• শনিবার, ২৫ জুন ২০২২, ০৯:৫৯ পূর্বাহ্ন |

খোকাকে আহবায়ক করেই মহানগর বিএনপির কমিটি

Sadek-Hosen-Khokaসিসিনিউজ: ঢাকা মহানগরের কমিটি গঠনের মধ্যদিয়ে নতুন করে শুরু হচ্ছে বিএনপির পুনর্গঠন প্রক্রিয়া। আগামী সপ্তাহেই দলের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ এই শাখার কমিটি ঘোষণার সিদ্ধান্ত নিয়েছে হাইকমান্ড। এবারেও আহ্বায়ক কমিটি করা হবে। আর নেতৃত্বে থাকছেন সাদেক হোসেন খোকাই।
বিএনপি নীতিনির্ধারণী পর্যায়ের সূত্র জানিয়েছে, মহানগর কমিটি গঠন করার বিষয়ে বিএনপি চেয়ারপারসন সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব দিয়েছেন। দলের প্রায় সব পর্যায়ের নেতাদের সঙ্গে আলোচনা করে মহানগর কমিটি গঠন করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তিনি। সাদেক হেসেন খোকাকে নেতৃত্বে রেখেই কমিটি গঠনের পক্ষে বেশিরভাগ নেতাকর্মী অবস্থান নেয়ায় তাকেই আহ্বায়ক করে কমিটি দেয়া হবে। তবে সদস্য সচিব পদে পরিবর্তন আসবে। এখন পর্যন্ত ২১ সদস্যের আহ্বায়ক কমিটি ঘোষণার সিদ্ধান্ত থাকলেও এর পরিধি আরো অনেক বাড়ানো হতে পারে। যাতে গুরুত্বপূর্ণ কেউই বাদ না পড়েন।
মহানগর বিএনপির প্রভাবশালী একজন নেতা জানান, দলের প্রতিষ্ঠাতা শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের মৃত্যুবার্ষিকীর কর্মসূচি শেষ হওয়ার পরপরই নতুন কমিটি ঘোষণা করা হবে। এবার আর বিলম্ব হওয়ার সম্ভাবনা নেই।
গত ৬ ফেব্রুয়ারি জাতীয় স্থায়ী কমিটির বৈঠকে দ্রুত দল পুনর্গঠনের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। এর দু’দিন আগে ৪ ফেব্রুয়ারি সংবাদ সম্মেলনে দল গুছিয়ে আন্দোলনে নামবেন বলে জানিয়ে ছিলেন বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। সে অনুযায়ী বিভিন্ন জেলা কমিটি ভেঙে নতুন আহ্বায়ক কমিটি গঠনসহ বিভিন্ন কার্যক্রম এগোতে থাকে। আর গত ১০ ফেব্রুয়ারি ঢাকা মহানগরের নেতাদের সঙ্গে মতবিনিময়ে আন্দোলনে ব্যর্থতার জন্য নগর নেতাদের দায়ী করে একমাসের মধ্যে কমিটি পুনর্গঠনের ঘোষণা দেন খালেদা জিয়া। এর একটি পর্যায়ে গত ১২ মার্চ সংবাদ সম্মেলন ডেকে দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি দেন ঢাকা মহানগর বিএনপির আহ্বায়ক সাদেক হোসেন খোকা। এরপরেই আবার পরিস্থিতি অন্যদিকে মোড় নিতে শুরু করে। ফলে একমাসের তো দূরের কথা_ সাড়ে তিনমাসেও সেই কমিটি গঠন করতে পারেননি খালেদা জিয়া।
কেন কমিটি গঠন বিলম্ব হচ্ছে এর কারণ অনুসন্ধান করতে গিয়ে জানা যায়, খোকার অব্যাহতি চাওয়ার পর থেকে বিএনপিতে অন্তর্কোন্দল বাড়তে থাকে। খালেদা জিয়ার আস্থাভাজন ও প্রভাবশালী নেতারা নতুন কমিটি করলে লাভ বা ক্ষতি কী হবে, তা নিয়ে চেয়াপারসনের সঙ্গে আলোচনা করেন। স্থায়ী কমিটিতে সিদ্ধান্ত অনুযায়ী হান্নান শাহের নেতৃত্বে ২১ সদস্যের কমিটি গঠন করলে তেমন কোনো ইতিবাচক ফল আসবে না বলে চেয়ারপারসনের সবচেয়ে প্রভাবশালী উপদেষ্টা খালেদা জিয়াকে বোঝাতে সক্ষম হন। তার যুক্তি ছিল, হান্ন্নান শাহ ১/১১ প্রেক্ষাপটে সাহসী ভূমিকা নেয়া ছাড়া সাংগঠনিক কাজে কখনোই উল্লেখযোগ্য সফল্য দেখাতে সক্ষম হননি। হান্নান শাহের ব্যাপারে মহানগরের অনেক নেতার আপত্তি রয়েছে। তিনি কাপাসিয়া নিজের আসনের কোন্দল নিরসন করতে পারেননি। এছাড়া গুলশান নির্বাচনী এলাকায় তার কর্মীদের অন্তর্কোন্দল নিরসন করতে ব্যর্থ হয়েছে বারবার। তিনি কীভাবে ঢাকা মহানগরের সমস্যার সমাধান করবেন? আর খোকার বিকল্প এই মহানগরে এখনো তৈরি হয়নি। এছাড়া সদস্য সচিব পদে আলোচনায় থাকা আবু সাঈদ খান খোকনের মহানগরে তেমন কোনো প্রভাব নেই, পরিচিতিও নেই এবং সর্বশেষ সরকারবিরোধী আন্দোলনে তার কোনো ভূমিকা ছিল না। বর্তমান কমিটিতে থেকেও কোনো কর্মকা-ে ছিলেন না সাইদ খোকন। সরকারবিরোধী আন্দোলনে একটি মামলায়ও পড়তে হয়নি তাকে। ক্ষমতায় থাকাকালে মহানগর যুবদলের দায়িত্বও এই নেতা সঠিকভাবে পালন করতে পারেননি। এরপরই কার্যকরী মহানগর কমিটি গঠনের জন্য বিকল্প ভাবতে শুরু করেন বিএনপিপ্রধান। বিকল্প হিসেবে বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আবদুল আউয়াল মিন্টুকে আহ্বায়ক ও স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি হাবিব-উন নবী খান সোহেলকে সদস্য সচিব করে ঢাকা মহানগরের একটি কমিটির খসড়া চূড়ান্ত করা হয়। কিন্তু এই সিদ্ধান্তে প্রবল আপত্তি জানান মহানগর বিএনপির নেতারা। চেয়ারপারসনের দপ্তরে তারা মিন্টু-সোহেলকে নেতৃত্বে আনা হলে কী সমস্যা হতে পারে_ তা নিয়ে একটি প্রতিবেদন পেশ করে। এতে মহানগর রাজনীতিতে আবদুল আউয়াল মিন্টুর অনভিজ্ঞতা এবং সোহেলের বিষয়ে স্বেচ্ছাসেবক দলের ঢাকা মহানগর কমিটি গঠন করাই সম্ভব হয়নি বলে অভিযোগ আনা হয়। বলা হয়, নগরীর বাইরের কাউকে দিয়ে কমিটি গঠন করা হলে তা কার্যকরী হবে না।
সূত্রমতে, বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস এবং সাদেক হোসেন খোকা ও তার অনুসারী কেউই চাচ্ছেন না মহানগরের নেতৃত্ব তাদের হাতছাড়া হোক। এই দুই নেতার অনুসারীরা ঐক্যবদ্ধ হওয়ায় অন্যরা কমিটিতে অন্তর্ভুক্ত হওয়ার চেষ্টা করেও সফল হননি। সঙ্গত কারণে সাদেক হোসেন খোকার নেতৃত্বেই কমিটি গঠন করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন বিএনপির হাইকমান্ড। আর সদস্য সচিব পদেও থাকছেন মহানগরেরই নেতা। সেক্ষেত্রে আলোচনায় আছেন, নাসির উদ্দিন আহমেদ পিন্টু, এমএ কাইয়ুম, মুন্সি বজলুল বাসিদ আনজু, আব্দুল আলীম নকীর মতো নেতারা।
প্রসঙ্গত, ২০১১ সালের ১৪ মে খালেদা জিয়া সাদেক হোসেন খোকাকে আহ্বায়ক ও আবদুস সালামকে সদস্য সচিব করে ২১ সদস্যের আহ্বায়ক কমিটি অনুমোদন দেন। ছয় মাসের মধ্যে কাউন্সিলের মাধ্যমে ঢাকা মহানগরের সব ইউনিটে পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠনের নির্দেশনা দেয়া হয়। কিন্তু গত প্রায় তিন বছরেও সেই কমিটি পূর্ণাঙ্গ করা হয়নি। আর সরকারবিরোধী আন্দোলনে এই কমিটি ইতিবাচক ভূমিকা রাখতে ব্যর্থ হয়। ফলে ৫ জানুয়ারি নির্বাচনের পর খালেদা জিয়া এই কমিটি পুনর্গঠনের সিদ্ধান্ত নেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ