• সোমবার, ২৭ জুন ২০২২, ০৫:১৬ পূর্বাহ্ন |
শিরোনাম :
পদ্মা সেতুর রেলিংয়ের নাট খোলা বায়েজিদ আটক নীলফামারী জেলা শিক্ষা অফিসার শফিকুল ইসলামের শ্বশুড়ের ইন্তেকাল সৈয়দপুর সরকারি বিজ্ঞান কলেজের গ্রন্থাগারের মূল্যবান বইপত্র গোপনে বিক্রি ফেনসিডিলসহ সেচ্ছাসেবক লীগের নেতা গ্রেপ্তার এ সেতু আমাদের অহংকার, আমাদের গর্ব: প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশ-ভারতে রেল যোগাযোগ বন্ধ থাকবে ৮ দিন পদ্মা সেতুর উদ্বোধন বাংলাদেশের জন্য এক গৌরবোজ্জ্বল ঐতিহাসিক দিন: প্রধানমন্ত্রী পদ্মা সেতুর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে যেতে মানতে হবে যেসব নির্দেশনা সৈয়দপুরে বিস্কুট দেয়ার প্রলোভনে শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগ গণমানুষের সমর্থনেই পদ্মা সেতু নির্মাণ সম্ভব হয়েছে: প্রধানমন্ত্রী

কোন কিছু না করার বিপদ

Minarমিনার রশীদ: আলবার্ট আইনস্টাইন বলেছেন, The world is a dangerous place to live; not because of the people who are evil, but because of the people who don’t do anything about it.

অর্থাৎ ” যে লোক গুলি খারাপ কাজ করছে তাদের কারনে এই পৃথিবীটা বিপজ্জনক জায়গা হচ্ছে তা নয় বরং যারা এই সব খারাপ কাজ দেখার পরেও এই ব্যাপারে কোন কিছুই করছে না তাদের জন্যেই এ রকম হচ্ছে। ”
এই উক্তিটি বর্তমান বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে কতটুকু সত্য তা আর বলার অপেক্ষা রােখ না। আমাদের চারপাশে যে অন্যায়,অবিচার,জুলুম,নির্যাতন হচ্ছে তা দেখেও আমরা নীরব থাকছি । আমাদের এই নীরবতাও যে একটা মারাত্মক অপরাধ হচ্ছে সেই বোধটুকুও আমরা অনেকেই হারিয়ে ফেলেছি।
এ রকম পরিস্থিতিতে ঐশ্বরিক শাস্তি বা খোদায়ী গজব নেমে অাসে বলে ধর্মগ্রন্থ গুলিতেও বার বার সতর্ক করা হয়েছে। প্রকৃতিবিদরা এর ব্যাখ্যায় বলেন, প্রকৃতির ঐক্যতানে বিশৃঙখলা সৃষ্টি করলে প্রকৃতির প্রতিশোধ অনিবার্য হয়ে পড়ে ।
একজন অত্যাচারিতের বা মজলুমের একটি কান্না প্রকৃতির সেই হারমোনি নষ্ট করে দেয় বা স্রষ্টার ধৈের্য্যর বাঁধটি ভেঙে ফেলে। তখন অপরাধী এবং অপরাধ সহ্যকারী সকল মানবগোষ্ঠীর উপর খোদায়ী গজব বা প্রকৃতির প্রতিশোধ নেমে আসে। কাজেই আধ্যাত্মিক কিংবা প্রাকৃতিক কোন বিবেচনাতেই অত্যাচার- অনাচার- অবিচারের বিরুদ্ধে নীরব থাকার সুযোগ নেই।
জাতীয় জীবনের দুঃসময়ে উদ্ধারকারী হিসাবে যাদের কথা আমাদের প্রথম স্মরণ হয় তাদের অবস্থাও হয়ে গেছে গল্পের সেই সাপের মতো। গুরুর কথামত সাপটি অত্যন্ত ভদ্র হয়ে পড়ে। দুষ্টু ছেলেরা ভদ্র সাপকে রশির মত পেচিয়ে কোমড় ভেঙে দেয়। সাপ গিয়ে গুরুজীর কাছে নালিশ করে, ‘গুরুজী, আপনার কথামত ভালো সাজতে গিয়েই দুষ্ট ছেলেরা আমার কোমড়টি ভেঙে দিয়েছে। ‘ তখন গুরুজী বলে, ‘বেকুব, আমি তোকে কামড়াতে নিষেধ করেছিলাম কিন্তু ফোস করতে তো নিষেধ করিনি। ‘
আমরা সবাই এখন ‘ যে সাপের বিষ নেই দাত নেই করে নাকো ফোস ফাস.. হয়ে পড়েছি তখন আমাদেরকে সহায়তার জন্যে কিছু প্রাকৃতিক ঘটনা ঘটে যাচ্ছে। হাশরের মাঠের মত কিছু নির্যাতকদের আমলনামা স্পষ্ট হয়ে পড়ছে। তাদের নিজেদের হাত, নিজেদের পা, নিজেদের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দেওয়া শুরু করেছে।
অনেকটা ঐশ্বরিক হস্তক্ষেপে ফাস হওয়া আমলনামায় দেখা গেলো যারা খুন করেছে তারাই এই খুনের বিরুদ্ধে মানব বন্ধন করেছে, তারাই চেহলাম খেয়েছে , তারাই বিরোধী দলের নেতােক অভিযুক্ত করে তার বাসায় ভাঙচুর করেছে, তারাই বিরোধী দলের নেতার বিরুদ্ধে মামলা দিতে ভিক্টিমের আত্মীয় স্বজনকে বাধ্য করেছে।

এদিকে সাগর-রুনী হত্যাকান্ডের পর খুনীদের ধরতে ৪৮ ঘন্টার আলটিমেটাম দিয়ে এদেশের ইতিহাসে বিশেষ জায়গা করে নেয়া প্রাক্তন মন্ত্রী সাহারা খাতুন বলেছেন, নুর হোসেনকে বিএনপি চক্রান্ত করে আওয়ামীলীগে ঢুকিয়ে দিয়েছে। অর্থাৎ কাজ করার সময় লীগ, ধরা খেলেই বিরোধী নেতাদের খালা বা মামা শ্বশুর । এই ধরনের চালাকি করেই তারা আজ এই দেশটিকে নরক বানিয়ে ফেলেছে।
সাহারা খাতুনের তত্ত্বানুসারে সহজেই সিদ্ধান্তে আসা যায় যে এইচ টি ইমামের মগজেও চক্রান্ত করে কিছু বিরোধী দলের কোষ ঢুকিয়ে দেয়া হয়েছে । যার কারনে তিনি নুর হোসেনকে আওয়ামী লীগের ত্যাগী নেতা বলে সার্টিফিকেট দিয়েছেন। ইন্টারপোলের লিস্ট থেকে নুর হোসেনের নাম কাটিয়েছেন। এই সব খবর তথ্য প্রমাণ সহ বেরিয়ে এসেছে। কিন্তু তারপরেও এইচ টি ইমাম বা তাঁর নিয়োগদাতার এখনও কিছু হচ্ছে না । এখনও এইচ টি ইমাম তার প্রধানমন্ত্রী এবং দেশবাসীকে অনবরত পরামর্শ বিলি করে চলছেন । কাজেই এই ধরনের doing nothing অবস্থা সমাজটিকে কোন দিকে নিয়ে যাচ্ছে সেই হুশ আমাদের নেই।
এখন নুর হোসেন আর নিজাম হাজারীকে নিয়ে লেফটরাইট করা হচ্ছে। কিন্তু
আমাদের মূল জায়গাটিতে হাত দেয়া দরকার । তা না হলে কয়েকজন ওসমানী বা হাজারীকে পাকড়াও করলে কিচছু হবে না। এদের উৎপাদনের ফ্যাক্টরিটি বা ফ্যাক্টরিগুলি আগে বন্ধ করতে হবে। আমরা প্রডাক্ট নিয়ে অনেক কথা বললেও ফ্যাক্টরি গুলি নিয়ে কোন কথা বলি না।
অনেকে প্রশ্ন করেন , সমাধানটা বুঝলাম কিন্তু বিড়ালের গলায় এই ঘন্টাটি বাঁধবে কে ?
বিড়ালের গলায় এই ঘন্টাটি বাঁধতে পারে জনগণের সচেতনতা। সুষ্ঠু এবং নিরপেক্ষ ব্যবস্থাপনায় আগামী ৫/৬ টি সাধারন নির্বাচন হলেই ধীরে ধীরে এই গড ফাদার বা গড মাদারগণ নুর হোসেনের মত জনগণকে ভাই বলে ডাকা শুরু করে একই বাক্যে বাপ ডেকে শেষ করবে । কারন কোন গড ফাদারই রাষ্ট্রের চেয়ে শক্তিসালী হতে পারে না।
এটাই জনগণের শক্তি, এটাই গণতন্ত্রের শক্তি। এই শক্তিটুকু আমরা নষ্ট করে ফেলেছি বিভিন্ন মতলববাজ গোষ্ঠী বা দলের কব্জায় পড়ে। যে কোন কিছুর বিনিময়ে হোক না কেন জনগণের কাছ থেকে ছুটে যাওয়া এই শক্তিকে পুনরুদ্ধার করতে হবে। এই শক্তির কারনেই উন্নত বিশ্বে একজন সাধারন পুলিশ সদস্য প্রাইম মিনিস্টারকে ট্রাফিক রুল ভঙ্গের জন্যে জরিমানা করতে পারে।
আমাদের এই মরণ ঘুম যদি এখনও না ভাঙে তবে এই সমাজটি নষ্টদের অধিকারে চলে যাবে। সমাজটি একবার নষ্টদের কব্জায় চলে গেলে সেখান থেকে তাকে আমরা আর কোনদিন উদ্ধার করতে পারবো না। এই অবস্থায় সমাজের কোন মানুষই আর নিরাপদ থাকতে পারবে না।
খেয়াল করুন, নজরুল ও একরামুল শাসক দলের শক্তিসালী নেতা হওয়ার পরেও নিজেদেরকে রক্ষা করতে পারেন নি। কারন এই ধরনের ফ্রাংকেনস্টাইন যা আমরা সকলে মিলে সৃষ্টি করেছি তা কারো জন্যেই নিরাপদ নয়।
কাজেই সকল ক্ষোভ-হতাশা আর ভয় ঝেড়ে ফেলে আইনস্টাইনের এই উক্তিটি স্মরণ করে এবং কিছু করার ( To do something) মানসে আমাদের সকলকে এগিয়ে আসা উচিত।

ফেসবুক


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ