• সোমবার, ২৭ জুন ২০২২, ০৯:০১ পূর্বাহ্ন |
শিরোনাম :
পদ্মা সেতুর রেলিংয়ের নাট খোলা বায়েজিদ আটক নীলফামারী জেলা শিক্ষা অফিসার শফিকুল ইসলামের শ্বশুড়ের ইন্তেকাল সৈয়দপুর সরকারি বিজ্ঞান কলেজের গ্রন্থাগারের মূল্যবান বইপত্র গোপনে বিক্রি ফেনসিডিলসহ সেচ্ছাসেবক লীগের নেতা গ্রেপ্তার এ সেতু আমাদের অহংকার, আমাদের গর্ব: প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশ-ভারতে রেল যোগাযোগ বন্ধ থাকবে ৮ দিন পদ্মা সেতুর উদ্বোধন বাংলাদেশের জন্য এক গৌরবোজ্জ্বল ঐতিহাসিক দিন: প্রধানমন্ত্রী পদ্মা সেতুর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে যেতে মানতে হবে যেসব নির্দেশনা সৈয়দপুরে বিস্কুট দেয়ার প্রলোভনে শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগ গণমানুষের সমর্থনেই পদ্মা সেতু নির্মাণ সম্ভব হয়েছে: প্রধানমন্ত্রী

দ্বিতীয় ধাপে ভোটার তালিকা হালনাগাদ শুরু ১৫ জুন

ECসিসিনিউজ: দ্বিতীয় ধাপের ভোটার তালিকা হালনাগাদ শুরু হবে আগামী ১৫ জুন থেকে। তা চলবে ২৪ জুন পর্যন্ত। এর আগে ১৫ মে থেকে ২৪ মে পর্যন্ত প্রথম ধাপে হালনাগাদের কার্যক্রম শেষ করেছে নির্বাচন কমিশন। চলতি বছরের মধ্যেই এ কাজ শেষ করতে চায় ইসি।

এর আগে নির্বাচন কমিশন থেকে জানানো হয়, প্রথম ধাপে গ্রামাঞ্চল, দ্বিতীয় ধাপে মফস্বল শহর ও তৃতীয় ধাপে সিটি করপোরেশন এলাকায় ভোটার তালিকা হালনাগাদের কাজ সম্পন্ন করা হবে। প্রতিবছর জানুয়ারিতে যাদের বয়স ১৮ বছর বা তার বেশি তাদেরকে ভোটার তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করার নিয়ম রয়েছে। কিন্তু জাতীয় নির্বাচন ও উপজেলা নির্বাচন হওয়ায় এ বছর হালনাগাদের কার্যক্রম দেরিতে শুরু হয়।

ভোটার তালিকা হালনাগাদের বিষয়ে মতামত জানিয়ে নির্বাচন কমিশনার আবদুল মোবারক প্রধান নির্বাচন কমিশনারের কাছে একটি আনঅফিসিয়াল (ইউ.ও.) নোট দিয়েছেন। এতে তিনি বলেছেন, মে থেকে ডিসেম্বরের মধ্যে ভোটার তালিকা হালনাগাদের কাজ সম্পন্ন করা যেতে পারে।

কমিশন সূত্রে জানা গেছে, এই হালনাগাদে প্রায় ৪৬ লাখ নতুন ভোটার অন্তর্ভুক্ত হতে পারেন বলে ধারণা করছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। হালনাগাদে ভোটারদের তথ্য সংগ্রহ করতে প্রায় ৪৯ হাজার কর্মী মাঠে থাকবেন। আগের হালনাগাদের ওপর নজর রেখে এবার ৫ শতাংশ নতুন ভোটার তালিকাভুক্ত করার চিন্তা রয়েছে নির্বাচন কমিশনের। তিন পর্যায়ে ১৫ লাখ ৩৩ হাজার করে প্রায় ৪৬ লাখ ভোটারকে তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করার আশা রাখছে কমিশন।

ভোটাররা যাতে সহজে নিবন্ধন করতে পারেন, সেজন্য ভোটার নিবন্ধন কেন্দ্র নির্ধারণ করা হয়েছে ৫ হাজার ৪০০টি। প্রত্যেক ধাপে ১ হাজার ৮০০টি কেন্দ্রে নিবন্ধন কার্যক্রম চলবে।

সূত্রে জানা যায়, হালনাগাদ কার্যক্রমে মাঠপর্যায়ে কাজ করছে ১৫০টি টিম। প্রতিটি টিমে একজন করে লিডার, চারজন ডাটা এন্ট্রি অপারেটর, দুজন প্রুফ রিডার ও একজন ডাটা এন্ট্রি হেলপার কাজ করছেন। হালনাগাদ কাজে ভোটারদের তথ্য সংগ্রহ করছেন ৪৮ হাজার ৩০০ জন। সুপারভাইজারের দায়িত্ব পালন করছেন ৯ হাজার ৬৬০ জন।

অন্যদিকে এ বছর ভোটার তালিকা হালনাগাদে ১৪টি উপজেলাকে বিশেষ এলাকা নির্ধারণ করে সংশ্লিষ্ট উপজেলায় চিঠি পাঠিয়েছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। এসব উপজেলায় বহিরাগত ও রোহিঙ্গা ছাড়াও কোনো অপরাধী যাতে ভোটার না হতে পারে সে ব্যাপারে কঠোর নজরদারীর নির্দেশ দিয়েছে ইসি।

গত সোমবার নির্বাচন কমিশন সচিবালয়ের সিনিয়র সচিব মাহফুজা আক্তার স্বাক্ষরিত একটি চিঠিতে এ নির্দেশ জারি করা হয়। চিঠিতে বলা হয়, রোহিঙ্গা ও বহিরাগতদের পাশাপাশি অপরাধীরা যাতে বাংলাদেশি নাগরিক হতে না পারে সে বিষয়ে আইন ও সরকারি সংস্থাকে নির্দেশ দেওয়া হয়।

নির্বাচিত এলাকাগুলো হলো- কক্সবাজারের আটটি উপজেলার মধ্যে কক্সবাজার সদর, টেকনাফ, রামু, পেকুয়া, উখিয়া, মহেশখালী, কুতুবদিয়া ও চকরিয়া। বান্দরবানের চারটি উপজেলার মধ্যে রয়েছে বান্দরবান সদর, লামা, আলীকদম, নাইক্ষোংছড়ি। রাঙামাটির দুইটি উপজেলার মধ্যে রয়েছে- ঝিলাইছড়ি ও কাপ্তাই।

উল্লেখ্য, ২০০৭ সালে তৎকালীন তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সময়ে গাজীপুরের শ্রীপুরে পাইলট প্রকল্প দিয়ে প্রথম ছবিসহ ভোটার তালিকা প্রণয়নের কার্যক্রম শুরু করে নির্বাচন কমিশন। সেই মোতাবেক ২০০৮ সালের নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ভোটার সংখ্যা ছিল আট কোটি ১০ লাখ ৫৮ হাজার ৬৯৮ জন। ২০০৯ ও ২০১০ সালে ভোটার তালিকা হালনাগাদের পর ভোটার সংখ্যা দাঁড়ায় আট কোটি ৫৭ লাখ ৭৪৭ জন।

দশম সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে গত বছর চার ধাপে তিন বছরের (২০১১-২০১৩) ভোটার তালিকা হালনাগাদের কাজ একসঙ্গে সম্পন্ন করে ইসি। এতে প্রায় ৭০ লাখ ১৭ হাজার ৫২১ জন নতুন করে অন্তর্ভুক্ত হয়। এ ছাড়া সাত লাখ ৪১ হাজার ৬৯ জন ভোটার, যারা মারা গেছেন তাদেরকে তালিকা থেকে বাদ দেওয়া হয়। সর্বশেষ তালিকা অনুযায়ী, দেশে ৯ কোটি ১৯ লাখ ভোটার রয়েছেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ