• শনিবার, ২৫ জুন ২০২২, ০৪:২৮ পূর্বাহ্ন |

একমাত্র ছেলেকেও পিটিয়ে মেরেছিলেন নূর হোসেন!

78907_1সিসিনিউজ ডেস্ক: নারায়ণগঞ্জে সাতখুনের ঘটনার প্রধান আসামী নূর হোসেনের বিরুদ্ধে তার ছেলেকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এলাকাবাসীর সাথে কথা বলে জানা যায়, প্রেম করে খালাত বোনকে বিয়ের কারণে ছেলে বিপ্লব হোসেনকে (২২) পিটিয়ে মেরেছিলেন নূর হোসেন।
তবে বিপ্লবের লাশের কোনো ময়নাতদন্ত করতে দেওয়া হয়নি। নূর হোসেন সেসময় এলাকায় প্রচার করেন, অভিমান করে আত্মহত্যা করেছে বিপ্লব।
তৎকালীন নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসক মনোজকান্তি বড়াল ও পুলিশ সুপার সৈয়দ নুরুল ইসলামসহ জেলা পুলিশের ঊর্ধ্বতন অনেক কর্মকর্তা ২০১৩ সালের ১১ নভেম্বর রাত থেকে ১২ নভেম্বর লাশের দাফন হওয়ার আগ পর্যন্ত নূর হোসেনের সঙ্গে ছিলেন। পুলিশের তিনটি গাড়ি সহযোগে বিপ্লবের লাশ দাফন করা হয় কবরস্থানে। বিপ্লবকে হাসপাতালে নেয়া থেকে শুরু করে জানাজা ও দাফন সবকিছুই সম্পন্ন হয়েছে পুলিশ পাহারায়। বিপ্লবের কুলখানিতে উপস্থিত ছিলেন ওই সময়কার ডিসি, এসপিসহ নারায়ণগঞ্জের শীর্ষ সরকারি কর্তারা।
১৪ তারিখের ওই কুলখানি-মিলাদে উপস্থিত ছিলেন নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসক মনোজ কান্তি বড়াল, শামীম ওসমান, আব্দুল্লাহ আল কায়সার, জাতীয় শ্রমিকলীগ কেন্দ্রীয় সভাপতি শুক্কুর মাহমুদ, সাবেক সভাপতি আব্দুল মতিন মাস্টার, বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী মুক্তিযোদ্ধা দলের উপদেষ্টা ও সাবেক পৌর প্রশাসক আব্দুল মতিন প্রধান, জেলা যুবলীগ সভাপতি আব্দুল কাদির, মহানগর যুবলীগ সভাপতি শাহাদাৎ হোসেন সাজনু, ফতুল্লা আঞ্চলিক শ্রমিকলীগ সভাপতি কাউসার আহমেদ পলাশ, নারায়ণগঞ্জ নিউজ পেপার ওনার্স এসোশিয়েসনের সভাপতি হাবিবুর রহমান বাদল, সাধারণ সম্পাদক ও খবর প্রতিদিন সম্পাদক এসএম ইকবাল রুমি, শীতলক্ষ্যা পত্রিকার সম্পাদক আরিফ আলম দিপু, সিদ্ধিরগঞ্জ থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি আলহাজ্ব মজিবুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক হাজী মো: ইয়াছিন মিয়া, সহ-সভাপতি সাদেকুর রহমান সাদেক, প্রচার সম্পাদক তাজিম বাবু, সিদ্ধিরগঞ্জ থানা বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক মনিরুল ইসলাম রবি, থানা যুবলীগ সভাপতি হাজী মতিউর রহমান মতি, সিদ্ধিরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আব্দুল মতিন, কাউন্সিলর শাহ জালাল বাদল, সোনারগাঁ থানা আওয়ামী লীগ সভাপতি সামছুল ইসলাম, কাউন্সিলর আব্দুর রহিম, কাউন্সিলর সিরাজ মন্ডল, কাউন্সিলর আলী হোসেন আলা, কাউন্সিলর রুহুল আমিন মোল্লা, কাউন্সিলর ইস্রাফিল সর্দার, কাউন্সিলর কামরুল হাসান মুন্না, কাউন্সিলর মনির, কাউন্সিলর জান্নাতুল ফেরদৌস নীলা, মাকসুদা মোজাফ্ফর, ইসরাত জাহান স্মৃতি, শারমিন হাবিব বিন্নী, রেহেনা পারভীন, মিনুয়ারা বেগম, খোদেজা খানম, শাহী ইফাৎ জাহান মায়া, সিদ্ধিরগঞ্জ চুনা প্রস্তুতকারক মালিক সমিতির সভাপতি আনোয়ার হোসেন, বিশিষ্ট চলচিত্র ব্যবসায়ী আলম, বাংলাদেশ ট্রাক কভার্ড ভ্যান মালিক সমিতির সভাপতি আরিফুল হক হাসান, সাধারণ সম্পাদক শফিকুল ইসলাম উজ্জল, কার্যকরী সভাপতি আফাজ উদ্দিন, সহ-সভাপতি মো: শাহ জাহান, অর্থ সম্পাদক আলী মোহাম্মদ, ১নং ওয়ার্ড শ্রমিকলীগ সাংগঠনিক সম্পাদক রানা বাবু, সিদ্ধিরগঞ্জ থানা প্রেসক্লাবের সাংবাদিক হোসেন চিশ্তী শিপলু, সিদ্ধিরগঞ্জ রিপোর্টার্স ক্লাবের সভাপতি নজরুল ইসলাম বাবুল, অর্থ সম্পাদক নাছির উদ্দিন ও সিদ্ধিরগঞ্জ পৌর প্রেস ক্লাবের সভাপতি রাশেদ উদ্দিন ফয়সাল।
এলাকাবাসী জানায়, ২০১৩ সালের ১১ নভেম্বর রাতে নূর হোসেন ও তার দ্বিতীয় স্ত্রী লিপির বড় ছেলে বিপ্লবকে ঘরের ফ্যানের সাথে ফাঁস দেওয়া অবস্থায় উদ্ধার করা হয়। তাকে উদ্ধার করে কাঁচপুরের সাজেদা হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক বিপ্লবকে মৃত ঘোষণা করেন। পরে ১২ নভেম্বর শিমরাইল ট্রাকস্ট্যান্ডে জানাজা শেষে সিদ্ধিরগঞ্জ-মিজমিজি-পাইনাদী কবরস্থানে বিপ্লবের লাশ দাফন করা হয়।
সিদ্ধিরগঞ্জ-মিজমিজি-পাইনাদী কবরস্থানের কবরস্থানের মোতোয়ালি আব্দুল আলীর জানান, আত্মহননকারী লাশের জানাজা হয় না। তবে যখন ঘটনাটা ঘটে, তখন নূর হোসেনের কথায় এলাকা চলতো। তখন তার ছেলের লাশ দাফন করতে ডিসি-এসপিসহ পুলিশের অনেক কর্মকর্তাও এসেছিলেন। সিদ্ধিরগঞ্জ থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি মজিবর রহমান, সাধারণ সম্পাদক ইয়াসিন মিয়াসহ অনেক সাংবাদিকও উপস্থিত ছিলেন সেদিন।
বিপ্লবের লাশ দাফন করতে কবরস্থানের রেজিস্ট্রি খাতায় তার নাম লেখা হয়েছিল কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘নাম এন্ট্রি করা হয়েছিল।’ তিনি জানান, দাফন খরচ বাবদ নূর হোসেন কবরস্থানের কমিটিতে ৩ হাজার টাকা জমা দিয়েছিলেন এবং এর রসিদ দেয়া হয়েছে। সিদ্ধিরগঞ্জের একাধিক ব্যক্তি ঘটনার বর্ণনা দিতে গিয়ে বলেন, ‘বিপ্লবের লাশ কাউকে ভালোভাবে দেখতে দেয়া হয়নি। কারণ পিটিয়ে হত্যার কারণে তার শরীরে অনেক আঘাতের চিহ্ন ছিল। কঠোর নিরাপত্তার মধ্যদিয়ে তার লাশ জানাজার জন্য গোসল করানো হয়।’
সাজেদা হাসপাতালের ম্যানেজার শাহজাহান জানান, ঘটনার দিন রাত ১০টা থেকে ১১টার মধ্যে বিপ্লবকে হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়। বিপ্লবকে মৃত অবস্থায়ই হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়েছিল। তাদের ধারণা হাসপাতালে আনার আধঘণ্টা থেকে ১ ঘণ্টা আগেই সে মারা গিয়েছিল।
বিপ্লব নূর হোসেনের দ্বিতীয় স্ত্রী লিপির গর্ভের সন্তান। লিপি বর্তমানে সংযুক্ত আরব আমিরাতের দুবাইতে অবস্থান করছেন। ১৯৮৯ সালে নূর হোসেন লিপিকে বিয়ে করেন পরে ৩ বছর পর ১৯৯২ সালে লিপিকে তালাক দেয় নূর হোসেন। এই ৩ বছরের মধ্যে জন্ম নেয় বিপ্লব। লিপিকে তালাক দেয়ার সময় বিপ্লবকে রেখে দেয় নূর হোসেন।
বিপ্লব ইনডিয়ার একটি কলেজে পড়াশোনা করত। নূর হোসেনের চতুর্থ স্ত্রী রুমার বোনের মেয়ে (খালাতো বোনের) সঙ্গে বিপ্লবের প্রেম ছিল। পরে দু’জন গোপনে বিয়ে করে। এ বিষয়টি জেনে নূর হোসেন বিপ্লবের ওপর ক্ষুব্ধ হয়। কৌশলে নূর হোসেন ছেলে ও ছেলের বউয়ের বিয়ে মেনে নেয়ার কথা বলে শিমরাইলের বাসায় আসতে বলে। বাবার কথানুযায়ী বিপ্লব স্ত্রীকে নিয়ে ওই বাসায় যায়।
পরে নূর হোসেন বিপ্লবকে নির্দেশ দেয় যে, এখনই তার স্ত্রীকে তালাক দিয়ে খালার বাসায় পাঠিয়ে দিতে হবে। নাহলে গায়েব হয়ে যাবে বিপ্লব। বাবা নূর হোসেনের নির্দেশে স্ত্রীকে তালাক দেয় সে। এরপর বিপ্লব মাদকাসক্ত হয়ে পড়ে।
উল্লেখ্য, বিপ্লবের জানাজা ও কুলখানিতে অনুপস্থিত ছিলেন নারায়ণগঞ্জের কাউন্সিলর ও প্যানেল মেয়র নজরুল ইসলাম।
উৎসঃ   অনলাইন বাংলা


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ