• বৃহস্পতিবার, ৩০ জুন ২০২২, ০৩:৩৮ পূর্বাহ্ন |

রিমান্ডে নীলার নীরবতা

Nilaঢাকা: সাত খুন মামলার প্রধান আসামি নূর হোসেনের কথিত স্ত্রী ও গার্লফ্রেন্ড হওয়ায় কাউন্সিলর নীলা ছিলেন প্রশাসনের ধরাছোঁয়ার বাইরে। মাদক ব্যবসায়ী জুয়েল হত্যা মামলায় গ্রেফতার চার আসামির জবানবন্দিতে প্রকাশ পায় মাদক ব্যবসায় পাওনা টাকায় লেনদেনকে কেন্দ্র করে ২ লাখ টাকা চুক্তিতে জুয়েলকে হত্যা করান নীলা। কিন্তু নূর হোসেনের গার্লফ্রেন্ড হওয়ায় নীলাকে সে সময় গ্রেফতার করতে পারেননি মামলার তদন্ত কর্মকর্তা। হত্যার রহস্য উদঘাটনে সফল হওয়া সেই পুলিশ কর্মকর্তাকে সে সময় বদলি করে দেওয়া হয়েছিল।

এদিকে সোমবার থেকে তিন দিনের রিমান্ডে থাকা কাউন্সিলর নীলা গতকালও জুয়েল হত্যাকাণ্ডের বিষয়ে মুখ খোলেননি। জিজ্ঞাসাবাদে চাপ প্রয়োগ করলেই চোখের জল ফেলে সমবেদনা কুড়াতে চাচ্ছেন। নূর হোসেন সম্পর্কে প্রশ্নের জবাবে তার একটি উত্তর_ সাত খুনের পর এ পর্যন্ত নূর হোসেন তার সঙ্গে আর যোগাযোগ করেননি। সূত্র জানায়, নীলা রিমান্ডে কোনো কিছু খেতে চান না। গতকাল দুপুর পর্যন্ত তাকে গোসল করতে বারবার পুলিশ অনুরোধ করেছে। থানা হাজতের ফ্লোরে শুয়ে তার পা ফুলে গেছে। গ্রেফতার হওয়ার দিন গায়ে থাকা হলদে পোশাক এখনো পাল্টাননি। পুরোপুরি বিপর্যস্ত তিনি। পুলিশ দেখলে আগে থেকেই কান্না জুড়ে দিচ্ছেন। সিদ্ধিরগঞ্জ থানার ওসি আলাউদ্দিন জানান, নীলাকে জিজ্ঞাসাবাদ চলছে। বলার মতো কিছু নেই। তা ছাড়া রিমান্ডের বিষয়ে মুখ খোলা যাবে না।

প্রসঙ্গত, গত বছর ২৬ অক্টোবর সিদ্ধিরগঞ্জের মাদক ব্যবসায়ী জুয়েলকে গলা কেটে হত্যা করা হয়। আদালতে হত্যাকারীদের স্বীকারোক্তিতে জুয়েল হত্যার পরিকল্পনাকারী হিসেবে নীলার নাম উঠে আসে। হত্যার শিকার জুয়েল নোয়াখালীর উত্তর মাসুদপুর গ্রামের ফিরোজ খানের ছেলে। তিনি ছিলেন নীলার মাদক ব্যবসার প্রধান অংশীদার। এভাবে ব্যবসা করতে গিয়ে নীলার কাছে জুয়েলের ৭০ লাখ টাকা পাওনা হয়। এর পরই নীলা তার খুচরা মাদক বিক্রেতা মনা ডাকাত, সোহেল, কালা সোহাগ ও শোয়েবকে নিয়ে জুয়েল হত্যার পরিকল্পনা করেন। জুয়েলকে হত্যার জন্য তাদের ২ লাখ টাকা দেন। নীলার নির্দেশ ও পরিকল্পনায় ঘাতকরা ২৬ অক্টোবর রাতে জুয়েলকে সিদ্ধিরগঞ্জের আইয়ুবনগরে একটি পরিত্যক্ত বাড়ির বাউন্ডারির ভিতর নিয়ে গলা কেটে হত্যা করে। পরদিন পুলিশ মস্তকবিহীন লাশ ও পরে খণ্ডিত মাথা উদ্ধার করে। সেদিনই সিদ্ধিরগঞ্জ থানার এসআই জিন্নাহ বাদী হয়ে একটি হত্যা মামলা করেন। পরে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা এসআই নজরুল ইসলাম ঘটনার সঙ্গে জড়িত সন্দেহে জান্নাতুল ফেরদৌস নীলার মাদক ব্যবসার অন্য চার সহযোগী মনা ডাকাত, সোহেল, কালা সোহাগ ও সাকিবকে গ্রেফতার করেন। আসামিরা জুয়েলকে হত্যার কথা স্বীকার করেন।

তারা ঘটনার সঙ্গে কাউন্সিলর নীলার সম্পৃক্ততার কথা এবং মোট আটজন জুয়েল হত্যায় অংশ নেন বলে পুলিশকে জানান। কিন্তু জুয়েল হত্যার সঙ্গে নীলার নাম এলে সাত খুন মামলার প্রধান আসামি নূর হোসেনের নিয়ন্ত্রণে থাকা নারায়ণগঞ্জ পুলিশ-র্যাবের বিশাল একটি অসাধু গোষ্ঠী নীলার টিকিটি পর্যন্ত ছুঁতে চায়নি।

পুলিশের একটি সূত্র জানায়, সাবেক পুলিশ সুপার সৈয়দ নূরুল ইসলাম নীলাকে আটক করতে মানা করেন এবং আসামিদের জবানবন্দি নেওয়া পুলিশ কর্মকর্তাকে অন্য জেলায় বদলি করে দেন। এদিকে সাত খুনের ঘটনায় নারায়ণগঞ্জে ৭৯ জন পুলিশ কর্মকর্তাকে বদলি করা হয়। এতে সিদ্ধিরগঞ্জ ও ফতুল্লা থানায় নতুন পুলিশ কর্মকর্তারা যোগ দেন। গত সপ্তাহে বিভিন্ন মামলার নথিপত্র ঘাঁটাঘাঁটি থেকে বের হয়ে আসে নীলার বিরুদ্ধে জুয়েল মার্ডারের আসামিদের ১৬৪ ধারার জবানবন্দিটি। এরপর শনিবারই গভীর রাতে তাকে গ্রেফতার করে আদালতে পাঠিয়ে সাত দিনের রিমান্ড চাওয়া হয়। আদালত তিন দিন মঞ্জুর করেন।

উৎসঃ   বাংলাদেশ প্রতিদিন


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ