• সোমবার, ২৭ জুন ২০২২, ১১:৪০ পূর্বাহ্ন |
শিরোনাম :
পদ্মা সেতুর রেলিংয়ের নাট খোলা বায়েজিদ আটক নীলফামারী জেলা শিক্ষা অফিসার শফিকুল ইসলামের শ্বশুড়ের ইন্তেকাল সৈয়দপুর সরকারি বিজ্ঞান কলেজের গ্রন্থাগারের মূল্যবান বইপত্র গোপনে বিক্রি ফেনসিডিলসহ সেচ্ছাসেবক লীগের নেতা গ্রেপ্তার এ সেতু আমাদের অহংকার, আমাদের গর্ব: প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশ-ভারতে রেল যোগাযোগ বন্ধ থাকবে ৮ দিন পদ্মা সেতুর উদ্বোধন বাংলাদেশের জন্য এক গৌরবোজ্জ্বল ঐতিহাসিক দিন: প্রধানমন্ত্রী পদ্মা সেতুর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে যেতে মানতে হবে যেসব নির্দেশনা সৈয়দপুরে বিস্কুট দেয়ার প্রলোভনে শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগ গণমানুষের সমর্থনেই পদ্মা সেতু নির্মাণ সম্ভব হয়েছে: প্রধানমন্ত্রী

নিয়োগ প্রক্রিয়া আটকে থাকায় জনবল সংকটে সৈয়দপুর রেলওয়ে কারখানা

Railway Workshop Gateশাহজাহান আলী, সিসিনিউজ: জনবল সংকটের কারণে ধুকছে সৈয়দপুর রেলওয়ে কারখানাসহ গোটা রেলওয়ে খাত। ট্রেনের বগি মেরামতসহ ট্রেন পরিচালনায় বেসামাল হয়ে পড়েছে রেলওয়ে। জনবল নিয়োগ অতি জরুরী হলেও মামলার কারণে আটকে রয়েছে নতুন নিয়োগ। নিয়োগ প্রার্থীরা গত ৬ বছরে বিভিন্ন সময় আদালতে মামলা দেয়ায় সংকট তীব্র হয়ে উঠেছে। এসব মামলা নিষ্পত্তি না হওয়ায় জনবল নিয়োগ আটকা পড়েছে। সব মিলিয়ে ৯৩ ক্যাটাগরির ৯ হাজার ২১৮ জনের নিয়োগ প্রক্রিয়া আটকে রয়েছে। এসব নিয়োগের জন্য অধিকাংশ পদেই লিখিত ও মৌখিক পরীক্ষা শেষে প্রার্থীও চুড়ান্ত করে রেখেছে নিয়োগ কমিটি।
সূত্রে জানা যায়, সরকার ২০০৯ সালে ৪ হাজার জনবল নিয়োগের অনুমোদন দেয়। তৎকালীন সংস্থাপন (বর্তমান জনপ্রশাসন) মন্ত্রণালয়ের ছাড়পত্র না নেওয়া ও নিয়োগ বিজ্ঞপ্তির ক্ষেত্রে নির্ধারিত কোটা না মানায় ক্ষুব্ধ হয়ে কেউ কেউ সংস্থাপন মন্ত্রণালয়ে নিয়োগের অনিয়মের বিরুদ্ধে অভিযোগ দাখিল করে। পরে সংস্থাপন মন্ত্রণালয় তদন্ত সাপেে নিয়োগ কার্যক্রম বাতিল করে। সংস্থাপন মন্ত্রণালয়ের অনুমোদন নিয়ে ২০১০ সালে আবার নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি দিয়ে নতুন কমিটি গঠন করে রেলওয়ে। সে কমিটির বিরুদ্ধে অভিযোগ আসতে থাকে। প্রথম দফায় নিয়োগ বিজ্ঞপ্তিতে অংশ নেয়া প্রার্থীরা চাকরী না হওয়ার আশংকায় উচ্চ আদালতের শরণাপন্ন হয়। হাইকোর্ট ওই নিয়োগ প্রক্রিয়ায় স্থগিতাদেশ দেন। ২০১২ সালে আদলতের নিষেধাজ্ঞা উঠে গেলে আবারও শুরু হয় নিয়োগ প্রক্রিয়া। নিয়োগের দূর্নীতির কারণে পশ্চিমাঞ্চলের মহাব্যবস্থাপক সাময়িক বরখাস্ত হলে আবারও আদালতে রিট করেন কয়েকজন চাকরীপ্রার্থী।
সাম্প্রতিক সময়ে খালাসী ও এ্যাটেনডেন্ট পদে প্রায় ৫ হাজার ৭শ’ জনের নিয়োগ ৯টি রিটের কারণে আটকে আছে। যার কয়েকটি অবশ্য নিষ্পত্তি হয়েছে। ২০১২ সালের দায়ের করা ১টি ও ২০১২ সালে দায়ের করা ২টি রিট উচ্চ আদালতে নিষ্পত্তি হওয়ায় জট খুলতে শুরু করেছে। এর ফলে আগে প্রক্রিয়াকৃত ১  হাজার ৪৪১ জন খালাসী ও নতুন করে ৮৬৫ জন খালাসী নিয়োগের প্রক্রিয়া শুরু করেছে রেল কর্তৃপ। এছাড়া সহকারী ষ্টেশন মাস্টার (এএসএম) পদে ২০১৩ সালের দায়ের করা মামলার রিট হাইকোর্ট খারিজ করে দেওয়ায় ৩২ জন এএসএম নিয়োগ প্রক্রিয়া চলমান রয়েছে। এএসএম পদে আগে লিখিত পরীা নেওয়া হয়। বর্তমানে উত্তীর্ণদের মৌখিক পরীক্ষা নেওয়া হচ্ছে বলে সূত্র নিশ্চিত করেছে।
বাংলাদেশ রেলওয়ের মহাপরিচালক মোঃ তাফাজ্জল হোসেন বলেন, হাইকোর্টের রায়ের পর নিয়োগ প্রক্রিয়া শুরু করা হয়েছে। ৩টি রিট মামলা নিষ্পত্তি হওয়ায় খালাসী, সহকারী স্টেশন মাস্টার এবং সহকারী লোকোমোটিব মাস্টার পদে মোট ২ হাজার ৫৬৮ জন লোক নিয়োগের প্রক্রিয়া অব্যাহত আছে।
অপরদিকে মামলার কারণে রেলে জনবল নিয়োগ ও স্বাভাবিক কার্যক্রম বাধাগ্রস্থ হচ্ছে বলে মন্তব্য রেলওয়ের সংশ্লিষ্ট নিয়োগ কমিটির।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ