• শনিবার, ০২ জুলাই ২০২২, ০১:৪৬ পূর্বাহ্ন |

খানসামায় দেড় লাখ লোকের জন্য একজন চিকিৎসক

Khansama news-2 (hospital) 25.05.14খানসামা (দিনাজপুর) প্রতিনিধি: দিনাজপুরের খানসামার পাকেরহাটে অবস্থিত ৩১ শয্যা বিশিষ্ট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সটি নানা অনিয়নম দূর্নীতির করণে দীর্ঘ দিন ধরে অসুস্থ হয়ে রয়েছে। স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সটিতে চিকিৎসকের ১২ পদ থাকেল চিকিৎসক রয়েছে মাত্র একজন। তাই নার্স আর আয়া দিয়ে কোন রকমে চলছে রোগীর জ্বর দেখা ও সামান্য চিকিৎসা সেবা। এছাড়াও রেফার্ডযোগ্য রোগীদের জরুরী সেবা দিতে অন্যত্র নিয়ে যেতে মন্ত্রীর দেয়া দুটি এ্যাম্বুলেন্স দীর্ঘ দিন ধরে অকেজো হয়ে রয়েছে। অপরদিকে চড়া দামে ভাড়া এ্যাম্বুলেন্সে রোগী আনা-নেয়া করতে নানা ভোগান্তির শিকার হচ্ছে সাধারণ মানুষ। ফলে, স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সটির বেহাল দশা দেখে উপজেলার প্রায় ১ লাখ ৭২ হাজার লোক হতাশায় ভুগছেন এবং এতে চিকিৎসা সেবা নিতে আগ্রা হারিয়ে ফেলছে। এ অবস্থায় ভাবকী ইউনিয়ন স্বাস্থ্য কেন্দ্রে একজনকে রেখে সেখান থেকে উপ-সহকারী কমিউনিটি মেডিকেল অফিসার আহশাফুল আলম মুকুলকে ডেপুটেশনে এনে জোড়াতালি দিয়ে চিকিৎসা সেবা দেয়া হচ্ছে।
সরেজমি দেখা গেছে, স্বাস্থ্য কেন্দ্রটি ৩১ শয্যার হলেও শয্যা রয়েছে মাত্র ২০-২৫টি। যার মধ্যে রোগী রয়েছে ১৬-১৮ জন। এখানে চিকিৎসক স্বল্পতা, দ্রুত সেবার কাজে ব্যবহৃত এ্যাম্বুলেন্স নষ্ট হয়ে থাকা এবং রোগীদেও ভোগান্তি হলেও দেখার কেউ না থাকায় দায়সারা ভাবে চলা স্বাস্থ্য কেন্দ্রটির দ্বিতীয় তলার ভিতরে এবং ঢোকার দরজার ডান পার্শ্বের সানসাইটে খাদ্যের উচ্ছিষ্ট, সেবিকা কক্ষের সামনে দুর্গন্ধযুক্ত ময়লা কাপড় ইনজেশনের শিশি এবং বারান্দার পূর্বপাশে স্যালাইনের বোতল আর ইনজেকশনের শিশি ছাড়ানো ছিটানো রয়েছে। এতে করে চিকিৎসা নিতে আসা রোগীরা অপরিচ্ছন্ন পরিবেশে বেশি করে অসুস্থ হয়ে পড়ছে।
কর্মরত স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. মোতাছিম বিল্লাহ আজাদ বয়সের ভাড়ে এবং বর্ধিত সময়ে দায়িত্বপালন করায় সকাল থেকে বিকাল পর্যন্ত বার বার হাসপাতালের উপর তলায় উঠে রোগী দেখতে কঠিন প্রেসানিতে পড়েন বলে তিনি জানান। ডা. আজাদ আরও জানান, এখানে আসা চিকিৎসকরা বেশী দিন থাকতে চান না এবং গত কয়েক দিন আগেও ডা. এ এস এম নাজমুল আলম বদলি হয়ে গেছেন। তবে হাসপাতালে আর কী কী সমস্যা রয়েছে জানতে চাইলে তিনি বলতে রাজি হননি শুধু চিকিৎসক সংকটর বিষয় লিখতে বলে ভীষণ ব্যস্ততা দেখান।
কথা হয়, স্বাস্থ্য সেবা নিতে আসা নেউলা গ্রামের সইদার রহমান, আঙ্গারপাড়ার তমিজ উদ্দিন এবং ভান্ডারদহ গ্রামের সামিউল ইসলামের স্ত্রী শিল্পী আক্তারের সাথে। তারা বলেন, ডাক্তার নাই, নার্সরা দিনে একবার দুবার আসে এবং মাঝে মাঝে একজন আয়া জ্বর মাপে।
নাম প্রকাশ না করার শর্তে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কয়েক কর্মচারী বলেন, এখানে চিকিৎসক না থাকার একমাত্র কারণ স্বাস্থ্য কর্মকর্তা নিজেই। তিনি সবার সাথে অসৌজন্য আচরণ করেন। সে কারণেই হাসপাতালটি আজ ফাঁকা। বর্তমানে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সটিতে চিকিৎসক ও রোগীর কমে গেলেও দৈনিক খরচের ভাউচার যথারীতি হয়ে চলছে। এটি উপজেলা প্রশাসন এরিয়া থেকে ৯ কিলোমিটার দূরে থাকায় বেপরোয়া ওই কর্মকর্তা নানা অনিয়ম করে আসছেন বলেও তারা জানান।
অপর একটি সূত্র জানায়, স্বাস্থ্য কর্মকর্তা মোতাছিম বিল্লাহ আজাদ খানসামায় যোগদানের পর থেকে কন্টিজেন্সি বিল, মাতৃ ভাউচার ও আনুসাঙ্গিক বিল ভুয়া ভাউচারের মাধ্যমে নানা কৌশলে আত্মসাৎ করে আসছেন। এছাড়াও গত জানুয়ারি অনুষ্ঠিত হাম-রুবেলার টিকাদান ক্যাম্পেইন কর্মসূচীতে সাংবাদিকদের সাথে মতামতের বিষয় উল্লেখ থাকলেও তিনি ওই কর্মসূচিতে কোন সাংবাদিককে অবগত করেননি। তবে এ সম্পির্কিত ভুয়া বিল ভাউচার করে বরাদ্দের সমূদয় অর্থ ও প্রচারণা খরচ আত্মসাৎ করেন বলে অভিযোগ রয়েছে।
স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের প্রধান সহকারি কাম হিসাব রক্ষক বিরেন চন্দ্র দেবনাথের সাথে কথা হলে তিনি বলেন, হাম-রুবেলা টিকার বরাদ্দের টাকা কি করা হয়েছে আমি কিছুই জানিনা। স্বাস্থ্য কর্মকর্তা আমাকে কিছুই বলেননি। তবে শুনেছি এসব টাকা তিনি নিজেই ব্যাংক থেকে তুলে খরচ করেছেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ