• রবিবার, ০৩ জুলাই ২০২২, ০৫:৩৭ পূর্বাহ্ন |

বেসরকারি খাতের অগ্রগতি দুই কারণে বাধাগ্রস্ত হচ্ছে

Screen-Shot-2014-05-26-at-9.59.58-PMঅর্থ-বাণিজ্য ডেস্ক: রাজনৈতিক অস্থিরতা ও দুর্নীতি এই দুই কারণেই মূলত বেসরকারি খাতের অগ্রগতি বাধাগ্রস্ত হচ্ছে । ঘুষ ও উপহার-উপঢৌকন ছাড়া কোনো কাজই এগোয় না। লাইসেন্স করা থেকে কার্যক্রম পরিচালনার প্রতিটি স্তরেই ঘুষ দিতে হয়। ব্যবসায়িক কর্মকা- পরিচালনার ৬০ শতাংশ ক্ষেত্রেই নিয়মবহির্ভূত লেনদেন করতে হয়। বিশ্বব্যাংকের সহযোগী সংস্থা ইন্টারন্যাশনাল ফাইন্যান্স করপোরেশনের (আইএফসি) ‘এন্টারপ্রাইজ সার্ভে-২০১৩’ শীর্ষক প্রতিবেদনে বাংলাদেশ চ্যাপ্টারে এসব কথা বলা হয়েছে।
বিশ্বের ১২২টি দেশের বেসরকারি খাতের সামগ্রিক অবস্থা নিয়ে এই প্রতিবেদন তৈরি করেছে আইএফসি। গত বছরের এপ্রিল থেকে সেপ্টেম্বরের মধ্যে দেশীয় এক হাজার ৪৪২টি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের ওপর জরিপ পরিচালনা করে সংস্থাটি। ওই জরিপের একটি চ্যাপ্টারে বাংলাদেশের ব্যবসার পরিবেশ সম্পর্কে একটি পৃথক প্রতিবেদন প্রকাশ করা হয়েছে।
প্রতিবেদনে বলা হয়, বাংলাদেশের ৭৭ দশমিক ২ শতাংশ প্রতিষ্ঠান ঘুষ দিয়ে আমদানি লাইসেন্স নেয়। অপারেটিং লাইসেন্স পাওয়ার জন্য ৫৮ শতাংশ ব্যবসায় প্রতিষ্ঠানকে এবং কন্সট্রাকশন পারমিট পাওয়ার জন্য ৫৪ দশমিক ৬ শতাংশ প্রতিষ্ঠানকে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের উপহার দিতে হয়।
প্রতিবেদনে আরো বলা হয়, ৫৬ দশমিক ৩ শতাংশ ব্যবসায় প্রতিষ্ঠান পানির সংযোগের জন্য এবং ৪৭ দশমিক ৬ শতাংশ প্রতিষ্ঠান বৈদ্যুতিক সংযোগের জন্য সরকারি কর্মকর্তাদের ঘুষ দিয়ে থাকে। এ ছাড়া দেশের ৪৭ দশমিক ৭ শতাংশ প্রতিষ্ঠান কমপক্ষে একবার ঘুষ দেওয়ার অভিজ্ঞতার মুখোমুখি হয়েছে।
আন্তর্জাতিক এ সংস্থাটির জরিপ প্রতিবেদন বলছে, সরকারি কার্যাদেশ পাওয়ার জন্য মোট বাজেটের গড়ে ২ দশমিক ৯ শতাংশ ঘুষ হিসেবে দিতে হয়। এ ছাড়া ৪১ শতাংশ প্রতিষ্ঠান আয়কর কর্মকর্তাদের ঘুষ দেয়।
প্রতিবেদনে বলা হয়, বেসরকারি খাতের অগ্রগতির আরেক বড় প্রতিবন্ধক হল রাজনৈতিক অস্থিরতা। জরিপে ৩৬ দশমিক ৭ শতাংশ প্রতিষ্ঠান রাজনৈতিক অস্থিতিশীলতাকে প্রতিবন্ধক হিসেবে চিহ্নিত করেছে।
এ ছাড়া বিদ্যুতের স্বল্পতা, বিনিয়োগের অভাব, অদক্ষ কর্মী, ভূমির অপ্রতুলতা, শুল্কের হার, আমদানি-রফতানি বিধিমালাসহ ১৫টি প্রতিবন্ধকতার কথা উল্লেখ করা হয়েছে। এই প্রতিবন্ধকগুলোর মধ্যে আপেক্ষিক হিসেবে দুর্নীতির অবস্থান চতুর্থ।
প্রতিবেদনের একাংশে বলা হয়, সক্ষমতার সর্বোচ্চ ব্যবহারের দিক থেকে বাংলাদেশ বেশ এগিয়ে। বাংলাদেশের প্রতিষ্ঠানগুলো তাদের সামগ্রিক সক্ষমতার ৮৪ শতাংশ ব্যবহার করে থাকে, যা বৈশ্বিক গড়ের তুলনায় অনেক বেশি। সামগ্রিক হিসাবে বিশ্বজুড়ে মাত্র ৭৩ শতাংশ সক্ষমতা সফল ব্যবহার নিশ্চিত করা হচ্ছে। একইভাবে রফতানির ক্ষেত্রে বৈশ্বিক গড়ের তুলনায় বাংলাদেশ এগিয়ে আছে বলে উল্লেখ করা হয়। উৎস: অর্থনীতি প্রতিদিন


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ