• শনিবার, ২৫ জুন ২০২২, ১১:৩৬ পূর্বাহ্ন |

উইকিপিডিয়া থেকে সাবধান ৯০ শতাংশ তথ্যই ভুল!

প্Ukipidiaরযুক্তি ডেস্ক: চোখ বন্ধ করে বিশ্বাস করবার মত নিরাপদ নয় উইকিপিডিয়া। কেননা বিশেষজ্ঞদের মতে, চিকিৎসা ও ওষুধ সংক্রান্ত উইকিপিডিয়ার ৯০ শতাংশ তথ্যই যথাযথ নয়। ২০০১ সালে যাত্রা শুরু করার পর থেকেই উইকিপিডিয়া ইন্টারনেটের সবচেয়ে জনপ্রিয় রেফারেন্স সাইটে পরিণত হয়। এতে ২৮৫টি ভাষায় ৩১ মিলিয়ন এন্ট্রি রয়েছে। এগুলোর মধ্যে কমপক্ষে ২০ হাজার হলো স্বাস্থ্য সম্পর্কিত।
গবেষকদের মতে, উইকিপিডিয়াতে দেওয়া স্বাস্থ্যবিষয়ক প্রতি ১০টি এন্ট্রির মধ্যে ৯টি এন্ট্রিই প্রকৃতপক্ষে যথাযথ না। তাই, শারীরিক কোন সমস্যা সম্পর্কে খোঁজ-খবর নিতে উইকিপিডিয়ার দ্বারস্ত না হওয়াই ভাল হবে। কেননা, সম্ভবত আপনার ঐ সমস্যা ও এর সমাধান সম্পর্কে ভুল ব্যাখ্যা পাবেন উইকিপিডিয়ায়।
চিকিৎসকদের একটি গবেষণা থেকে জানা যায়, আপনার শরীরে অস্বাভাবিক যে লক্ষণগুলো দেখা দিচ্ছে তা নির্ণয় করার জন্য ইন্টারনেটের দ্বারস্থ হওয়ার ধারণাটি খুবই বাজে। তারা দেখেছেন, সাধারণ চিকিৎসা সংক্রান্ত তথ্যের ক্ষেত্রে প্রতি ১০টি তথ্যের ৯টিই ভুল!
এর কারণ, প্রথাগত অন্যান্য বিশ্বকোষের মতই, এই বিপুল জনপ্রিয় ওয়েবসাইটটি সাধারণ ব্যবহারকারীদের নতুন কোন তথ্য যোগ করা, মুছে ফেলা কিংবা সংযোজন করার অনুমতি দেয়। একারণেই তথ্যগত ভুল রয়ে যাওয়ার ঝুকিঁ ক্রমাগত বাড়ছে। শুধু তাই নয়, ঔষুধ কোম্পানিগুলো উইকিপিডিয়া থেকে তাদের ওষুধের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া সম্পর্কিত তথ্য মুছে ফেলছে, এমন অভিযোগও আছে। ২০০৯ সালে এস্ট্রাজেনেকা কোম্পানির কর্মচারী শিশু-কিশোরদের জন্য অবসাদরোধক ওষুধের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া সংক্রান্ত একটি বাক্য উইকিপিডিয়া থেকে মুছে ফেলে।
উইকিপিডিয়াতে সঠিকভাবে উচ্চ রক্তচাপ নির্ণয় করা সম্পর্কে যে তথ্য দেওয়া আছে তা সত্য নয় বলেই জানিয়েছেন গবেষকরা। বরং এই পদ্ধতি অবলম্বন করতে গেলে চিকিৎসায় বিলম্ব ঘটতে পারে, ফলে রোগীর জীবনও সংকটে পড়তে পারে। এছাড়া অবসাদ বা হতাশা দূরীকরণ ওষুধ(এন্টিডিপ্রেসেন্ট) সম্পর্কেও ভুল তথ্য দেওয়া আছে। শিশুদের জন্য এসব ওষুধ মোটেও নিরাপদ নয়।
উইকিপিডিয়াতে দেয়া ভুল নির্দেশনার ফলে অনেকেরই ভুল চিকিৎসার প্রমাণ মেলে। আমেরিকান অস্টিওপ্যাথিক এসোসিয়েশনের জার্নালে প্রকাশিত একটি গবেষণায় দেখা যায়, নারীদের চারভাগের একভাগ গুগল থেকে প্রাপ্ত ভুল নির্দেশনা অনুসরণ করেন। ২০১২ সালে ১০০০ জন নারীদের উপর করা একটি গবেষণায় দেখা যায়, উইকিপিডিয়ার ভুল নির্দশনা পেয়ে তারা প্রায়ই নিজেদের স্তন ক্যান্সার, ডায়াবেটিস, উচ্চ রক্তচাপ, অ্যাজমার রোগী বলে মনে করতেন।
ইদানীং মেডিকেল কর্মকর্তা ও কর্মচারীরাও রোগ নির্ণয় বা লক্ষণ জানতে উইকিপিডিয়ার সাহায্য নেওয়ায় অভ্যস্ত হয়ে পড়ছেন। এর আগের একটি গবেষণায় দেখা গেছে, ৭০ শতাংশ মেডিসিন চিকিৎসক ও শিক্ষার্থীরা একে রেফারেন্স হিসেবে ব্যবহারের স্বীকৃতি দিয়েছেন। কাজেই চিকিৎসকদেরও এক্ষেত্রে সতর্ক হওয়া প্রয়োজন মনে করেন গবেষক দলের প্রধান ড. হেস্টি।
ডায়াবেটিস, ফুসফুস ক্যান্সার, পিঠে ব্যথার মত নানান রোগ সম্পর্কিত তথ্য যাচাই করার পর গবেষক দল বলেন, ‘উইকিপিডিয়ার এত খ্যাতি অর্জন সম্ভব হয়েছে সমন্বয়সূচক ডাটাবেস হিসেবে এর মৌলিক ডিজাইনের কারণে। তবে এতে থাকা তথ্যের উপর চিকিৎসক সম্প্রদায় ও চিকিৎসা সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের নির্ভরশীলতা কমানোর জন্য সচেতনতা সৃষ্টি করা প্রয়োজন’।
দিনদিন উই্কিপিডিয়ার উপর নির্ভরশীলতা বাড়ছে। কাজেই এতে দেয়া ভুল তথ্যে বিভ্রান্ত ও ক্ষতিগ্রস্থ ব্যবহারকারীর সংখ্যা বাড়তে পারে। তাই এসব ভুল তথ্য অতিসত্ত্বর সংশোধন করতে সহকর্মীদের আহবান জানিয়েছেন ডা. হেস্টি।
যুক্তরাষ্ট্রের ক্যাম্পবেল বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষণাকারী দলের প্রধান রবার্ট হেস্টি সতর্ক করে বলেন, ‘উইকিপিডিয়াকে গবেষকদের প্রাথমিক সূত্র বা উৎস হিসেবে ব্যবহার করা উচিত নয়। কারণ ঐ নিবন্ধগুলো মেডিকেল জার্নালগুলোর মত নানান যৌথ পর্যালোচনা প্রক্রিয়ার মধ্য দিয়ে যায় না। রোগ নির্ণয় বা চিকিৎসার সবচেয়ে ভাল উপায় চিকিৎসকের শরণাপন্ন হওয়া, যিনি মেডিকেল হিস্ট্রি পর্যালোচনার মাধ্যমে আপনার সুচিকিৎসার সবচেয়ে ভাল নিয়ামকগুলো বাছাই করতে পারবেন’।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ