• সোমবার, ২৪ জানুয়ারী ২০২২, ০৯:১৩ পূর্বাহ্ন |

জলাতঙ্ক টিকা ক্রয়ে অনিয়ম

Screen-Shot-2014-06-01-at-9.31.40-PMসিসিনিউজ ডেস্ক: প্রায় দুই কোটি টাকা বেশি দাম দিয়ে জলাতঙ্ক রোগের টিকা ও অ্যান্টি-র‌্যাবিস ভ্যাকসিন কিনতে যাচ্ছে স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের অধিভুক্ত প্রতিষ্ঠান সেন্ট্রাল মেডিসিন স্টোরস ডিপো (সিএমএসডি)। সর্বনিম্ন দরদাতাকে বাদ দিয়ে সর্বোচ্চ দরদাতাকে সরবরাহের আদেশ দিয়ে সিএমএসডির কর্তারা নিয়ম ভেঙেছেন, সরকারের জারি করা অধ্যাদেশও মানেননি, উল্টো অদ্ভুত শর্ত জুড়ে দিয়েছেন টেন্ডার ডকুমেন্টে।
জলাতঙ্ক রোধে এক লাখ ৫৫ হাজার ভ্যাকসিন কেনার জন্য সরকার গত বছরের ১৩ নভেম্বর সিএমএসডি প্যাকেজ জি-১৩০৯-এর আওতায় একটি দরপত্র আহ্বান করে। ওই টেন্ডারে তিনটি প্রতিষ্ঠান অংশ নেয়। রেনাটা দর দিয়েছিল সাত কোটি ৪৪ লাখ টাকা। অন্য দুই প্রতিষ্ঠান ইনসেপ্টা এবং এস এস করপোরেশনের দর ছিল যথাক্রমে পাঁচ কোটি ৫৮ লাখ টাকা ও ছয় কোটি ৫৫ লাখ টাকা। সরকারি ক্রয়ের নিয়ম অনুযায়ী সর্বনি¤œ দরদাতাকে কার্যাদেশ দেয়া হয়। সে হিসেবে কাজটি পাওয়ার কথা ছিল ইনসেপ্টার, কিন্তু এক কোটি ৮৬ লাখ টাকা বেশি দর দিয়েও কাজটি পেয়ে গেছে রেনাটা।
ইনসেপটা জলাতঙ্ক রোগের টিকা বাংলাদেশে পর্যাপ্ত পরিমাণে উৎপাদন করলেও রেনাটা এ টিকা উৎপাদন করে না। রেনাটা দরপত্রে অংশ নিয়েছিল ভারতীয় কোম্পানি কাইরন বেরিং ভ্যাকসিনস প্রাইভেট লিমিটেডের পক্ষে। এটি নোভারটিসের একটি সহযোগী প্রতিষ্ঠান। রেনাটা ভ্যাকসিন সরবরাহ করবে ভারতীয় এ কোম্পানির পক্ষে; কিন্তু দেশেই পর্যাপ্ত পরিমাণে উৎপাদন হয়, এমন ওষুধ আমদানি না করার কঠোর নির্দেশ রয়েছে প্রধানমন্ত্রীর। ১৯৯৮ সালের ২ জুন প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের পরিচালক নীলুফার আহমেদ স্বাক্ষরিত পত্রে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ হিসেবে জানানো হয়, বিগত ১৭.০৫.৯৮ তারিখে বাংলাদেশ ওষুধ শিল্প সমিতির কার্যনির্বাহী পরিষদের প্রতিনিধিদের আলোচনাকালে উত্থাপিত বিষয়গুলোর ওপর প্রধানমন্ত্রী নিম্নলিখিত সিদ্ধান্ত দেন :
১. স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণ মন্ত্রণালয় কর্তৃক ‘স্থানীয়ভাবে পর্যাপ্ত পরিমাণে উৎপাদিত হয় এমন কোনো ওষুধ বিদেশ থেকে আমদানি করা যাবে না’ মর্মে যে প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়েছে, তা অবশ্যই প্রতিপালন করতে হবে।…’
এ প্রজ্ঞাপন অনুযায়ী রেনাটাকে সরবরাহের আদেশ দিয়ে প্রধানমন্ত্রীর কঠোর নির্দেশও অমান্য করেছে সেন্ট্রাল মেডিসিন স্টোরস ডিপো, সিএমএসডি।
সর্বনিম্ন দরদাতাকে কাজ দেয়া হলে প্রতি ভ্যাকসিনের ক্রয়মূল্য পড়ত ৩৬০ টাকা, কিন্তু সর্বোচ্চ দরদাতাকে কাজ দেয়ায় তা দাঁড়িয়েছে ৪৮০ টাকায়। এতে একটি ভ্যাকসিনের জন্য সরকারকে ১২০ টাকা বেশি ব্যয় করতে হবে।
সর্বনিম্ন দরদাতাকে কাজ না দিয়ে সর্বোচ্চ দরদাতাকে কেন কাজ দেয়া হলো  জানতে চাইলে সিএমএসডির পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মো. গোলাম রসুল বলেন, ‘অন্য দুটি প্রতিষ্ঠানের ভ্যাকসিন বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (ডাব্লিউএইচও) প্রি-কোয়ালিফিকেশনে টিকছে না, ফলে সর্বোচ্চ দরদাতাকে কাজ দেয়া হয়েছে। এ ছাড়া আর অন্য কোনো কারণ নেই।’
পরিচালকের বক্তব্য আপাত যুক্তিপূর্ণ মনে হলেও সংশ্লিষ্ট অনেকেই জানিয়েছেন, বিষয়টির মধ্যে শুভঙ্করের ফাঁকি রয়েছে। ভ্যাকসিন কেনার টেন্ডারের পাশাপাশি আরো অন্তত তিনটি ওষুধ কেনার টেন্ডারও একই সঙ্গে ডেকেছিল সিএমএসডি। অন্য কোনোটাতেই বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার সনদ থাকতে হবে, এমন কোনো শর্ত নেই। শুধু জলাতঙ্কের টিকাতেই এটি জুড়ে দেয়া হয় এবং সর্বোচ্চ দরদাতা রেনাটাকে কাজ পাইয়ে দেয়ার জন্যই কাজটি করা হয়। এস এস করপোরেশন ও ইনসেপ্টার কর্তৃপক্ষ জানাচ্ছে, শর্তটি একেবারেই অযৌক্তিক। টেন্ডারের আগে অনুষ্ঠিত প্রি-বিড মিটিংয়ে ইনসেপ্টা ও এস এস করপোরেশন এ শর্তটি নিয়ে আপত্তি তুললে সিএমএসডির পক্ষ থেকে জানানো হয়, এটি বাদ দেয়া হবে এবং এটাকে গুরুত্ব না দিলেও চলবে। তাদের এ আশ্বাসে আশ্বস্ত না হয়ে ইনসেপটা ওই শর্ত তুলে নেয়ার জন্য আনুষ্ঠানিকভাবে চিঠিও দেয় সিএমএসডি বরাবর। সেই চিঠিতে ইনসেপ্টা জানায়, ডিরেকটরেট জেনারেল অব ড্রাগ অ্যাডমিনিস্ট্রেশন (ডিজিডিএ) বিভিন্ন শর্তসাপেক্ষে প্রতিষ্ঠানটিকে বাংলাদেশে ওষুধ উৎপাদন ও বিক্রির অনুমতি দেয়। যেসব শর্ত আরোপ করা হয়েছিল তার কোনোটিতেই এটি উল্লেখ ছিল না যে, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার সনদ লাগবে। ওই চিঠিতে তারা আরো জানায়, ইনসেপ্টার উৎপাদিত ওষুধ ডিজিডিএ, বিজিবি ও আইসিডিডিআরবি কিনে থাকে। এমনকি খোদ বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থাও তাদের ওষুধ কেনে। তারাও নিজেদের সনদও চায় না।
এসব পরিস্থিতি বিবেচনায় অ্যান্টি-র‌্যাবিস ভ্যাকসিনের ক্ষেত্রে কেন এই শর্ত দেয়া হয়েছে  জানতে চাইলে গোলাম রসুল বলেন, ‘যেটির জন্য দরকার হয়, সেটির জন্য চাওয়া হয়। এটি সবাই বুঝবে না, কেন চাওয়া হয়েছে।’ এ বিষয়ে তিনি আর কোনো কথা বলতে রাজি হননি। এদিকে সরবরাহের কার্যাদেশ থেকে বঞ্চিত ইনসেপ্টা কর্তৃপক্ষ জানায়, তাদের চিঠির পরিপ্রেক্ষিতে সিএমএসডি কোনো জবাব দেয়নি।
সিএমএসডি অফিসের একটি সূত্র নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানিয়েছে, টেন্ডার আহ্বানের অনেক আগেই রেনাটার মাধ্যমে ভারতীয় বেরিং কোম্পানিকে কাজ দেয়ার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। ইনসেপ্টার যে হু-র সনদ নেই, সেটা জেনে-বুঝেই শুধু অ্যান্টি-র‌্যাবিশ ভ্যাকসিন ক্রয়ের ক্ষেত্রে শর্তটি জুড়ে দেয়া হয়েছিল। উৎস: অর্থনীতি প্রতিদিন


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ