• বুধবার, ২৯ জুন ২০২২, ১০:৪১ অপরাহ্ন |
শিরোনাম :
শিক্ষকের মামলায় রাবির বহিষ্কৃত সেই শিক্ষার্থী গ্রেপ্তার নিজ আসন থেকে উঠে এসে রওশনের সঙ্গে কথা বললেন প্রধানমন্ত্রী গ্রামীণফোনের সিম বিক্রি নিষিদ্ধ করেছে বিটিআরসি শিক্ষককে পিটিয়ে হত্যা: প্রধান আসামি জিতু গ্রেপ্তার সৈয়দপুরে কিশোরী ধর্ষণের ঘটনায় বিজিবি সদস্যকে আত্মসমর্পণের নির্দেশ শ্রেণিকক্ষে রাবি শিক্ষিকাকে মারতে গেলেন ছাত্র! অর্থ হাতিয়ে নেওয়ার অভিযােগ এনজিও’র দুই কর্মকর্তা গ্রেফতার জলঢাকায় মাদকদ্রব্যের অপব্যবহার রোধকল্পে সমন্বিত কর্মপরিকল্পনা প্রণয়নে কর্মশালা ইউনূস, হিলারি ও চেরি ব্লেয়ারের ওপর নিষেধাজ্ঞা দেওয়ার দাবি সংসদে মার্কেট-শপিং মলে মাস্ক বাধ্যতামূলক করে প্রজ্ঞাপন

খুন আতঙ্কে আওয়ামী লীগ

Awamili Flagসিসিনিউজ ডেস্ক: খুন আতঙ্ক ঘিরে ধরেছে আওয়ামী লীগকে। অভ্যন্তরীণ কোন্দলে একের পর এক হত্যাকাণ্ড ঘটেই চলেছে। রাজপথ থেকে শুরু করে মাঠঘাট সবুজ প্রান্তর সর্বত্রই নিজেদের রক্তে রঞ্জিত হচ্ছে আওয়ামী লীগ। কী নেতা, কী তৃণমূল কর্মী রক্ত ঝরছে সবারই। প্রতিপক্ষের কারও আঘাতে নয়, নিজেদের গুলি, নিজেদের রামদার কোপেই বেশির ভাগ নেতা-কর্মী ধরাশায়ী হচ্ছেন। চলতি মেয়াদে দ্বিতীয় দফায় ক্ষমতা গ্রহণের মাত্র পাঁচ মাসের মাথায় সারা দেশে শতাধিক আওয়ামী লীগ নেতা-কর্মী হত্যাকাণ্ডের শিকার হয়েছেন। বেশির ভাগ ক্ষেত্রে নিজেদের দ্বন্দ্ব-সংঘাতেই জীবন হারিয়েছেন তারা। এ খুনোখুনির ঘটনায় আতঙ্কে রয়েছেন নেতা-কর্মীরা কখন প্রতিপক্ষ হামলে পড়বে তাদের ওপর। অভ্যন্তরীণ কোন্দলে নিজ দলের নেতা-কর্মীদের খুনোখুনিতে স্থানীয় পর্যায় থেকে শীর্ষ পর্যায় পর্যন্ত চরম বিব্রতকর পরিস্থিতির মুখে পড়েন। স্থানীয় পর্যায়ে দলীয় কর্মীদের মধ্যে দেখা দেয় হতাশা। দল-উপদলে বিভক্ত হয়ে কিছু নেতা-কর্মী সাংগঠনিক কার্যক্রমকে রীতিমতো বাধাগ্রস্ত করে ফেলেন। পারস্পরিক খুনখারাবির ঘটনায় দলের ক্যাডারনির্ভর স্থানীয় রাজনীতি গড়ে ওঠার আশঙ্কাও করেন ত্যাগী নেতা-কর্মীরা। এসব নিয়ে অতি সম্প্রতি অনুষ্ঠিত ১৪ দলের বৈঠকেও উদ্বেগ প্রকাশ করা হয়েছে। বৈঠকে কয়েকজন নেতা অভ্যন্তরীণ কোন্দল যাতে চরম হিংসা, হানাহানি, খুনোখুনির পর্যায়ে না পেঁৗছে সে ব্যাপারে যথাসময়ে ত্বরিত সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেওয়ার জন্যও পরামর্শ দেন। তারা আরও বলেন, প্রতিটি খুনের ঘটনায় আওয়ামী লীগ তার ত্যাগী নেতা-কর্মী হারালেও এর সুফল চলে যায় বিরোধী দলের ঘরে। খুনোখুনির ব্যাপারে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নিজেও কঠোর ভূমিকা নিয়েছেন। তিনি প্রশাসনকে সরাসরি নির্দেশ দিয়ে বলেছেন, খুনি যে দলেরই হোক বিন্দুমাত্র ছাড় দেওয়া যাবে না।

এ প্রসঙ্গে আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ও স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, সম্প্রতি সারা এরপর দেশে খুনের ঘটনায় আওয়ামী লীগ উদ্বিগ্ন। এসব ঘটনা কেন ঘটছে তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। এসব ঘটনার যেন আর পুনরাবৃত্তি না ঘটে সে ব্যাপারে তৃণমূলের শীর্ষ নেতাদের সতর্ক করা হয়েছে। প্রশাসনকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে এসব ঘটনার সঙ্গে যারাই জড়িত তাদের গ্রেফতার করে আইনের আওতায় আনতে। এসব ঘটনা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রশ্রয় দেবেন না।

আধিপত্যের লড়াই, প্রভাব বিস্তার এবং একক কর্তৃত্ব প্রতিষ্ঠার লড়াইয়ের কারণেই বেশির ভাগ হত্যাকাণ্ড ঘটেছে। নারায়ণগঞ্জ ও ফেনীর বর্বরতায় সরকার বেশ বড় রকমের ধাক্কা খেয়েছে, এর মধ্যেও লক্ষ্মীপুর, নোয়াখালীসহ কয়েকটি জেলায় সাম্প্রতিক ঘটনায় প্রকাশ হয়ে পড়েছে অভ্যন্তরীণ দ্বন্দ্ব। গতকালও গাজীপুরের কাপাসিয়ায় হুমায়ুন নামের এক স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতাকে কুপিয়ে হত্যা করা হয়েছে। তিনি সদর ইউনিয়নের স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ছিলেন। গত বৃহস্পতিবার বেলা দেড়টার দিকে কুমিল্লা শহরে ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের সংঘর্ষে আহসান হাবিব সমু (৩৬) নামে এক যুবলীগ কর্মী নিহত হয়েছেন। তিনি স্থানীয় এমপি বাহারউদ্দিন বাহারের ভাতিজা। ওই ঘটনায় আহত হয়েছেন আরও দুজন। গত বৃহস্পতিবার রাজধানীর কাফরুলে মিজানুর রহমান (২৬) নামে এক যুবলীগ কর্মীর গলাকাটা লাশ পাওয়া গেছে। এর আগের তিন দিনেও লক্ষ্মীপুর ও নোয়াখালী মিলিয়ে আরও চারজনের লাশ পড়েছে। তারা সবাই ক্ষমতাসীন দলের নেতা-কর্মী।

গত ২৭ এপ্রিল দুপুরে নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের আওয়ামী লীগ সমর্থিত ২নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর ও প্যানেল মেয়র নজরুল ইসলাম, আইনজীবী চন্দন সরকারসহ সাতজন অপহৃত ও নির্মম হত্যাকাণ্ডের শিকার হন। এই সাতজনের পাঁচজনই সরাসরি আওয়ামী লীগের রাজনীতি করতেন। এ হত্যাকাণ্ড যারা ঘটিয়েছেন তারাও আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মী। সাত হত্যা মামলার প্রধান আসামি নূর হোসেন ছিলেন সিদ্ধিরগঞ্জ থানা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি। অপর আসামি ইয়াসীন আলীও থানা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক।

২০ মে ফুলগাজী উপজেলা চেয়ারম্যান ও আওয়ামী লীগ সভাপতি একরামুল হক একরামকে গুলি করে, কুপিয়ে ও গাড়িসহ পুড়িয়ে হত্যা করা হয়। এখন পর্যন্ত হত্যাকাণ্ডে জড়িত ও পরিকল্পনা করার দায়ে যাদের নাম এসেছে এবং যারা ধরা পড়েছে তাদের অধিকাংশই আওয়ামী লীগের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত। তবে অর্থ-অস্ত্রের জোগানদাতাসহ বিএনপি রাজনীতির সঙ্গে জড়িত আরও তিনজন গ্রেফতার হন। এখানেই শেষ নয়, আওয়ামী লীগ নেতা একরাম হত্যাকাণ্ড নিয়ে ক্ষমতাসীন দলের এমপি নিজাম উদ্দিন হাজারী ও সাবেক এমপি জয়নাল হাজারী রীতিমতো বিতর্কে জড়িয়ে পড়েছেন। এ ঘটনাতেও আওয়ামী লীগের ইমেজই সেখানে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। নেতা-কর্মীদের মধ্যে সৃষ্টি হয়েছে অবিশ্বাস, সন্দেহ আর পারস্পরিক কোন্দল।

২২ মে রাতে লক্ষ্মীপুরের রামগঞ্জ উপজেলার করপাড়া ইউনিয়ন স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক নূর হোসেনকে গুলি করে হত্যা করা হয়। পরদিন বৃহস্পতিবার লক্ষ্মীপুর সদরেই আরও দুই আওয়ামী লীগ নেতার রক্তাক্ত লাশ পাওয়া যায়। নিহতরা হলেন সদর উপজেলার চরশাহী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি আবদুল মান্নান ভূঁইয়া ও রায়পুর পৌরসভার ২ নম্বর ওয়ার্ডের সাধারণ সম্পাদক মো. আবদুল মজিদ। স্থানীয় সূত্রগুলো জানিয়েছে, এ খুনগুলোও দলীয় কোন্দলেরই ফল।

বগুড়ায় যুবলীগ কর্মী ফরহাদ হোসেন শিপলুকে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তির পর তিনি মারা যান। ২৪ মে রাতে সাতক্ষীরার দেবহাটা উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আবু রায়হানকে কুপিয়ে হত্যা করা হয়েছে। ১২ এপ্রিল সিলেটের ওসমানীনগরে নিজ কক্ষে ব্রাহ্মণশাসন উপজেলার উছমানপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক জবেদ আলী খুন হন। উপজেলা পরিষদ নির্বাচন চলাকালে ২৩ মার্চ মুন্সীগঞ্জের গজারিয়া উপজেলায় নির্বাচনী সহিংসতায় বালুয়াকান্দি ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি শামসুদ্দিন প্রধান গুলিতে নিহত হন। নির্বাচনের দিন সকাল ১০টায় সংঘটিত ওই হামলার ঘটনায় নিহত শামসুদ্দিনের ভাতিজা ও উপজেলা ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আলামিন প্রধান এবং ভাগনে জুয়েলও গুরুতর আহত হন। ১৭ মে দিনাজপুরের ঘোড়াঘাট উপজেলা আওয়ামী লীগের ১ নম্বর বুলাকীপুর ইউনিয়নের সেক্রেটারি বরাতীপুর মডেল স্কুলের শিক্ষক হুমায়ুন আহমেদকে পিটিয়ে হত্যা করে মুখোশধারীরা। ২৫ মে যশোরে স্থানীয় যুবলীগের সভাপতি আলমগীর হোসেনও নির্মম হত্যার শিকার হন।

২২ মে ঝিনাইদহের কালীগঞ্জে আওয়ামী লীগের অভ্যন্তরীণ কোন্দলের জের ধরে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আবদুর রউফকে কুপিয়ে ও গুলি করে হত্যা করা হয়েছে। চলতি বছরের ৬ মার্চ রাঙামাটির রাজস্থলী উপজেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি মংক্য মারমাকে গুলি করে হত্যা করা হয়। মংক্য রাজস্থলী উপজেলা পরিষদের নির্বাচনে সম্ভাব্য প্রার্থী ছিলেন। ৮ মার্চ গাজীপুরের কালিয়াকৈরে দলের দুই উপজেলা চেয়ারম্যান পদপ্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে ভয়াবহ সংঘর্ষ বাধে। এতে এক প্রার্থী মারা যাওয়ার ঘটনা ঘটে। ২৯ মার্চ নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জে সন্ত্রাসীদের গুলিতে নিহত হন চীন আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক জাহিদুল আলম মারুফ। এ হত্যাকাণ্ডের ব্যাপারে অভিযোগ উঠেছে চরপার্বতী ইউনিয়ন যুবলীগের বহিষ্কৃত সাধারণ সম্পাদক ইয়াসিন এবং একই ইউনিয়নের সাংগঠনিক সম্পাদক আজাদের বিরুদ্ধে। একই দিন নাটোরের সিংড়ায় সন্ত্রাসী হামলায় খুন হন আওয়ামী লীগ কর্মী আবু বক্কর সিদ্দিক। জাতীয় নির্বাচনের পর ৬ জানুয়ারি ঢাকা-১ (নবাবগঞ্জ-দোহার) আসনে নির্বাচনকে কেন্দ্র করে পাঁচজনকে কুপিয়ে হত্যা করে আওয়ামী লীগের ক্যাডাররা। নিহত পাঁচজনই ছিলেন আওয়ামী লীগ-যুবলীগ কর্মী। অভ্যন্তরীণ কোন্দলের পাশাপাশি প্রতিপক্ষ রাজনৈতিক দলের হাতেও আওয়ামী লীগের বেশ কিছু নেতা-কর্মী হত্যাকাণ্ডের শিকার হয়েছেন। তাদের সংখ্যাও অন্তত ২৫ জন বলে জানা গেছে। প্রতিপক্ষ রাজনৈতিক দল ও ক্যাডারদের হাতে সাতক্ষীরা, লক্ষ্মীপুর, দিনাজপুর, সিরাজগঞ্জ, ময়মনসিংহ, পাবনাসহ কয়েকটি জেলায় ও রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে ক্ষমতাসীন দলের নেতা-কর্মী হত্যাকাণ্ড ঘটে। এসব স্থানে প্রতিপক্ষের হামলায় পঙ্গুত্বের শিকারও হয়েছেন ২০ জনের বেশি।

উৎসঃ   বাংলাদেশ প্রতিদিন


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ