরামর্শও প্রদান করা হচ্ছে জানালেন পঞ্চগড় সদর উপজেলার কৃষি কর্মকর্তা আব্দুল মতিন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ