• সোমবার, ২৭ জুন ২০২২, ০৮:৩৭ পূর্বাহ্ন |
শিরোনাম :
পদ্মা সেতুর রেলিংয়ের নাট খোলা বায়েজিদ আটক নীলফামারী জেলা শিক্ষা অফিসার শফিকুল ইসলামের শ্বশুড়ের ইন্তেকাল সৈয়দপুর সরকারি বিজ্ঞান কলেজের গ্রন্থাগারের মূল্যবান বইপত্র গোপনে বিক্রি ফেনসিডিলসহ সেচ্ছাসেবক লীগের নেতা গ্রেপ্তার এ সেতু আমাদের অহংকার, আমাদের গর্ব: প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশ-ভারতে রেল যোগাযোগ বন্ধ থাকবে ৮ দিন পদ্মা সেতুর উদ্বোধন বাংলাদেশের জন্য এক গৌরবোজ্জ্বল ঐতিহাসিক দিন: প্রধানমন্ত্রী পদ্মা সেতুর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে যেতে মানতে হবে যেসব নির্দেশনা সৈয়দপুরে বিস্কুট দেয়ার প্রলোভনে শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগ গণমানুষের সমর্থনেই পদ্মা সেতু নির্মাণ সম্ভব হয়েছে: প্রধানমন্ত্রী

জিপিএ’র ভিত্তিতে একাদশ শ্রেণীতে ভর্তি শুরু কাল

Vortiসিসিনিউজ ডেস্ক: মাত্র ১০ দিন আগে যেসব শিক্ষার্থী ভালো পাস করার আনন্দে ছিল আত্মহারা, তাদের কপালে এখন দুশ্চিন্তার ভাঁজ। কোথায় ভর্তি হবে? ভালো কলেজে সুযোগ হবে কি? কত জনের সাথে তাকে একটি আসনের জন্য ভর্তির প্রতিযোগিতায় নামতে হবে? এরূপ বিভিন্ন প্রশ্নই এখন তাদের ঘিরে ধরছে। হাহাকার হবে ভালো কলেজ ঘিরে জিপিএ ৫ এবং গোল্ডেন জিপিএ ৫ শিক্ষার্থীদের। তাদের সবাই ভালো ও মানসম্পন্ন কলেজে ভর্তি হতে পারবে না। আসন সঙ্কটের কারণে মানহীন কলেজে যেতে বাধ্য হতে হবে।
আগামীকাল থেকে দেশের সরকারি-বেসরকারি কলেজে ভর্তি কার্যক্রম শুরু হচ্ছে। এবার এসএসসিতে জিপিএ ৫ পেয়েছে আঠটি সাধারণ বোর্ডে এক লাখ ২২ হাজার ৩১৩ জন এবং মাদরাসায় ১৪ হাজার ১৩ জন। তারা সবাই দেশের ভালো কলেজ বা মাদরাসায় ভর্তির সুযোগ চাইবে। কিন্তু ভালো ও মানসম্পন্ন কলেজ বা মাদরাসায় তাদের সবার সুযোগ হবে না। তাদের জন্য (১ লাখ ৩৬ হাজার ৩২৬ জন জিপিএ ৫ শিক্ষার্থীর জন্য) রাজধানী ও দেশের সব জেলা শহরে অবস্থিত হাতেগোনা ভালো কলেজে ভর্তির সুযোগ নেই। তাদের মধ্যে মাত্র ২০ হাজারের কিছু বেশি সৌভাগ্যবান মানসম্পন্ন কলেজে ভর্তি হতে পারবে। অবশিষ্ট এক লাখ ১০ হাজারের বেশি শিক্ষার্থীকে মানহীন কলেজে ভর্তি হয়ে পরবর্তী শিক্ষাকার্যক্রম অব্যাহত রাখতে হবে। এ ছাড়া এবারের এসএসসিতে উত্তীর্ণ অবশিষ্ট ১১ লাখ ৬৭ হাজার পাঁচজন শিক্ষার্থীকে যেনতেন কলেজে ভর্তির সুযোগ নিতে হবে।
উল্লেখ্য, গত ১৭ মে দেশের ১০ শিক্ষা বোর্ডে ২০১৪ শিক্ষাবর্ষে মাধ্যমিক স্কুল সার্টিফিকেট (এসএসসি) ও সমমানের পরীক্ষায় ফল প্রকাশিত হয়েছে। মোট ১৪ লাখ ২৬ হাজার ৯২৩ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে ১৩ লাখ তিন হাজার ৩৩১ জন উত্তীর্ণ হয়েছে। তাদের প্রায় সবাই কলেজে ভর্তি জন্য আবেদন করবে বলে ধারণা করা হচ্ছে। এ ছাড়া ১০ শিক্ষা বোর্ডের পাশাপাশি উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে ২০১২-২০১৪ সালে এসএসসি উত্তীর্ণ শিক্ষার্থীরাও এবার একাদশ শ্রেণীতে ভর্তির সুযোগ পাবে।
ভালো ও মানসম্পন্ন কলেজে আসন সঙ্কটের কথা স্বীকার করে শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ দাবি করেন, উত্তীর্ণ সব শিক্ষার্থীর ভর্তিযোগ্য কলেজ ও আসন রয়েছে। তবে, রাজধানীসহ সারা দেশেই মানসম্পন্ন কলেজে মেধাবীদের জন্য আসন সঙ্কট রয়েছে। মন্ত্রণালয় সূত্রে বলা হয়েছে, দেশে সরকারি-বেসরকারি কলেজগুলোতে ভর্তিযোগ্য আসন হচ্ছে ১২ লাখের বেশি। সরকারি-বেসরকারি আলিয়া মাদরাসায় দাখিলে ভর্তিযোগ্য আসন হচ্ছে সোয়া দুই লাখ আর কারিগরিতে ভর্তির জন্য আসন রয়েছে এক লাখ ২৭ হাজারের বেশি।
শিক্ষা মন্ত্রণালয় এবং মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদফতর (মাউশি) সূত্রে জানা গেছে, রাজধানীতে ভালো ও মানসম্পন্ন কলেজেগুলোতে এ বছর একটি আসনও বৃদ্ধি করা হয়নি। ভালো বলে বিবেচিত কলেজগুলোতে এবারের ভর্তিযোগ্য আসন সংখ্যা হচ্ছে প্রায় ২০ হাজার। এগুলোর মধ্যে সব জিপিএ ৫ শিক্ষার্থীদের প্রথম পছন্দ হচ্ছে ছেলেদের জন্য নটর ডেম কলেজ, সিটি কলেজ ও রাজউক উত্তরা মডেল কলেজ। সরকারি কলেজগুলোর মধ্যে ঢাকা কলেজ শীর্ষে। মেয়েদের প্রথম পছন্দ হচ্ছে ভিকারুন নিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজে, আইডিয়াল স্কুল অ্যান্ড কলেজে এবং হলিক্রস কলেজে। এ ছাড়া জেলা শহরে অবস্থিত কলেজগুলোর মধ্যে সরকারি কলেজগুলোই প্রথম পছন্দ থাকবে। কিন্তু কেউ-ই এবার একটি আসনও বাড়ায়নি।
ভালো কলেজের আসন সংখ্যার একটি পরিসংখ্যান পাওয়া গেছে মাউশি সূত্রে তাতে দেখা গেছে, ঢাকার কলেজগুলোর মধ্যে ভালোমানের কলেজ হিসেবে পরিচিত নটর ডেম কলেজে দুই হাজার ১৪০টি, ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজে ৯৯০টি, আইডিয়াল স্কুল অ্যান্ড কলেজে ৬৫০টি, ঢাকা কলেজে এক হাজার ১০০টি, হলিক্রস কলেজে ৪৯০টি, ঢাকা কমার্স কলেজে ৯০০টি, সরকারি বিজ্ঞান কলেজে ৪৭৫টি, বদরুন্নেছা কলেজে ৮২০টি, ঢাকা সিটি কলেজে এক হাজার ১৮০টি, রাজউক উত্তরা মডেল কলেজে ৪৫৫টি আসন আছে। এ ছাড়া লালমাটিয়া গার্লস কলেজে ৬১৫টি, মতিঝিল মডেল হাইস্কুল অ্যান্ড কলেজে ৪৩২টি, ঢাকা বিজ্ঞান কলেজে ৩৭০টি, বিএএফ শাহীন কলেজে ৬০৬টি, তেজগাঁও কলেজে ৪০২টি, শেখ বোরহানউদ্দিন কলেজে ১৯৯টি, বীরশ্রেষ্ঠ নূর মোহাম্মদ পাবলিক স্কুল অ্যান্ড কলেজে ৫৬৫টি, অগ্রণী স্কুল অ্যান্ড কলেজে ১৯৮টি, সরকারি গার্হস্থ্য অর্থনীতি কলেজে ১৪০টি, নবকুমার ইনস্টিটিউশনে ১০০টি, এসওএস হারম্যান মেইনার স্কুল অ্যান্ড কলেজে ১০৩টি, সরকারি বাংলা কলেজে ৯৭২টি, মোহাম্মদপুর কেন্দীয় ইউনিভার্সিটি কলেজে ২০৭টি, মোহাম্মদপুর প্রিপারেটরি গার্লস স্কুল অ্যান্ড কলেজে ২০৯টি, সেন্ট যোসেফ স্কুল অ্যান্ড কলেজে ৩৪টি, নিউ মডেল ডিগ্রি কলেজে ২১৪টি, ইঞ্জিনিয়ারিং ইউনিভার্সিটি স্কুল অ্যান্ড কলেজে ৬০টি, সিদ্ধেশ্বরী কলেজে ৬৭১টি, সিদ্ধেশ্বরী গার্লস কলেজে ৬৫১টি, শেরেবাংলা বালিকা স্কুল অ্যান্ড কলেজে ৩০৯টি, সরকারি সোহরাওয়ার্দী কলেজে এক হাজার ৪৮৫টি, ঢাকা মহানগর মহিলা কলেজে ৫১৪টি আসন রয়েছে।
ভর্তিতে কোনো পরীক্ষা নয় : জিপিএ-র ভিত্তিতে ভর্তি
বিগত কয়েক বছরের মতো এবারো মাধ্যমিকের ফলাফলের ভিত্তিতেই একাদশ শ্রেণীতে শিক্ষার্থী ভর্তি করাতে হবে। এবারো জিপিএ’র (গ্রেড পয়েন্ট এভারেজ) ভিত্তিতে কলেজে ভর্তির সুযোগ পাবে শিক্ষার্থীরা। ভর্তির জন্য কোনো ধরনের পরীক্ষা নেয়া যাবে না। একাদশ শ্রেণীতে ভর্তির জন্য ২৮ মে থেকে ১২ জুন পর্যন্ত টেলিটক মোবাইলে এসএমএসে আবেদন করতে হবে। তবে সনাতন পদ্ধতিতেও আবেদনপত্র জমা দেয়া যাবে। পুনঃনিরীক্ষণে যাদের ফল পরিবর্তন হবে তারা ১৬ জুন পর্যন্ত আবেদন করতে পারবে।
২২ জুন ভর্তির জন্য মনোনীত প্রার্থীদের তালিকা প্রকাশ করা হবে। বিলম্ব ফি ছাড়া ভর্তি ও টাকা জমা দেয়া যাবে ৩০ জুন পযর্š—। বিলম্ব ফিসহ ভর্তি ও টাকা জমা দেয়া যাবে ২২ জুলাই পর্যন্ত। ভর্তিপ্রক্রিয়া শেষে কাস শুরু হবে ১ জুলাই।
ভর্তির সময় জিপিএ ৫ পাওয়া শিক্ষার্থীদের ক্ষেত্রে সব বিষয়ের ওপর সর্বোচ্চ ৪৩ গ্রেড পয়েন্ট ধরে জিপিএ’র ভিত্তিতে মেধাক্রম নির্ধারণ করতে হবে। বিজ্ঞান বিভাগে ভর্তিতে সমান জিপিএ প্রাপ্তদের মেধাক্রম নির্ধারণে সাধারণ গণিত, উচ্চতর গণিত অথবা জীববিজ্ঞানে প্রাপ্ত জিপিএ বিবেচনায় আনা হবে। আর মানবিক ও ব্যবসায় শিক্ষা বিভাগে সমান জিপিএ প্রাপ্তদের ভর্তির ক্ষেত্রে পর্যায়ক্রমে ইংরেজি, গণিত ও বাংলায় অর্জিত গ্রেড পয়েন্ট বিবেচনা করা হবে।
ভর্তির ক্ষেত্রে সরকারি নির্দেশনা : ভর্তি ফরমের দাম নির্ধারণ করা হয়েছে ১২০ টাকা। এর অতিরিক্ত ফি নিলে জরিমানা গুনতে হবে কলেজগুলোকে। ভর্তি নীতিমালা অনুযায়ী, কোনো শিক্ষার্থী ভর্তি বাতিল করে বিলম্ব ফিসহ অন্য কলেজে ভর্তি হতে চাইলে তাকে অভিভাবকের সম্মতিসহ সংশ্লিষ্ট কলেজে আবেদন করতে হবে। এ ক্ষেত্রে ভর্তির সময় নেয়া অর্থের ৫০ শতাংশ ফেরত দিতে হবে কলেজ কর্তৃপক্ষকে। রাজধানীসহ সাতটি বিভাগীয় সদরের সব কলেজে ভর্তির ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট কলেজের ৮০ শতাংশ আসন সবার জন্য উন্মুক্ত থাকবে। অবশিষ্ট ১০ শতাংশ আসনের মধ্যে ৩ শতাংশ সংশ্লিষ্ট বিভাগীয় সদরের বাইরের এলাকার শিক্ষার্থীদের জন্য, ৫ শতাংশ মুক্তিযোদ্ধা কোটা এবং ২ শতাংশ শিক্ষা মন্ত্রণালয় এবং এর অধীন্যস্ত দফতরের কর্মকর্তা-কর্মচারী, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষক-কর্মচারী এবং নিজ নিজ প্রতিষ্ঠানের পরিচালনা পর্ষদের সন্তানদের জন্য সংরক্ষিত থাকবে। বাকি ১০ শতাংশ আসনে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো নিজেদের ইচ্ছেমতো শিক্ষার্থী ভর্তি করাতে পারবে। উৎস: নয়াদিগন্ত


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ