• রবিবার, ০৩ জুলাই ২০২২, ০৬:০২ পূর্বাহ্ন |

দিনাজপুরের ভ্যান চালক মেধাবি ইমরানের গল্প

Nil

সিসিনিউজ: এবারের দাখিল পরীক্ষার ফলাফলে জিপিএ-৫ পেয়েছে ভ্যানচালক ইমরান। পুরো নাম ইমরাউল কায়েস ইমরান। দিনাজপুরের চিরিরবন্দর উপজেলার সাতনালা ইউনিয়নের জোত সাতনালা গ্রামের ডাঙ্গাপাড়ার ভ্যানচালক সমসের আলীর দ্বিতীয় পুত্র। বাবা সমসের আলী দীর্ঘ দু’বছর থেকে কিডনীজনিত রোগে ভুগছেন। চিকিৎসকের পরামর্শে ভ্যান চালানো বন্ধ। তাই ভূমিহীন ৭ সদস্যের পরিবারের উপার্জনশীল ব্যক্তিটি উপাজর্নে অক্ষম হওয়ায় পরিবারটিতে নেমে আসে চরম দুভোর্গ। সন্তানের মুখে দু’মুঠো খাবার তুলে দিতে মা আলেয়া খাতুন প্রতিবেশীদের কাছে ধারদেনা করতে বাধ্য হন। এমনি করে বাড়তে থাকে ঋণের বোঝা।
সংসারের এমন করুণ অবস্থায় বাবার ভ্যানটি হাতে নেয় ইমরান। পরিচিতি পায় চিরিরবন্দর-রানীরবন্দর রুটের ভ্যান চালক হিসেবে। তবুও ঋণের বোঝা কমতে থাকে না। অপরদিকে অনিয়মিত হয়ে যায় মাদ্রাসা আসা-যাওয়া। কিন্তু রাত জেগে পড়ার অভ্যাস ঠিকই রপ্ত করেছে সে। ইমরানের বড় ভাই আরমান জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের ছাত্র। টিউশনী আর প্লান বাংলাদেশের দেয়া বৃত্তির মাসিক তিন হাজার টাকা দিয়ে নিজ পড়াশুনার খরচ চালানোর পাশাপাশি বাড়িতে ছোট ভাই-বোনের লেখাপড়ার খরচ চালাতো। কিন্তু গত ডিসেম্বর মাসে প্লান বাংলাদেশের দেয়া বৃত্তির টাকা প্রদান বন্ধ হয়ে গেছে। ফলে পরিবার নিয়ে চিন্তিত এখন আরমানও।
মেধাবী ইমরানের ছোট ভাই আলীরাজ ওরফে আলী। তারা দু’জনেই বাড়ির পার্শ্ববর্তী সাতনালা সিরাজুল হুদা জামালিয়া দাখিল মাদ্রাসা থেকে পরীক্ষায় অংশ নিয়েছে। আলীরাজ পেয়েছে জিপিএ-৪। সে ভ্যানচালক বড় ভাই ইমরানের কাজে সাহায্য করতো মাঝে-মধ্যে। ইমরান জানায়, যখন ভ্যানে কোন ভারী বস্তু যেমন ধান, গম, ভুট্টার বস্তা কিংবা গাছের গুড়ি বহন করি তখন আলীরাজ পেছন থেকে ভ্যানটাকে ঠেলে ঠেলে গন্তব্যে পৌছে দিতো।
ওই মাদ্রাসায় ৮ম শ্রেনীতে অধ্যয়ন করছে ছোট বোন আদুরী। অর্ধ শতাধিক শিক্ষার্থীর মাঝে ওই কাসে আদুরী রোল নম্বর দুই। সিরাজুল হুদা সরকারী প্রাথমিক বিদালয়ে ২য় শ্রেনীতে পড়ছে সবার ছোট ইরফান।
সরেজমিনে শুক্রবার বিকেলে ইমরানের বাড়িতে গিয়ে প্রথমে দেখা মিলেনি তার। ছোট ভাই আলীরাজ জানায়, ঘন্টাঘর নামক বাজারে ভ্যান নিয়ে গেছে। নেই তার কাছে মোবাইল ফোন। অগত্যা নিজের মটরসাইকেলে আলীরাজকে সাথে নিয়ে ইমরানের সন্ধান করতে গিয়ে দেখা মিলে তারই প্রিয় মাদ্রাসার সামনে।
কথা হয় ইমরানের সাথে। সে চাপা কান্না মিশ্রিত কন্ঠে জানায়, বেঁচে থাকতে হলে খাইতে তো হবে। আর খাবারের জন্য উপার্জন করতে হবে। এক প্রশ্নের জবাবে মেধাবী ইমরান বলেন, যতই কষ্ট হোক-উচ্চ শিক্ষা অর্জনে পিছপা হবো না। তবে কোন সহৃদয় ব্যক্তি তার বাবার জন্য স্থায়ী কোন উপার্জনের পথের ব্যবস্থা করে দিতেন তাহলে তাদের কষ্ট লাঘব হতো। এতে আমাদের ভাই-বোনদের উচ্চ শিক্ষা অর্জনের বাঁধা দূর হতো নিশ্চিত।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ