• বৃহস্পতিবার, ৩০ জুন ২০২২, ০৩:৩৭ পূর্বাহ্ন |

সোনালী ব্যাংকের গাফিলতি : এপ্রিলের বেতনভাতা পাননি বেসরকারি শিক্ষক-কর্মচারীরা

Sonali-Bankসিসিনিউজ ডেস্ক: রাজশাহী, দিনাজপুর, সিরাজগঞ্জসহ দেশের বিভিন্ন এলাকার বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষক-কর্মচারীরা সোনালী ব্যাংকের মাধ্যমে বিতরণকৃত এপ্রিল মাসের বেতনভাতার সরকারি অংশ পাননি। শিক্ষকদের মধ্যে এ নিয়ে তীব্র ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। জানা গেছে, সোনালী ব্যাংকের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তার গাফিলতির কারণেই এ অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে। বেসরকারি শিক্ষকদের বেতনভাতার সরকারি অংশ বা এমপিও বিতরণ নিয়ন্ত্রণকারী কর্তৃপক্ষ মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদফতর (মাউশি) এ ব্যাপারে লিখিত অভিযোগসহ সংশ্লিষ্ট ব্যাংক কর্মকর্তার বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেয়ার জন্য অর্থসচিবের কাছে চিঠি দিয়েছে।
মাউশির উপপরিচালক (প্রশাসন) অধ্যাপক সাইফুল ইসলাম সিদ্দিকী জানান,  শিক্ষকদের বেতনভাতার চেক গত ৮ মের মধ্যেই সোনালী ব্যাংক ও অপর তিনটি ব্যাংকে (অগ্রণী, রূপালী, জনতা) কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। সোনালী ব্যাংক ছাড়া অপর ব্যাংকগুলো শিক্ষকদের বেতনের টাকা সময়মতো বিতরণের জন্য সারা দেশের শাখাগুলোতে হস্তান্তর করতে আদেশ দিয়েছে ও শিক্ষকেরা বেতনের অর্থ উত্তোলন করতে সক্ষম হয়েছেন। কিন্তু ২২ মে পর্যন্ত সোনালী ব্যাংক শিক্ষকদের বেতনের চেক আটকে রেখেছে তাদের প্রধান কার্যালয়ে। ফলে রাজশাহী দিনাজপুর সিরাজগঞ্জ ও অন্যান্য এলাকার শিক্ষকেরা এপ্রিল মাসের বেতনভাতা গত ২২ মে পর্যন্ত উত্তোলন করতে পারেননি। এ নিয়ে ওই এলাকার শিক্ষক-কর্মচারীদের মধ্যে তীব্র প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয়েছে। এসব এলাকার শিক্ষকেরা সোনালী ব্যাংকের স্থানীয় শাখায় গিয়ে বারবার ধরনা দিলেও বেতনভাতার অর্থ উত্তোলন করতে ব্যর্থ হন।
অনেক শিক্ষক তাদের বেতনের বিপরীতে চড়া সুদে ঋণ নিতে বাধ্য হয়েছেন বলে শিক্ষক সংগঠনের নেতারা জানান। বেসরকারি শিক্ষকদের দু’টি শীর্ষ সংগঠন জাতীয় শিক্ষক-কর্মচারী ফ্রন্টের প্রধান সমন্বয়কারী অধ্যক্ষ কাজী ফারুক আহমেদ ও শিক্ষক-কর্মচারী ঐক্যজোটের চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ মো: সেলিম ভূঁইয়া বলেন, গুটিকয়েক ব্যাংক কর্মকর্তার কারণে প্রতি মাসেই শিক্ষকদের বেতনভাতা পেতে বিলম্ব ঘটছে। এটি অনাকাক্সিত। এ ব্যাপারে দায়ীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া জরুরি। সিরাজগঞ্জের শিক্ষক নেতা আবুল হাশিম তালুকদার জানান, সিরাজগঞ্জের শিক্ষকেরা কখনোই সময়মতো বেতনভাতা পান না ব্যাংকের কারণে।
মাউশির উপপরিচালক জানান, এ ব্যাপারে সোনালী ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালকের কাছেও অভিযোগ জানানো হয়েছে। সোনালী ব্যাংকের মাধ্যমে বেতনভাতা উত্তোলনকারী শিক্ষকেরা রোববার বেতনভাতা উত্তোলন করতে পারবেন।
প্রবীণ শিক্ষক নেতা অধ্যক্ষ কাজী ফারুক আহমেদ এক বিবৃতিতে বলেন, দরিদ্র শিক্ষক-কর্মচারীরা প্রধানত সরকারি বেতনভাতার ওপর নির্ভরশীল। কিন্তু মে মাসের তৃতীয় সপ্তাহ পার হয়ে গেলেও এখনো আগের মাসের বেতনভাতা তাদের হাতে পৌঁছায়নি। এর ফলে শিক্ষকেরা ক্ষুব্ধ হচ্ছেন। তিনি দায়ী ব্যাংক কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেয়ার জন্য শিক্ষামন্ত্রীর কাছে দাবি জানান। নয়াদিগন্ত


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ