• শনিবার, ০২ জুলাই ২০২২, ০২:০৫ অপরাহ্ন |

টাকা না দিলে…জামায়াতী বানাবো !

gaibandhaসিসিনিউজ: ২ লাখ টাকা ঘুষ না দেয়ায় হত্যা মামলার বাদীকে জামায়াতের সদস্য বলে গ্রেপ্তারের হুমকি দিয়েছে গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জ থানার ওসি। এ ধরনের একটি লিখিত অভিযোগ দেয়া হয়েছে পুুলিশের মহাপরিদর্শকসহ জেলার পুলিশ কর্তাদের কাছে।
সুন্দরগঞ্জ উপজেলার জামাল মতিন গ্রামের বাসিন্দা আবদুল হালিম আওয়ামী লীগের ইউনিয়ন সভাপতি। সে কারণে বিরোধী দলের লোকজনের সঙ্গে মনোমালিন্য চলে আসছিল। রাজনৈতিক শত্রুতার সূত্র ধরে একই এলাকার মঞ্জু মিয়া, বেলায়েত হোসেন, সাজু মিয়াসহ কয়েকজন ২০১৩ সালের ৯ই নভেম্বর পাশের বাড়ির হালিম মিয়াকে মারপিট করে। এতে আবদুল হালিম গুরুতর আহত হলে তাকে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। চিকিৎসাধীন অবস্থায় আবদুল হালিম মারা যান। তার মৃত্যুর পর সহোদর ভাই আবদুল হামিদ বাদী হয়ে সুন্দরগঞ্জ থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন। ১০ জাতীয় সংসদ নির্বাচন-পরবর্তী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গাইবান্ধা সফরে এলে রাজনৈতিক প্রতিহিংসার শিকার আবদুল হালিম মিয়ার স্ত্রীকে ১০ লাখ টাকা অনুদান দেন। আর এ অনুদানের ওপর নজর পড়ে ওসি মোজাম্মেল ও তদন্তকারী দারোগা যতীন্দ্র নাথের। তারা দু’পক্ষের সঙ্গে যোগাযোগ করে হত্যা মামলাটি ভিন্ন খাতে প্রবাহিত করা এবং আসামিদের নিষ্কৃতি দিয়ে দেনদরবার শুরু করেন।
বিত্তবান ও প্রভাবশালী আসামিদের বাঁচাতে তদবির শুরু হয় সুন্দরগঞ্জ থানায় ওসি মোজাম্মেল হকের টেবিলে। তদন্তকারী দারোগা যতীন্দ্র নাথের মাধ্যমে হত্যা মামলার বাদীকে প্রস্তাব দেয়া হয় টাকার। প্রস্তাব দেয়া হয় প্রধানমন্ত্রীর দেয়া টাকার ভাগ দিতে হবে- না হলে মামলার আসামিদের বাদ দিয়ে চার্জশিট দেয়া হবে। কিন্তু নিহতের পরিবার ওসির ঘুষের ২ লাখ টাকা দিতে রাজি নয়। আর নাছোরবান্দা ওসির যে কথা সেই কাজ। বাদীর কাছে ঘুষের টাকা না পেয়ে তিনি চার্জশিটভুক্ত আসামি মানিক মিয়াকে চার্জশিট থেকে নাম বাদ দিয়ে দেন। শুধু তাই নয়, আসামিদের রক্ষা করতে তাদের লোকজনকে সাক্ষী হিসেবে আদালতে কাগজপত্র দাখিল করেন। ফলে হত্যা মামলার জড়িতদের আসামির খাতা থেকে বাদ দিয়ে সাক্ষীর খাতায় নাম লিখে চার্জশিট দাখিল করেন আদালতে। এ খবরে মামলার বাদী ওসি মোজাম্মেল হকের সঙ্গে যোগাযোগ করেন। এতে তিনি আরও ক্ষেপে যান। তিনি মামলার বাদী ও সাক্ষীকে জামায়াতের নেতা হিসেবে গ্রেপ্তারের হুমকি দেন এবং পুলিশ হত্যা মামলায় গ্রেপ্তার করে হাজতে পাঠানোর হুমকি দেন। এ ঘটনা ফাঁস হলে হত্যা মামলার বাদী নিহতের ছোটভাই আবদুল হামিদ ওসির বিচার ও প্রতিকার দাবি করে মহাপুলিশ বরাবরে আবেদন করেন ওসি মোজাম্মেল হকের বিরুদ্ধে।
এ ব্যাপারে সুন্দরগঞ্জ থানার ওসি মোজাম্মেল হক নিজেকে নির্দোষ দাবি করে বলেন, আসামি বাদ দেয়ার ক্ষমতা আমার নাই। তবে তদন্তকারী দারোগা বাদ দিতে পারেন।

উৎসঃ   মানবজমিন


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ