• সোমবার, ২৭ জুন ২০২২, ০৯:২৯ পূর্বাহ্ন |
শিরোনাম :
পদ্মা সেতুর রেলিংয়ের নাট খোলা বায়েজিদ আটক নীলফামারী জেলা শিক্ষা অফিসার শফিকুল ইসলামের শ্বশুড়ের ইন্তেকাল সৈয়দপুর সরকারি বিজ্ঞান কলেজের গ্রন্থাগারের মূল্যবান বইপত্র গোপনে বিক্রি ফেনসিডিলসহ সেচ্ছাসেবক লীগের নেতা গ্রেপ্তার এ সেতু আমাদের অহংকার, আমাদের গর্ব: প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশ-ভারতে রেল যোগাযোগ বন্ধ থাকবে ৮ দিন পদ্মা সেতুর উদ্বোধন বাংলাদেশের জন্য এক গৌরবোজ্জ্বল ঐতিহাসিক দিন: প্রধানমন্ত্রী পদ্মা সেতুর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে যেতে মানতে হবে যেসব নির্দেশনা সৈয়দপুরে বিস্কুট দেয়ার প্রলোভনে শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগ গণমানুষের সমর্থনেই পদ্মা সেতু নির্মাণ সম্ভব হয়েছে: প্রধানমন্ত্রী

শিল্পাচার্য জয়নুল আবেদিনের ৩৮তম মৃত্যুবার্ষিকী আজ

Joynulসিসিনিউজ : আজ বুধবার বিশ্ব বরেণ্য চিত্রশিল্পী শিল্পাচার্য জয়নুল আবেদিনের ৩৮তম মৃত্যুবার্ষিকী। তিনি ১৯৭৬ সালের এই দিনে ঢাকায় মৃত্যুবরণ করেন। ১৯১৪ সালে ব্রহ্মপুত্র লালিত সবুজ- শ্যামলিমা ময়মনসিংহে তার জন্ম। মঙ্গলবার সন্ধ্যায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা অনুষদের ডীন অধ্যাপক সৈয়দ আবুল বারক আলভী জানান, শিল্পাচার্যের ৩৮তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা অনুষদের উদ্যোগে বুধবার সকাল ১১ টায় এক আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়েছে। এদিকে জয়নুল আবেদিনের ৩৮তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে তার প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করে রাষ্ট্রপতি মোঃ আবদুল হামিদ এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আলাদা আলাদা বাণী প্রদান করেছেন।
গ্রামবাংলার সাধারণ মানুষের জীবনযাত্রা, মানুষের দুর্দশা, কষ্ট ও সংগ্রামই ছিল জয়নুল আবেদিনের চিত্রকর্মের প্রধান উপজীব্য। তিনি এঁকেছেন ১৯৪৩ সালের ‘দুর্ভিক্ষের রেখাচিত্র’ ১৯৬৯ সালের গণঅভ্যুত্থানের প্রেক্ষাপটে ‘নবান্ন’ ১৯৭০ সালে প্রলয়ঙ্করী ঘূর্ণিঝড়ে লাখো উপকূলবাসীর মৃত্যুতে ‘মনপুরা’র মতো হৃদয়স্পর্শী চিত্র।
শিল্পীর কালজয়ী শিল্পকর্ম দেশের গন্ডি পেরিয়ে আন্তর্জাতিক পরিমন্ডলেও বিপুল প্রশংসা ও স্বীকৃতি লাভ করেছে। অসাধারণ শিল্প-মানসিকতা ও কল্পনাশক্তির জন্য তিনি শিল্পাচার্য উপাধিতে ভূষিত হন। তাঁরই উদ্যোগে ১৯৪৮ সালে ঢাকা আর্ট কলেজ (বর্তমানে চারুকলা ইনস্টিটিউট) প্রতিষ্ঠিত হয়। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের পৃষ্ঠপোষকতায় এবং শিল্পাচার্য জয়নুলের ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় ১৯৭৫ সালে সোনারগাঁয়ে লোকশিল্প জাদুঘর প্রতিষ্ঠা লাভ করে। ময়মনসিংহে তিনি প্রতিষ্ঠা করেন শিল্পাচার্য জয়নুল আবেদিন সংগ্রহশালা গ্যালারি।

রাষ্ট্রপতির বাণী
শিল্পাচার্য জয়নুল আবেদিনের ৩৮তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে দেয়া এক বাণীতে রাষ্ট্রপতি মোঃ আবদুল হামিদ বলেছেন, শিল্পাচার্য জয়নুল আবেদিনের শিল্পকর্ম নতুন প্রজন্মকে সৃজনশীল কাজে নিরন্তর অনুপ্রেরণা যোগাবে। তিনি বলেন, বিশ্ব বরেণ্য চিত্রশিল্পী জয়নুল আবেদিন জাতির গর্ব। ১৯১৪ সালে তিনি ব্রহ্মপুত্র লালিত সবুজ- শ্যামলিমা ময়মনসিংহে জন্মগ্রহণ করেন। গ্রামবাংলার সাধারণ মানুষের জীবনযাত্রা, মানুষের দুর্দশা, কষ্ট ও সংগ্রামই ছিল তার চিত্রকর্মের প্রধান উপজীব্য। তিনি এঁকেছেন ১৯৪৩ সালের ‘দুর্ভিক্ষের রেখাচিত্র’ ১৯৬৯ সালের গণঅভ্যুত্থানের প্রেক্ষাপটে ‘নবান্ন’ ১৯৭০ সালে প্রলয়ঙ্করী ঘূর্ণিঝড়ে লাখো উপকূলবাসীর মৃত্যুতে ‘মনপুরা’র মতো হৃদয়স্পর্শী চিত্র।
আবদুল হামিদবলেন, শিল্পীর কালজয়ী শিল্পকর্ম দেশের গন্ডি পেরিয়ে আন্তর্জাতিক পরিমন্ডলেও বিপুল প্রশংসা ও স্বীকৃতি লাভ করেছে। অসাধারণ শিল্প-মানসিকতা ও কল্পনাশক্তির জন্য তিনি শিল্পাচার্য উপাধিতে ভূষিত হন। তারই উদ্যোগে ১৯৪৮ সালে ঢাকা আর্ট কলেজ (বর্তমানে চারুকলা ইনস্টিটিউট) প্রতিষ্ঠিত হয়।
রাষ্ট্রপতি বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের পৃষ্ঠপোষকতায় এবং শিল্পাচার্য জয়নুলের ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় ১৯৭৫ সালে সোনারগাঁয়ে লোকশিল্প জাদুঘর প্রতিষ্ঠা লাভ করে। ময়মনসিংহে তিনি প্রতিষ্ঠা করেন শিল্পাচার্য জয়নুল আবেদিন সংগ্রহশালা গ্যালারি। বিশ্বখ্যাত এ বরেণ্য শিল্পী ১৯৭৬ সালের ২৮ মে ঢাকায় মৃত্যুবরণ করেন। শিল্পাঙ্গনে তার অনবদ্য অবদান জাতি চিরদিন শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করবে। শিল্পাচার্য জয়নুল আবেদিনের ৩৮তম মৃত্যুবার্ষিকীতে তিনি তার স্মৃতির প্রতি গভীর শ্রদ্ধা জানান। সাথে সাথে তার বিদেহী আত্মার মাগফিরাত কামনা করেন।

প্রধানমন্ত্রীর বাণী
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তার বাণীতে বলেছেন, শিল্পাচার্য জয়নুল আবেদিন-এর ভাবনা ও সৃষ্টিকর্ম নিয়ে চর্চা ও গবেষণা আমাদের সাংস্কৃতিক ঐতিহ আরও ঐশ্বর্য্যকে মন্ডিত করবে। তিনি বলেন, শিল্পাচার্য জয়নুল আবেদিন বাংলার প্রকৃতি, বাঙালির জীবনযাত্রা, সমৃদ্ধি, দারিদ্র্য এবং স্বাধীনতার স্পৃহা তার তুলি আর ক্যানভাসে মূর্ত করে তুলেছিলেন। চিত্র ও শিল্পকলার মাধ্যমে বাঙালি সংস্কৃতিকে বিশ্ব দরবারে পৌঁছে দিয়েছিলেন। বাংলাদেশে শিল্পচর্চা আন্দোলনের অগ্রদূত শিল্পাচার্য জয়নুল আবেদিনের মৃত্যুবার্ষিকীতে তার স্মৃতির প্রতি গভীর শ্রদ্ধা জানিয়ে তিনি বলেন, ১৯৪৩ এর মন্বন্তর শিল্পী জয়নুলকে নাড়া দিয়েছিল প্রবলভাবে। দুর্ভিক্ষে জর্জরিত বিপন্ন মানুষের প্রতি শাসক ইংরেজদের অবহেলা তাঁকে বিক্ষুব্ধ করেছিল।
বাণীতে প্রধানমন্ত্রী বলেন, তিনি তার চিত্রকর্মে দুর্ভিক্ষের ভয়াবহ রূপ তুলে ধরেন বিশ্ববাসীর কাছে। দুর্ভিক্ষের চিত্রমালা ছাড়াও তার বিদ্রোহী, মুক্তিযোদ্ধা, গুণটানা, সাঁওতাল রমণী, সংগ্রাম, গ্রামীণ নারীর চিত্রমালা এদেশের চিত্রকলার ইতিহাসে অক্ষয় কীর্তি হয়ে থাকবে। চারুকলা শিক্ষা প্রতিষ্ঠান আর্ট ইনস্টিটিউট শিল্পাচার্যের অক্লান্ত পরিশ্রমের ফসল উল্লেখ করে তিনি বলেন, সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রেরণায় তিনি সোনারগাঁয়ে প্রতিষ্ঠা করেন লোক ও কারুশিল্প ফাউন্ডেশন


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ