• শনিবার, ০২ জুলাই ২০২২, ০২:১৯ অপরাহ্ন |

ছাত্রীকে পিটিয়ে হাসপাতালে পাঠালেন শিক্ষিকা!

mirzapurসিসিনিউজ: চারের জায়গায় দুই লেখায় প্রধান শিক্ষকের বেত্রাঘাতে রক্তাক্ত হলো পঞ্চম শ্রেণির সাদিয়া জুবায়ের লিয়া। শিক্ষিকার পিটুনি খেয়ে প্রায় এক সপ্তাহ ধরে জ্বরে কাতরাচ্ছেন এই শিক্ষার্থী। মঙ্গলবার টাঙ্গাইলের মির্জাপুর উপজেলা সদরের বাইমহাটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে প্রধান শিক্ষিকা এই অমানবিক কাজটি করেন।

সাদিয়ার খালাতো ভাই জহিরুল ইসলাম বাবু বলেন, মঙ্গলবার ওই বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকা হুসনে আরা গণিত ক্লাস নেয়ার জন্য বেত নিয়ে ক্লাসে যার। ক্লাসে অংক করার সময় সাদিয়া চার এর স্থলে দুই লেখায় তাকে দাঁড় করিয়ে বেত্রাঘাত করতে থাকে। শিক্ষিকার পিটুনিতে এক পর্যায় সাদিয়া মাটিতে লুটিয়ে পড়ে অচেতন হয়ে যায়। পরে সহপাঠি ও অন্য শিক্ষকেরা তার মাথায় পানি দিয়ে কিছুটা সুস্থ করে তুলে। এরপর থেকে গত ৬দিন ধরে সাদিয়া জ্বরে ভুগছে। তাকে স্থানীয় সালেহা ক্লিনিকে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে।

জহিরুল ইসলাম বাবু অভিযোগ করে বলেন, সদরের ওই বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকার নিয়ম অনুযায়ী বাধ্যতামূলক শিক্ষিার্থীদের কোচিং ক্লাস করতে হয়। সাদিয়ার কোচিং ক্লাস বাবদ প্রতি মাসে ২ হাজার টাকা দিতে হয় বলে বাবু জানান।

সম্প্রতি প্রধান শিক্ষিকা বাইমহাটি গ্রামের গোপালের ছেলে সাব্বিরকে বেদম প্রহার করে বিদ্যালয় থেকে বের করে দেয়। এছাড়া প্রধান শিক্ষিকা ক্লাসে শিক্ষার্থীদের মারপিট ও গালিগালাজ করায় তাকে অন্যত্র বদলি করার জন্য বাইমহাটি গ্রামবাসী গত দুই সপ্তাহ আগে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবর লিখিত অভিযোগ করা হয় বলে ওয়ার্ড কাউন্সিলর জালাল উদ্দিন জানিয়েছেন।

বাইমহাটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকা হুসনে আরা বেগমের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি সাদিয়াকে বেত্রাঘাত করার বিষয়টি অস্বীকার করেন। কোচিং ক্লাস বাবদ টাকা নেয়ার বিষয়টি তিনি কৌশলে এড়িয়ে যান।

এ ব্যাপারে উপজেলা শিক্ষা অফিসার বলেন, আমি ঢাকায় আছি বিষয়টি আমার জানা নেই। ঢাকাটাইমস


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ