• শনিবার, ২৫ জুন ২০২২, ১০:১৭ পূর্বাহ্ন |

গোপালগঞ্জের টুঙ্গীপাড়ায় অস্বাভাবিক ভোটার বৃদ্ধি

ECঢাকা: গোপালগঞ্জের টুঙ্গীপাড়া উপজেলায় অস্বভাবিক ভোটার বৃদ্ধির তথ্য পাওয়া গেছে। এ উপজেলায় প্রায় ১৫ শতাংশ নতুন ভোটার তথ্য ফরম পূরণ করেছে বলে জানা গেছে। হালনাগাদের এ অবিশ্বাস্য হার দেখা যায় মাঠ পর্যায় থেকে ইসিতে পাঠানো প্রতিবেদনে।

অন্যদিকে ভোটার তালিকা হালনাগাদ করতে গিয়ে অন্যান্য উপজেলায় ভোটার খুঁজে পাচ্ছে না ইসির তথ্য সংগ্রহকারীরা। তাই প্রথম পর্যায়ে ১৮১ উপজেলায় ১৫ মে থেকে ২৪ মে পর্যন্ত তথ্য সংগ্রহের কথা থাকলেও আরো ৪ দিন বাড়িয়ে ২৮ মে পর্যন্ত তথ্য সংগ্রহ করে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। তারপরও ১৫ মে থেকে শুরু হওয়া প্রথম ধাপের তথ্য সংগ্রহ শেষে ভোটার বৃদ্ধি পেয়েছে মাত্র ২ দশমিক ৭ শতাংশ।

ভোটার বৃদ্ধির এ হার দেখে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারাও হাতাশা প্রকাশ করেছেন। কি কারণে নতুন ভোটারদের এতো অনাগ্রহ তা খতিয়ে দেখতে আগামী সপ্তাহে কমিশন বৈঠকে বিষয়টি পর্যালোচনা করারও সিদ্ধান্ত হয়েছে বলে জানিয়েছেন ইসির দায়িত্বশীল কর্মকর্তারা।

তবে টুঙ্গীপাড়ায় অস্বাভাবিক ভোটার বৃদ্ধির বিষয়ে কোনো সদুত্তর দিতে পারেননি ইসি কর্মকর্তারা। অথচ মাঠ পর্যায়ের পাঠানো প্রতিবেদনে দেখা গেছে, ১৮১ উপজেলায় নতুন ভোটার অন্তর্ভুক্ত হয়েছে মাত্র ২ দশমিক ৭ শতাংশ।

১৫ মে শুরু হওয়া তথ্য সংগ্রহে নতুন ভোটার করার টার্গেটের ছিল ৫ শতাংশ। কিন্তু অনেক স্থানে এ টার্গেটের অর্ধেকও নতুন ভোটার পওয়া যায়নি। এর মধ্যে ২ শতাংশ ও তার নিচে ভোটার তথ্য ফরম পূরণ করেছে খাগড়াছড়ির মহালছড়িতে ১ শতাংশ, ঝালকাঠির নলসিটিতে ১ শতাংশ, গাজীপুরের কাপাসিয়ায় ১ দশমিক ৪ শতাংশ, কিশোরগঞ্জের কুলিয়ারচরে ২ শতাংশ, টাঙ্গাইলের মির্জাপুরে ২ শতাংশ, নড়াইলের কালিয়ায় ২ শতাংশ, পাবনার আটঘরিয়ায় ২ শতাংশ, বরিশালের বাকেরগঞ্জে ২ শতাংশ, যশোরের অভয়নগরে ২ শতাংশ, বাঘারপাড়ায় ২ শতাংশ, লক্ষ্মীপুরের রামগঞ্জে ১ শতাংশ, সাতক্ষীরার দেবহাটায় ২ শতাংশ, দিনাজপুরের ঘোড়াঘাটে ২ দশমিক ৭৪ শতাংশ, নবাবগঞ্জে ১ দশমিক ৮৭ শতাংশ, সদরে ১ দশমিক ৮৫ শতাংশ, ঠাকুরগাঁওয়ের পীরগঞ্জে ২ দশমিক ৫৮ শতাংশ।

৩ শতাংশ ভোটার তথ্য ফরম পূরণ করেছে কয়েকটি এলাকায়। এর মধ্যে কুষ্টিয়ার কুমারখালীতে ৩ শতাংশ, খুলনার গাইবান্ধার পলাশবাড়ীতে ৩ শতাংশ, গাজীপুরের কালিগঞ্জে ৩ শতাংশ, ঝালকাঠির রাজাপুরে ৩ শতাংশ, টাঙ্গাইলের দেলদুয়ারে ৩ শতাংশ, দিনাজপুরের হাকিমপুরে ৩ শতাংশ, নরসিংদী রায়পুরায় ৩ শতাংশ, পটুয়াখালীর বাউফলে ৩ শতাংশ, পিরোজপুরের কাউখালী ও সদরে ৩ শতাংশ, ফরিদপুরের মধুখালীতে ৩ শতাংশ, বগুড়ার নন্দীগ্রামে ৩ শতাংশ, বরগুনার বামনায় ৩ শতাংশ, বরিশালের আগৈলঝড়ায় ৩ শতাংশ, বাগেরহাটের কচুয়ায় ৩ শতাংশ, মানিকগঞ্জের ঘিওরে ৩ শতাংশ, দৌলতপুরে ৩ শতাংশ, শিবালয়ে ৩ শতাংশ, মুন্সীগঞ্জের লৌহজংয়ে ৩ শতাংশ, মেহেরপুরের গাংনীতে ৩ শতাংশ, রংপুরের তারাগঞ্জে ৩ শতাংশ, মিঠাপুকুরে ৩ শতাংশ, রাঙ্গামাটির রাজস্থলীতে ৩ শতাংশ, পঞ্চগরের দেবীগঞ্জে ৩ দশমিক ২৭ শতাংশ, তেঁতুলিয়ায় ৩ দশমিক ৩৪ শতাংশ, ঠাকুরগাঁওয়ের হরিপুরে ৩ দশমিক ৩৮ শতাংশ, নেত্রকোনার পূর্বধলায় ৩ দশমিক ৫ শতাংশ, কিশোরগঞ্জের কটিয়াদীতে ৩ দশমিক ৯৮ শতাংশ। বাকি উপজেলাগুলোতে ৪ শতাংশ বা তার ওপরে নতুন ভোটারের তথ্য সংগ্রহ করা হয়েছে।

ইসির দায়িত্বশীল কর্মকর্তারা জানান, অনেক স্থানে বাড়ি বাড়ি না যাওয়ায় ও ভোটাররা না জানার কারণে ভোটার বৃদ্ধি কম হচ্ছে। যাদের বাড়িতে তথ্য সংগ্রহকারী যায়নি তাদের রেজিস্ট্রেশন কেন্দ্রে আসার জন্য ইতোমধ্যে বলা হয়েছে। তবে এবার প্রচারণা খুবই কম হওয়ায় এ অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে। বেশিরভাগ উপজেলায় মাইকিং-পোস্টারিং করা হয়নি। প্রচারে ঘাটতির কারণে ভোটারদের সাড়া না পেয়ে বিপাকে পড়েছেন মাঠ কর্মকর্তারা।

এ প্রসঙ্গে একজন নির্বাচন কমিশনার বলেন, প্রথম পর্বের ভোটার হালনাগাদের তথ্য এখনো আমরা হাতে পাইনি। কমিশন সচিবালয়ের কর্মকর্তাদের তথ্য সংগ্রহের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। কি পরিমাণ নতুন ভোটার হচ্ছে। কোথাও কোনো অসুবিধা হচ্ছে কি না তা কমিশন বৈঠকে রিপোর্ট পেশ করলে জানা যাবে। এখনই এ বিষয়ে কিছু বলা সম্ভব নয় বলেও জানান তিনি।

তিন ধাপে সারা দেশে ভোটার তালিকা হালনাগাদ শেষ হবে। দ্বিতীয় ধাপে ২১৮ ও তৃতীয় ধাপে ১১৫ উপজেলায় হালনাগাদ কাজ চলবে। দ্বিতীয় পর্যায়ে তথ্য সংগ্রহ শুরু হবে ১৫ থেকে ২৪ জুন এবং রেজিস্ট্রেশন ১৮ জুলাই থেকে ১৫ সেপ্টেম্বর এবং শেষ ধাপে ভোটারের তথ্য সংগ্রহ হবে ১ থেকে ১০ সেপ্টেম্বর এবং রেজিস্ট্রেশন ১৮ সেপ্টেম্বর থেকে ১৫ নভেম্বর।

উৎস: শীর্ষ নিউজ


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ