• শনিবার, ০২ জুলাই ২০২২, ০১:৪৫ অপরাহ্ন |

ভারী বৃষ্টিপাত ও উজানের ঢলে তিস্তা নদীর পানি বিপদসীমা ছুঁই ছুঁই

Tistaনীলফামারী প্রতিনিধি: ভারী বর্ষণের সাথে উজান থেকে ধেয়ে আসা ঢলে তিস্তা নদীতে পানি বৃদ্ধি পেয়ে বিপদসীমার ১০  সেন্টিমিটার নিচ দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। হঠাৎ নদীতে পানি বৃদ্ধির ফলে নীলফামারীর ডিমলা উপজেলার তিস্তা নদী অববাহিকার পাঁচটি ইউনিয়নের চারটি চরগ্রাম প্লাবিত হয়েছে এরই মধ্যে তিস্তা ব্যারাজের উজানে পূর্বছাতনাই ইউনিয়নের ঝাড়শিঙ্গেশ্বর চরের গত বছরের স্বেচ্ছাশ্রমে নির্মিত একটি ক্রস বাঁধ বিধ্বস্থ্য হয়েছে বলে দাবি করেন ওই ইউনিয়নের চেয়ারম্যান প্রভাষক আব্দুল লতিফ খাঁন। এদিকে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে তিস্তা ব্যারাজের ৪৪টি স্লুইসগেট খুলে রাখা হয়েছে বলে জানিয়েছে  ডালিয়া পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মাহবুবর রহমান। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা ৬টায়  ডালিয়া পয়েন্টে তিস্তার পানি বিপদ সীমার দশমিক ১০ সেন্টিমিটার নিচ দিয়ে প্রবাহিত ( বিপদসীমা ৫২ দশমিক ৪০ সেন্টিমিটার ) হচ্ছিল বলে সংশ্লিষ্ট সুত্রে জানা গেছে।
ডালিয়া  পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মাহবুবুর রহমান মুঠো ফোনে জানান, বৃহস্পতিবার  সকাল ৬টায় তিস্তার পানি প্রবাহ ছিল ৫১ দশমিক ৯০ সেন্টিমিটার, সকাল ৯টায় দশমিক ২ সেন্টিমিটার বৃদ্ধি পায়। এরপর দুপুর ১২ টায় পানি বৃদ্ধি পায় দশমিক ৩৫ সেন্টিমিটার। এরপর দুপুর তিনটার পানি আরো ৮ সেন্টিমিটার বৃদ্ধি পেয়ে দাঁড়ায় ৫২ দশমিক ৩৫ সেন্টিমিটারে। তবে সন্ধ্যা ৬টায় তিস্তার পানি  বিপদসীমার দশমিক ১০ সেন্টিমিটার নিচ দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। এদিকে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে ব্যারাজের ৪৪টি স্লুইস গেট খুলে রাখা হয়েছে ফলে উজানের পানি ভাটির দিকে প্রবেশ করছে। তিনি বলেন ২৪ ঘন্টায় তিস্তা অববাহিকার ডালিয়া পয়েন্টে বৃষ্টিপাত রের্কড করা হয়েছে ১৬৭ মিলিমিটার।
এদিকে গোটা জেলায় বৃষ্টিপাত রেকড করা হয় ১১৪ দশমিক ৮৩ মিলিমিটার বলে জানান জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা মহসীন রেজা।
তিস্তাপাড়ের স্থানীয়রা জানায় ভারী বর্ষন ও উজানের ঢলে তিস্তায় অকাল বন্যা দেখা দেয়ায় নীলফামারীর পূর্বছাতনাই,খগাখড়িবাড়ি,টেপাখড়িবাড়ি,খালিশাচাঁপানী ,ঝুনাগাছ চাঁপানী ইউনিয়নের চরাঞ্চলের  গ্রামের ভেতর দিয়ে তিস্তা নদীর পানি প্রবাহিত হয়ে প্লাবিত করেছে।
মুঠোফনে তিস্তা নদীর উজানের পূর্বছাতনাই ইউনিয়নের ঝাড়শিঙ্গেশ্বর চরের মাঝি আছির উদ্দিন(৫৫) জানান, উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢল এবং ভারী বৃষ্টিতে ঝাড়শিঙ্গেশ্বর চরের উত্তরা মাথায় একটি ক্রস বাঁধ বিধবস্থ্য ওই গ্রামটি নদীর পানিতে প্লাবিত হয়েছে। পাশাপাশি চরের ৫০ মিটার পাড় ভেঙ্গে গেছে। অনেকে ঘরবাড়ি অন্যত্র সরিয়ে নিচ্ছে বলে  জানান তিনি।
একই ইউনিয়নের খোকার চরের মাঝি মোহাম্মদ হারুন (৪৫) মুঠোফোনে জানান, ঝাড়শিঙ্গেশ্বর চরের উত্তরা মাথায় একটি ক্রস বাঁধ বিধবস্থ্য হওয়ায় ওই ভাঙ্গন দিয়ে নদীর পানি হু-হু করে ধেয়ে এসে খোকার চরের উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। ফলে ভুট্টার ক্ষেত গুলো কোমড় সমান পানির নিচে তলিয়ে গেছে। এ ছাড়া পানির তোড়ে তার সহ আরো ৫জন মাঝির বেঁধে রাখা ১০টি নৌকা তিস্তার পানির তোড়ে ভেসে গেছে।
টেপাখড়িবাড়ি ইউনিয়নের কিসামত চরের মাঝি সহিদুল ইসলাম (৫০) মুঠোফোনে জানান, তিস্তায় পানি বৃদ্ধি পেয়ে অকাল বন্যার সৃষ্টি হয়েছে এলাকায়। এরই মধ্যে ইউনিয়নের পূর্বখড়িবাড়ি এলাকার স্থানীয় কাঁচা সড়কের ৬০ ফিট ভেঙ্গে গেছে।
তিস্তা ব্যারাজের ভাটির খাঁলিশা চাঁপানী ইউনিয়নের বাইশপুকুর চরের মাঝি মোতালেব হোসেন (৪২) জানান, ভারী বর্ষন ও উজানের ঢল আসায় তিস্তা ব্যারাজের সব গেট খুলে দেয়ায় তিস্তার পানি বাইশপুকুর চর প্লাবিত হচ্ছে।
ডিমলাা পূর্বছাতনাই ইউপি চেয়ারম্যান প্রভাষক আব্দুল লতিফ খাঁন জানান, টানা-বর্ষণে এবং তিস্তার নদীর পানি অস্বাভাবিক ভাবে বৃদ্ধির কারণে এই ইউনিয়নের ঝাড়শিঙ্গেশ্বর চরের গত বছরের স্বেচ্ছাশ্রমে নির্মিত একটি ক্রস বাঁধ বিধ্বস্থ্য হয়ে চরগ্রাম প্লাবিত হয়েছে। এছাড়াও তিস্তার তীরবর্তী গ্রাম ও চরাঞ্চলের অধিকাংশ পরিবার তাদের ঘরবাড়ি সরিয়ে নিয়েছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ