• বৃহস্পতিবার, ৩০ জুন ২০২২, ০৪:০৮ পূর্বাহ্ন |

প্রসিকিউশন টিমে পরিবর্তন আসছে

Crime Tribunalসিসিনিউজ: আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালে প্রসিকিউশন টিমকে আরো গতিশীল করার উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। প্রসিকিউশন টিমে সমন্বয়হীনতা দূর করতে চিফ প্রসিকিউটরকে দীর্ঘ ছুটিতে রেখে ট্রাইব্যুনালে ভারপ্রাপ্ত চিফ প্রসিকিউটর নিয়োগের মাধ্যমে পরিবর্তন আনার চিন্তাভাবনা চলছে। সংশ্লিষ্ট সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।
ট্রাইব্যুনালে মামলা পরিচালনায় দুর্বলতা, অপরাপর প্রসিকিউটরদের মধ্যে সমন্বয়হীনতা ও অসুস্থতাসহ নানা কারণে ট্রাইব্যুনালের চিফ প্রসিকিউটর গোলাম আরিফ টিপুর ওপর ুব্ধ সরকার। এ ছাড়াও চিফ প্রসিকিউটর এক মাসের ছুটি শেষ করে আইন মন্ত্রণালয়ে কোনো রিপোর্ট করেননি। তাই চিফ প্রসিকিউটরকে দীর্ঘ ছুটিতে রেখেই এ টিমে পরিবর্তন আনার কাজ সম্পন্ন করতে উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। প্রসিকিউশন টিমের সদস্য সংযোজন-বিয়োজনের সম্ভাবনার কথা সূত্র উল্লেখ করেছে।
এ দিকে ট্রাইব্যুনালে প্রসিকিউশন টিমের প্রধান সমন্বয়কারী ও অতিরিক্ত অ্যাটর্নি জেনারেল এম কে রহমানকে অব্যাহতি দেয়ার পর এ পদে আরে কোনো আইনজীবী বা সমন্বয়কারী নিয়োগ দেয়া হবে না। তবে প্রসিকিউশন টিমকে সরকার সরাসরি তদারক করবে বলে জানা গেছে।
গত ১৩ এপ্রিল বিদেশে চিকিৎসার জন্য এক মাসের ছুটিতে যান গোলাম আরিফ টিপু। ২০ এপ্রিল প্রসিকিউটর সৈয়দ হায়দার আলীকে এক মাসের জন্য ভারপ্রাপ্ত চিফ প্রসিকিউটরের দায়িত্ব দেয় আইন মন্ত্রণালয়। এর পর থেকে রাষ্ট্রপরে আইনজীবীদের মধ্যে দ্বন্দ্ব দেখা দেয়। গত ১৫ মে জামায়াতের বিষয়ে তদন্তের সব নথি ভারপ্রাপ্ত চিফ প্রসিকিউটরের কাছে হস্তান্তরের নোটিশ দেয়া হলে মামলা পরিচালনার জন্য গঠিত আইনজীবীদের দলটি গত ১৯ মে অভিযোগ প্রস্তুতির কাজ বন্ধ করে দেয় এবং চিফ প্রসিকিউটর গোলাম আরিফ টিপুর জরুরি সিদ্ধান্ত ও নির্দেশনা চেয়ে চিঠি পাঠায়। এর মধ্যে অতিরিক্ত অ্যাটর্নি জেনারেল ও রাষ্ট্রপরে প্রধান সমন্বয়ক এম কে রহমানকে সরকার অব্যাহতি দেয়।
এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে আইনমন্ত্রী অ্যাডভোকেট আনিসুল হক নয়া দিগন্তের প্রতিবেদককে বলেন, প্রসিকিউশনকে গতিশীল করতে কিছু পরিবর্তন আনা হবে। ট্রাইব্যুনালে সমন্বয়কের আর প্রয়োজন নেই।
চিফ প্রসিকিউটর গোলাম আরিফ টিপু প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘আমি তো শুনেছি উনি অসুস্থ। ছয় মাসের জন্য ছুটি চেয়ে চিঠি পাঠানোর কথা। উনি ছুটি শেষ করে এসে মন্ত্রণালয়ে কোনো রিপোর্ট করেননি।’
এ দিকে একাত্তরে মানবতাবিরোধী অপরাধের বিচারে কোনো রাজনৈতিক দলকে শাস্তি দেয়ার বিধান ট্রাইব্যুনাল আইনে নেই, গত বৃহস্পতিবার গণমাধ্যমে দেয়া আইনমন্ত্রীর এমন বক্তব্যকে কেন্দ্র করে গণজাগরণ মঞ্চের ইমরানপন্থী অংশ এবং একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটিসহ বিভিন্ন সংগঠনের নেতৃবৃন্দ ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। মন্ত্রীর এ বক্তব্য প্রত্যাহারের দাবি জানিয়েছেন নেতৃবৃন্দ। এ দাবি মানা না হলে আগামী ২ জুন তারা আইন মন্ত্রণালয়ের সামনে অবস্থান কর্মসূচির ঘোষণা দেন। এ নিয়ে আইনমন্ত্রী সংগঠনগুলোর চাপে রয়েছেন।
এ প্রসঙ্গে একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির ভারপ্রাপ্ত সভাপতি শাহরিয়ার কবির গত শুক্রবার গণমাধ্যমকে বলেছেন, দেশে-বিদেশে যুদ্ধাপরাধের বিচার সম্পর্কে আইনমন্ত্রীর বিন্দুমাত্র ধারণা থাকলে আইনমন্ত্রী এ কথা বলতেন না। এই আইনের আওতায় অপরাধী সংগঠনকে সাজা দেয়া যায় কি না, এটা আইনমন্ত্রী বা সরকারের না, ট্রাইব্যুনালের এখতিয়ার। তার উচিত রাষ্ট্রপরে আইনজীবীদের কোন্দল নিয়ে মাথা ঘামানো। জামায়াতের বিরুদ্ধে নিবন্ধনের মামলা ও সংগঠন হিসেবে মামলা দু’টি সম্পূর্ণ আলাদা বিষয়। আইনমন্ত্রীর এ বক্তব্যে বিচারের ব্যাপারে মানুষের কাছে ভুল সঙ্কেত যাচ্ছে বলে তিনি উল্লেখ করেন।  নয়াদিগন্ত


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ