• বুধবার, ২৯ জুন ২০২২, ১২:৫৬ অপরাহ্ন |
শিরোনাম :
ইউনূস, হিলারি ও চেরি ব্লেয়ারের ওপর নিষেধাজ্ঞা দেওয়ার দাবি সংসদে মার্কেট-শপিং মলে মাস্ক বাধ্যতামূলক করে প্রজ্ঞাপন খানসামায় র‌্যাবের অভিযান ইয়াবাসহ দুই মাদককারবারী গ্রেপ্তার ডোমার ও ডিমলায় প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ ১০ উদ্যোগ নিয়ে কর্মশালা নীলফামারীতে ৫ সহযোগীসহ কুখ্যাত চোর ফজল গ্রেপ্তার সৈয়দপুরে তথ্যসংগ্রহকারী ও সুপারভাইজারদের দিনব্যাপী প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠিত জয়পুরহাট বিনা খরচে আইনের সেবা পেতে সেমিনার শিক্ষক লাঞ্চনা ও হেনস্তার বিরুদ্ধে সৈয়দপুরে উদীচী শিল্পী গোষ্ঠীর প্রতিবাদ সমাবেশ সৈয়দপুরে শহীদ আমিনুল হকের স্মরণসভা অনুষ্ঠিত ফুলবাড়ীতে বিনামূ‌ল্যে বীজ ও সার বিতরণ

মুখে কুলুপ আ.লীগের

Awamili Flagসিসি নিউজ: দেশের আইন-শৃঙ্খলা চরম অবনতির দিকে যাচ্ছে। কোনোভাবেই বন্ধ হচ্ছে না অপহরণ, খুন ও গুম। অপরাধের স্থান পরিবর্তন হলেও ধরণ পাল্টাচ্ছে না। নারায়ণগঞ্জ থেকে লক্ষ্মীপুর, সাতক্ষীরা ও ফেনীর সব ঘটনাই ঘটছে প্রকাশ্যে। কিন্তু এসব ঘটনা নিয়ে আওয়ামী লীগের নীতিনির্ধারকগণ একেবারেই মুখ খুলতে নারাজ। অপহরণ, খুন ও গুমের ঘটনা নিয়ে প্রশ্ন করা হলে অনেক ক্ষেত্রেই গণমাধ্যমকে এড়িয়ে যান আওয়ামী লীগ নেতারা। সাম্প্রতিক খুন-গুম ও সন্ত্রাস নিয়ে মুখে কুলুপ এঁটে নীতিনির্ধারকরা নিজেদের নিরাপদ রাখতে সচেষ্ট।

আওয়ামী লীগের অনেক নেতাই এখন বিভিন্ন সভা-সেমিনারে অতিথি হতে চাচ্ছেন না। এতে আওয়ামী লীগের সহযোগী ও সমর্থক সংগঠনগুলোকে বিভিন্ন অনুষ্ঠান করতে গিয়ে অতিথি সংকট ভুগতে হচ্ছে। কেন্দ্রীয় নেতাদের অনুষ্ঠানে না পেয়ে অনেক ক্ষেত্রে একই দিন একই অতিথিকে একাধিক অনুষ্ঠানে বক্তব্য দিতে হচ্ছে।

আওয়ামী লীগের সমর্থক ও সহযোগী সংগঠনগুলো দলের নীতিনির্ধারক পর্যায়ের নেতাদের কোনো সভা-সেমিনার ও মানববন্ধনে সহজেই হাজির করতে পারছেন না। আর যারা বিভিন্ন সভা-সেমিনারে অংশ নিচ্ছেন তারাও আবার সমকালীন প্রসঙ্গ এড়িয়ে চলার চেষ্টা করছেন।

আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ও যোগাযোগমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের দলের একজন দাপুটে নেতা। প্রতিদিন মন্ত্রণালয়ের দাফতরিক কাজ করলেও দেশে চলমান অপহরণ, খুন ও গুমসহ আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ে কোনো কথা বলতে চাচ্ছেন না। আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর আরেক প্রভাবশালী সদস্য ও স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিমকেও আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ে কথা বলতে শোনা যাচ্ছে না।

আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য, ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা এবং ত্রাণ মন্ত্রী মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া ঝামেলা এড়াতে আপাতত দেশের বাইরে অবস্থান করছেন। নিজ মেয়ের জামাতা সাবেক র‌্যাব কর্মকর্তা তারেক সাঈদ মাহমুদ-এর বিরুদ্ধে নারায়ণগঞ্জের সাত খুনের সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগ ওঠায় মায়া চৌধুরী বাঘ থেকে বিড়াল বনে গেছেন বলে মনে করছেন তার অনুসারীরা। তবে ঢাকা মহানগরীর এ প্রভাবশালী নেতার বিরুদ্ধে প্রকাশ্যে কেউ মুখ খুলছেন না। কানাঘুষা করছেন আড়ালে আবডালে।

আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ে আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদ সদস্য ও শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু-এর সঙ্গে কথা বলার চেষ্টা করলে তিনি গণমাধ্যমে এ প্রসঙ্গে কথা বলতে রাজি হননি। আওয়ামী লীগের কিছু নেতা এখন তাদের ব্যক্তিগত মোবাইল ফোন বন্ধ রাখছেন। দলটির সভাপতিমণ্ডলীর অপর সদস্য কাজী জাফরউল্লাহকেও তার ব্যক্তিগত মোবাইল ফোনে পাওয়া যায়নি। বন্ধ রয়েছে তার ব্যক্তিগত মোবাইল ফোন।

আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ে আওয়ামী লীগ সরকারের সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ও দলের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য মহীউদ্দিন খান আলমগীর-এর সঙ্গে তার ব্যক্তিগত মোবাইল ফোনে কথা বলার চেষ্টা করা হয়। কিন্তু তাতেও কোনো কাজ হয়নি। মহীউদ্দিন খান আলমগীরের ব্যক্তিগত মোবাইল ফোনটি অন্য কেউ একজন রিসিভ করে এটি রং নম্বর বলে ফোন রেখে দেন।

আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় ও জেলা কমিটির নেতাদের পদ,পদবী ও টেলিফোন ও মোবাইল ফোন নম্বর সম্বলিত টেলিফোন নির্দেশিকায় উল্লেখিত মোবাইল নম্বরে অপর সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ও দলের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য এডভোকেট সাহারা খাতুনের সঙ্গে যোগাযোগ করার চেষ্টা করলেও তা বন্ধ পাওয়া যায়। গত কয়েক দিন ধরে আওয়ামী লীগের নীতিনির্ধাকরদের সঙ্গে কথা বলার চেষ্টা করেই বেশিভাগর ক্ষেত্রেই ব্যর্থ হতে হচ্ছে।

রাজধানীতে আওয়ামী লীগের সহযোগী ও সমর্থক সংগঠনগুলোর বিভিন্ন সভায় অতিথি হচ্ছেন, সত্তর লাখ টাকা ঘুষ নেওয়ার অভিযোগ ওঠায় মন্ত্রিত্ব থেকে পদত্যাগ করা আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত।এছাড়া বিভিন্ন অনুষ্ঠানের আসছেন সাবেক বন ও পরিবেশমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ ও খাদ্যমন্ত্রী এডভোকেট কামরুল ইসলাম। দলীয় ও সরকারি কোনো কাজ না থাকায় সমর্থক সংগঠনগুলোর সভা-সেমিনারে সুরঞ্জিত সেনগুপ্তই এখন মোটামুটি সহজলভ্য।

গত ২৭ এপ্রিল নারায়াণগঞ্জের প্যানেল মেয়রসহ সাতজনকে অপহরণের পর ৩০ এপ্রিল তাদের লাশ উদ্ধার হওয়ায় দেশজুড়ে তোলপাড় সৃষ্টি হয়েছিল। এ ঘটনার রেশ কাটতে না কাটতেই সংঘটিত হয় আরো ভয়াবহ হত্যাকাণ্ড। ফেনীর ফুলগাজী উপজেলার চেয়ারম্যান ও আওয়ামী লীগ নেতা একরামুল হক একরামকে প্রকাশ্যে গুলি করে ও পুড়িয়ে হত্যা করা হয়।

এ ঘটনার নেপথ্যে ফেনী-২ আসনের বর্তমান সংসদ সদস্য নিজামউদ্দিন হাজারীর নামই গণমাধ্যমে ওঠে আসছে। তবে প্রেসব্রিফিং করে র‌্যাব বলছে অভ্যন্তরীণ কোন্দল ও আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করেই এ হত্যাকাণ্ড ঘটেছে।

একরামুল হক হত্যার একদিন পর গত ২২ মে বৃহস্পতিবার লক্ষ্মীপুরে সদর উপজেলার চরশাহী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি আবদুল মান্নান ভূইয়া ও রায়পুর পৌর ২নম্বর ওয়ার্ড সম্পাদক আবদুল মজিদ খুন হন। একই দিন বগুড়ায় যুবলীগকর্মী ফরহাদ হেসেন শিপলুকে গুলি করে হত্যা করা হয়েছে। ঘটনা ঘটছে একটার পর একটা। কোনোভাবেই থামানো যাচ্ছে না এসব হত্যাকাণ্ড।

এদিকে এখনো লাশ উদ্ধার হচ্ছে নারায়ণগঞ্জ থেকে। ২৪ মে শনিবার বেলা ১১টার দিকে নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লার ব্যাংক কলোনি এলাকার হাবিবুর রহমানের ফ্ল্যাট থেকে লাশ উদ্ধার করা হয় তারেক খান টুটুল (৪০) নামে এক শেয়ার ও ঝুট ব্যবসায়ীর । তিনি ঢাকার হাতিরপুল এলাকার আমিনুল এহসান খানের ছেলে বলে জানা গেছে।

তবে এসব ঘটনার পরও আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য নূহ-উল-আলম লেলিন বলছেন, দেশবাসী কোনো আতঙ্কে নেই। যেসব স্থানে অপহরণ, খুন ও গুম হচ্ছে সেখানকার মানুষই আতঙ্কে রয়েছে। এসব ঘটনা বন্ধে সরকার আন্তরিক রয়েছে বলেও মনে করেন আওয়ামী লীগের এ প্রবীণ নেতা।

সূত্র: শীর্ষ নিউজ ডটকম


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ