• শনিবার, ২৫ জুন ২০২২, ০৪:৫৬ পূর্বাহ্ন |

আজ জিয়ার ৩৩তম শাহাদতবার্ষিকী

Ziaসিসিনিউজ: আজ ৩০ মে বাংলাদেশের স্বাধীনতার মহান ঘোষক শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের ৩৩তম শাহাদতবার্ষিকী। ১৯৮১ সালের ৩০ মে রাতে চট্টগ্রাম সার্কিট হাউজে একদল বিপথগামী উচ্ছৃঙ্খল সৈনিকের হাতে তিনি নির্মমভাবে শাহাদতবরণ করেন। তার বয়স ছিল মাত্র ৪৫ বছর।
জিয়ার শাহাদতবার্ষিকী উপলক্ষে বিএনপি ও এর বিভিন্ন অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠন আলোচনা সভা, মিলাদ মাহফিলসহ নানা কর্মসূচি পালন করছে। রাজধানীতে আজ থেকে টানা তিন দিন দুস্থদের মধ্যে খাবার বিতরণ করবেন জিয়াউর রহমানের সহধর্মিণী, বিএনপি চেয়ারপারসন সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়া।
জিয়াউর রহমান বাংলাদেশের ইতিহাসে এক ক্ষণজন্মা রাষ্ট্রনায়ক। তার ঘটনাবহুল কর্মময় জীবন বাংলাদেশের মানুষের হৃদয়ে চিরস্থায়ী আসন অলঙ্কৃত করে আছে। নানা কারণে তিনি বাংলাদেশের জাতীয় ইতিহাসের গুরুত্বপূর্ণ ও গৌরবোজ্জ্বল অধ্যায়ে স্থান করে নিয়েছেন। তার সততা, নিষ্ঠা, গভীর দেশপ্রেম, পরিশ্রমপ্রিয়তা, নেতৃত্বের দৃঢ়তা প্রভৃতি গুণাবলি এ দেশের গণমানুষের হৃদয়কে স্পর্শ করেছিল। তিনি ছিলেন একজন পেশাদার সৈনিক; তা সত্ত্বেও সাধারণ মানুষের কাছে তার যে গ্রহণযোগ্যতা ছিল অন্য কোনো রাষ্ট্রনায়কের ভাগ্যে তা জোটেনি। মাত্র ছয় বছর রাষ্ট্র পরিচালনার দায়িত্বে ছিলেন জিয়াউর রহমান। কিন্তু সাধারণ মানুষ তার ওপর ছিল প্রচণ্ড আস্থাশীল। জীবনের শেষ দিন পর্যন্ত তার ওপর মানুষের এই আস্থায় কোনো চিড় ধরেনি। রাষ্ট্র পরিচালনায় তিনি সফল হয়েছিলেন।
বহুমাত্রিক প্রতিভার অধিকারী জিয়াউর রহমান ১৯৩৬ সালের ১৯ জানুয়ারি বগুড়ার গাবতলী থানার বাগবাড়িতে তার নানাবাড়িতে জন্মগ্রহণ করেন। তার পিতা মনসুর রহমান কলকাতায় একজন কেমিস্ট হিসেবে সরকারি চাকরিতে নিয়োজিত ছিলেন। শৈশব ও কৈশোরের একটি সময় গ্রামে কাটিয়ে  তিনি পিতার সাথে কলকাতায় ও দেশ বিভাগের পর করাচিতে চলে যান। শিক্ষাজীবন শেষে ১৯৫৩ সালে পাকিস্তান মিলিটারি অ্যাকাডেমিতে অফিসার ক্যাডেট হিসেবে যোগ দেন এবং ১৯৫৫ সালে সেনাবাহিনীতে কমিশন লাভ করেন। সামরিক জীবনে কঠোর শৃঙ্খলার মধ্যে তিনি একের পর এক কৃতিত্বের স্বাক্ষর রাখেন। ১৯৬৫ সালে পাক-ভারত যুদ্ধে খেমকারান সেক্টরে অসীম সাহসিকতার সাথে একটি কোম্পানির অধিনায়ক হিসেবে যুদ্ধ পরিচালনা করেন। যুদ্ধে তার কোম্পানি সবচেয়ে অধিক খেতাব লাভ করে। ব্যক্তিগত নৈপুণ্যের জন্য তিনি নিজেও একটি পিস্তল উপহার পান। সৈনিক জীবনে তিনি যেমন গভীর পেশাদারিত্ব দেখিয়েছেন তেমনি সব জাতীয় সঙ্কটকালেও শক্ত হাতে হাল ধরেছেন। ১৯৭১ সালের ২৫ মার্চ পাকিস্তানি বাহিনী যখন বাংলাদেশের নিরস্ত্র জনতার ওপর ঝাঁপিয়ে পড়ে, নেতারা যখন যে যেদিকে পারেন আত্মগোপন কিংবা পালানোয় ব্যস্ত ছিলেন, জিয়াউর রহমান তখন চট্টগ্রাম কালুরঘাট বেতার কেন্দ্র থেকে স্বাধীনতার ঘোষণা দেন। বিশ্বসম্প্রদায়কে বাংলাদেশের মানুষের এ ন্যায়সঙ্গত সংগ্রামে সমর্থনের আবেদন জানান তিনি। ৯ মাসের মুক্তি সংগ্রামে তিনি একটি সেক্টরের অধিনায়ক হিসেবে সমরনায়কের দায়িত্ব পালন করেন। বীরত্বের স্বীকৃতিস্বরূপ তিনি বীর উত্তম খেতাব লাভ করেন।
১৯৭৫ সালে দেশে রাজনৈতিক পটপরিবর্তনের পর এক বিশেষ প্রেক্ষাপটে জিয়াউর রহমান রাষ্ট্র পরিচালনার দায়িত্ব গ্রহণ করেন। ৩ নভেম্বর ব্রিগেডিয়ার খালেদ মোশাররফের নেতৃত্বে সামরিক অভ্যুত্থানে খন্দকার মোশতাক আহমদ ক্ষমতাচ্যুত হন এবং সেনাবাহিনীর তৎকালীন উপপ্রধান মেজর জেনারেল জিয়াউর রহমানকে গৃহবন্দী করা হয়। জাতির ভাগ্যাকাশে তখন এক অনিশ্চয়তা বিরাজ করছিল। সেনাবাহিনীতে বিশৃঙ্খলা ছড়িয়ে পড়ে। অবস্থা এতটাই শোচনীয় ছিল যে প্রকৃতপক্ষে সে সময় দেশে কোনো সরকার ছিল না। চার দিকে অনিশ্চয়তা-বিশৃঙ্খলার মধ্যে আধিপত্যবাদের শ্যেন দৃষ্টিতে উৎকণ্ঠিত ছিল সারা জাতি।  ইতিহাসের সেই বিশেষ ক্ষণে সিপাহি-জনতার মিলিত প্রয়াসে জিয়াউর রহমান বন্দিদশা থেকে মুক্ত হন এবং নেতৃত্বের হাল ধরেন।
এর পর থেকে জিয়াউর রহমানকে আর পেছনে ফিরে তাকাতে হয়নি। তিনি শুধুই এগিয়ে গেছেন। ব্যক্তিগত সততা, পরিশ্রমপ্রিয়তা, কর্তব্যনিষ্ঠা, দৃঢ়নেতৃত্ব দেয়ার যোগ্যতা, নির্লোভ, নির্মোহ, গভীর দেশপ্রেম প্রভৃতি গুণাবলি দিয়ে তিনি জাতির মধ্যে নতুন করে জাগরণের সৃষ্টি করেন। প্রতিদিন সারা দেশ ঘুরে বেড়াতেন তিনি। তার সবচেয়ে বড় কৃতিত্ব ছিল তিনি বাংলাদেশের মানুষের উপযোগী একটি স্বতন্ত্র জাতীয়তাবাদী আদর্শের বাস্তবায়ন ঘটান। দেশে সমন্বয়ের রাজনীতি চালু করে সবাইকে এক কাতারে নিয়ে আসেন তিনি। তার প্রতিষ্ঠিত রাজনৈতিক দল বিএনপিতে এক দিকে যেমন বামপন্থীরা স্থান পায় তেমনি চরম ডানপন্থীরাও জায়গা করে নেন। একটি উদার ও মধ্যপন্থী দল হিসেবে বিএনপিকে গড়ে তোলেন তিনি, যা বাংলাদেশের সমাজবাস্তবতায় সবচেয়ে প্রয়োজন ছিল। বাংলাদেশের সংখ্যাগরিষ্ঠ মানুষের প্রত্যাশা অনুযায়ী সংবিধানে ‘বিসমিল্লাহির রাহমানির রাহীম’ সংযোজন তার অমরকীর্তি। এ ছাড়াও তিনি দেশে বহুদলীয় গণতন্ত্র প্রবর্তন করেন এবং বাক ও ব্যক্তি স্বাধীনতা ফিরিয়ে দেন। জিয়াউর রহমান বিভক্তির রাজনীতি দূর করে ঐক্যের রাজনীতির ডাক দেন। রাজনীতিবিদদের তিনি জনগণের দোরগোড়ায় যেতে বাধ্য করেন। বিশাল কর্মযজ্ঞের সূচনা করে জনগণের মধ্যে তিনি সাড়া জাগান। মাত্র ছয় বছরের জন্য রাষ্ট্র পরিচালনার সুযোগ পান শহীদ জিয়া। কিন্তু এ ছয় বছরেই তিনি বিপুল জনপ্রিয়তা অর্জন ও তলাবিহীন ঝুড়ির অপবাদ থেকে এ জাতিকে মুক্ত করেন। স্বজনপ্রীতি, সর্বগ্রাসী দুর্নীতি, রাষ্ট্রীয় সম্পদ লুণ্ঠনসহ নানান অপকর্মে জাতির যখন ত্রাহি অবস্থা তখন জিয়াউর রহমান শক্ত হাতে দেশে শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনেন। তিনি সমগ্র জাতির মধ্যে এক নব জাগরণের সূচনা করেন। বাংলাদেশকে বিশ্ব দরবারে মাথা উঁচু করে দাঁড়ানোর সাহস জোগান তিনি। তাকে নিয়ে অনেকেই আজকাল ইঙ্গিতে কটুকথা বলার চেষ্টা করেন। কিন্তু জীবদ্দশায় তাদের কেউ কোনো অভিযোগ তার বিরুদ্ধে দাঁড় করাতে পারেননি। এমনকি তার ব্যক্তিত্ব ও নির্লোভ চরিত্রের কাছে আজকের অনেকের চারিত্রিক দৃঢ়তা ম্লান হয়ে যেত। সাদামাটা জীবনযাপনের এমন দৃষ্টান্ত বাংলাদেশ কেন সমসাময়িক রাজনীতিবিদদের ইতিহাসে খুব বেশি নেই। তার চরিত্রে কোনো কপটতা ছিল না। সময় ও রাষ্ট্রের প্রয়োজনে তিনি নেতৃত্বে এসেছেন। কাউকে উৎখাত কিংবা উচ্ছেদ করে তিনি আসেননি। এখানেই জিয়াউর রহমান ও অন্যদের মধ্যে স্পষ্ট পার্থক্য। জিয়াউর রহমান বুঝতে পেরেছিলেন সত্যিকার স্বাধীনতা নিয়ে বাঁচতে হলে বাংলাদেশের একটি শক্তিশালী সামরিক বাহিনী প্রয়োজন। তিনি বাংলাদেশের সামরিক বাহিনীকে নতুনভাবে ঢেলে সাজিয়েছিলেন। একটি বহুমাত্রিক সেনাবাহিনীর প্রয়োজনীয়তা উপলব্ধি করে তিনি প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিয়ে তা বাস্তবায়নের আগেই ঘাতকের বুলেটে প্রাণ হারান।
৫ জানুয়ারির একতরফা নির্বাচনের পর দেশে রাজনৈতিক কর্মকাণ্ডে একধরনের বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়েছে। শহীদ জিয়ার প্রতিষ্ঠিত দল বিএনপির বহু নেতাকর্মী কারাগারে আছেন। তার স্ত্রী, পুত্র ও পরিবারের সদস্যরা মামলা-মোকদ্দমার মুখোমুখি।
এত কিছু সত্ত্বেও জিয়াউর রহমান আজো তার অমর কীর্তিতে বাংলাদেশের ইসলামি মূল্যবোধ ও জাতীয়তাবাদে বিশ্বাসী কোটি কোটি মানুষের হৃদয়ে স্থান করে আছেন। বাংলাদেশকে একটি আধুনিক রাষ্ট্র হিসেবে গড়ে তুলতে জিয়াউর রহমান যখন অকান্ত পরিশ্রম করছেন, বিশ্বে দ্রুত অগ্রসরমান দেশ হিসেবে বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছিল, ঠিক তখনি দেশী-বিদেশী চক্রান্তের অংশ হিসেবে মাত্র ৪৫ বছর বয়সে ঘাতকদের বুলেটে প্রাণ হারান বাংলাদেশের ইতিহাসের ক্ষণজন্মা এই রাষ্ট্রনায়ক। তিনি যে কত জনপ্রিয় ছিলেন তা বোঝা গিয়েছিল ঢাকায় মানিক মিয়া এভিনিউয়ে অনুষ্ঠিত তার নামাজে জানাজায়। সে দিন পত্রিকায় শিরোনাম হয়েছিল ‘একটি লাশের পাশে সমগ্র বাংলাদেশ’। জিয়াউর রহমানের প্রতিষ্ঠিত দল বিএনপিকে এ দেশের সংখ্যাগরিষ্ঠ মানুষ ভালোবাসে তার কারণেই।
ভারপ্রাপ্ত মহাসচিবের বাণী : শাহাদতবার্ষিকী উপলক্ষে এক বাণীতে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর জিয়াউর রহমানের স্মৃতির প্রতি গভীর শ্রদ্ধা এবং তার রূহের মাগফিরাত কামনা করেন। তিনি জাতীয় জীবনের চলমান সঙ্কট নিরসনে শহীদ জিয়ার প্রদর্শিত পথ ও আদর্শকে ধারণ করার মাধ্যমে সামনে এগিয়ে যাওয়ার দৃঢ় অঙ্গীকার ব্যক্ত করে জাতীয় স্বার্থ, গণতন্ত্র এবং জনগণের অধিকার সুরক্ষায় ইস্পাতকঠিন গণঐক্য গড়ে তোলার আহ্বান জানান।
কর্মসূচি : জিয়ার শাহাদতবার্ষিকী উপলক্ষে ১৪ দিনের কর্মসূচি গ্রহণ করেছে বিএনপি ও বিভিন্ন অঙ্গসহযোগী সংগঠন। এ ছাড়া বিভিন্ন সামাজিক, সাংস্কৃতিক, রাজনৈতিক ও পেশাজীবী সংগঠনও নানা কর্মসূচি পালন করছে। গত ২৭ মে থেকে থেকে শুরু হওয়া কর্মসূচি ৯ জুন পর্যন্ত চলবে। আজকের কর্মসূচির মধ্যে রয়েছেÑ সকাল ৬টায় সারা দেশে দলীয় কার্যালয়ে কালো পতাকা উত্তোলন, কালো ব্যাজ ধারণ। শেরেবাংলা নগরে জিয়াউর রহমানের মাজারে সকাল ১০টায় খালেদা জিয়ার নেতৃত্বে শ্রদ্ধানিবেদন। মাজার প্রাঙ্গণে মিলাদ মাহফিল ও স্বেচ্ছায় রক্তদান কর্মসূচি। নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে ড্যাবের উদ্যোগে ফ্রি মেডিক্যাল ক্যাম্প হবে। আজ, কাল ও পরশু ১ জুন ঢাকা মহানগর বিএনপির উদ্যোগে রাজধানীতে বিভিন্ন স্পটে দুস্থদের মধ্যে খাবার বিতরণ করবেন খালেদা জিয়া।
এ দিকে দুস্থদের মাঝে খাবার বিতরণ কর্মসূচিতে বাধা দেয়ার অভিযোগ করেছে ঢাকা মহানগর বিএনপি। মহানগর যুগ্ম আহ্বায়ক এম এ কাইয়ুম জানিয়েছেন, তিন দিনে রাজানীতে প্রায় ৮০টি স্পটে দুস্থদের মাঝে খাবার বিতরণের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। খালেদা জিয়া ধানমন্ডি থেকে এই কর্মসূচি শুরু করার কথা রয়েছে। কিন্তু পুলিশি বাধার কারণে সব স্পটে হয়তো কর্মসূচি পালন করা সম্ভব হবে না।
ভাটারা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও থানা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আতাউর রহমান জানান, মাদানী এভিনিউর খাবার বিতরণ ক্যাম্প শনিবার ভেঙে দিয়েছে পুলিশ। সেখানে কর্মসূচি করতে দেয়া হবে না বলেও প্রশাসনের পক্ষ থেকে হুমকি দেয়া হয়েছে।
মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ে কুরআন খতম ও দোয়া : শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের ৩৩তম শাহাদতবার্ষিকী উপলক্ষে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয় (বিএসএমএমইউ) ড্যাব শাখা কেন্দ্রীয় জামে মসজিদে গতকাল বৃহস্পতিবার বাদ জোহর খতমে কুরআন ও মিলাদ মাহফিলের আয়োজন করে। এতে উপস্থিত ছিলেন বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা, ড্যাব মহাসচিব অধ্যাপক ডা: এ জেড এম জাহিদ হোসেন, অধ্যাপক এ এস এম এ রায়হান, অধ্যাপক ডা: মঈনুদ্দীন আহমেদ, অধ্যাপক ডা: আফতাব উদ্দিন আহমেদ, ডা: মো: সাইফুল ইসলাম সেলিম, ডা: মো: মোফাখখারুল ইসলাম রানা, ডা: মো: আব্দুস সালাম, ডা: মো: মিজানুর রহমান কাওসারসহ বিশ্ববিদ্যালয়ের এক হাজারের অধিক চিকিৎসক, কর্মকর্তা, কর্মচারী ও সাধারণ মুসল্লি।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ