• সোমবার, ২৭ জুন ২০২২, ১১:১৯ পূর্বাহ্ন |
শিরোনাম :
পদ্মা সেতুর রেলিংয়ের নাট খোলা বায়েজিদ আটক নীলফামারী জেলা শিক্ষা অফিসার শফিকুল ইসলামের শ্বশুড়ের ইন্তেকাল সৈয়দপুর সরকারি বিজ্ঞান কলেজের গ্রন্থাগারের মূল্যবান বইপত্র গোপনে বিক্রি ফেনসিডিলসহ সেচ্ছাসেবক লীগের নেতা গ্রেপ্তার এ সেতু আমাদের অহংকার, আমাদের গর্ব: প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশ-ভারতে রেল যোগাযোগ বন্ধ থাকবে ৮ দিন পদ্মা সেতুর উদ্বোধন বাংলাদেশের জন্য এক গৌরবোজ্জ্বল ঐতিহাসিক দিন: প্রধানমন্ত্রী পদ্মা সেতুর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে যেতে মানতে হবে যেসব নির্দেশনা সৈয়দপুরে বিস্কুট দেয়ার প্রলোভনে শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগ গণমানুষের সমর্থনেই পদ্মা সেতু নির্মাণ সম্ভব হয়েছে: প্রধানমন্ত্রী

রাজশাহীতে ২ লাখ টাকা মুক্তিপণে চিকিৎসক মুক্ত

Rajsahiরাজশাহী : রাজশাহীতে অপহৃত এক দন্ত চিকিৎসককে ২ লাখ টাকা মুক্তিপণের বিনিময়ে ছেড়ে দিয়েছে দুষ্কৃতকারীরা। ওই পরিবারের সদস্যরা জানান, শনিবার দুপুর ১২টার দিকে অপহৃত হন ডা. মিলন কুমার সরকার (৩২)। রাত সাড়ে ৯টার দিকে তিনি ছাড়া পান।

ডা. মিলন পুঠিয়া উপজেলার মিহির কুমার সরকারের ছেলে। তিনি পুঠিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ডেনটিস্ট হিসেবে কর্মরত রয়েছেন। পুঠিয়া বাজারে তার চেম্বার রয়েছে।

এ ঘটনায় অপহৃত মিলনের ভায়রাভাই লিটন কুমার সরকার রাজশাহী মহানগরীর বোয়ালিয়া মডেল থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেছেন।

লিটন কুমার সরকার জানান, মিলন পুঠিয়া থেকে ব্যক্তিগত কাজে উপজেলার বানেশ্বর বাজারে যান। সেখান থেকে তার চেম্বারের ওষুধ কেনার জন্য দুপুর ১২টার দিকে রাজশাহী মহানগরীতে যাওয়ার জন্য একটি মাইক্রোবাসে ওঠেন। এরপর তিনি অপহৃত হন। দুপুর ১টার দিকে মিলন তার মাকে ফোন করে জানান, তাকে অপহরণ করা হয়েছে। ২ লাখ টাকা না দিলে তাকে ছাড়বে না অপহরণকারীরা। এরপর বিষয়টি তিনি (লিটন) জানতে পেরে প্রথমে রাজশাহী র‌্যাব অফিসে যান। সেখান থেকে তাকে জিডি করতে পাঠানো হয় বোয়ালিয়া থানায়। কিন্তু বোয়ালিয়া থানায় জিডি রেকর্ড করতে প্রায় তিন ঘণ্টা থানায় বসে থাকতে হয়। এরপর বিকাল ৫টার দিকে জিডির কপিটি র‌্যাব অফিসে দেওয়া হয়। সন্ধ্যা পর্যন্ত র‌্যাবের তেমন কোনো তৎপরতা তারা দেখেননি।

লিটন বলেন, এরই মধ্যে অপহরণকারীরা দ্রুত টাকা না দিলে মিলনকে হত্যার হুমকি দেয়। সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার থেকে ৮টার মধ্যে অপহরণকারীদের দেওয়া তিনটি বিকাশ নম্বরে তারা দুই লাখ টাকা পাঠান। রাত সোয়া ৯টার দিকে অপরহণকারীরা ফোন করে মিলনকে ছেড়ে দেওয়ার কথা জানায়।

রাত পৌনে ১০টার দিকে মিলন বাড়ি গিয়ে জানান, তাকে বানেশ্বর এলাকায় ছেড়ে দিয়েছে অপহরণকারীরা।
বোয়ালিয়া মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আব্দুস সোবহান বলেন, তাদের কাছে দ্রুত সময়ের মধ্যে মোবাইল ট্র্যাকিংয়ের ব্যবস্থা না থাকায় একটি জিডি রেকর্ড করে র‌্যাবের কাছে পাঠানো হয়।

রাজশাহী র‌্যাবের কলোনি ক্যাম্পের উপ-অধিনায়ক মেজর শফিকুল ইসলাম বলেন, অপহরণকারীদের শনাক্ত করার কোনো সূত্র অপহৃতের নিকটাত্মীয়রা দিতে পারেননি। ফলে জিডির কপি পাওয়ার পরই মোবাইল ট্র্যাকিংয়ের অনুমোদনের জন্য স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয় বলে জানান তিনি।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ