• সোমবার, ২৭ জুন ২০২২, ০৫:১৭ অপরাহ্ন |

৭ খুন: অপহরণে অংশ নেন রানা ও আরিফ

Maderসিসিনিউজ: নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের প্যানেল মেয়র নজরুল ইসলাম ও আইনজীবী চন্দন সরকারসহ সাতজনকে অপহরণে অংশ নেন সদ্য সাবেক লে. কমান্ডার এমএম রানা ও মেজর আরিফ হোসেন। ঘটনা সম্পর্কে অবহিত ছিলেন র‌্যাব-১১-এর সদ্য সাবেক অধিনায়ক লে. কর্নেল তারেক সাঈদ মোহাম্মাদ। অপারেশনে দুটি মাইক্রোবাসে ১৮ জন অংশ নেয়। নারায়ণগঞ্জের সাত খুনের ঘটনায় গ্রেফতার হয়ে রিমান্ডে থাকা র‌্যাবের সাবেক তিন কর্মকর্তাকে জিজ্ঞাসাবাদে এমন সব তথ্য বেরিয়ে এসেছে। ঘটনার দিন আদালত থেকে অপারেশনের অপেক্ষায় থাকা দলটিকে নিয়মিত তথ্য দেন প্যানেল মেয়র নজরুল ইসলামের পিছু নেওয়া এক র‌্যাব সদস্য। নিজের পরিচয় আড়াল করতে যিনি লম্বা জোব্বা ও মাথায় পাগড়ি পরেছিলেন। নজরুলের সহযোগীদের সন্দেহ হলে তারা কামালউদ্দিন নামের ওই র‌্যাব সদস্যকে অস্ত্রসহ আটক করে কোর্ট পুলিশের কাছে দিয়েছিলেন। পরে তিনি নিজের পরিচয় দিয়ে কোর্ট পুলিশের কাছ থেকে ছাড়া পান। সেনাবাহিনী থেকে চাকরিচ্যুত র‌্যাবের সাবেক তিন কর্মকর্তাকে জিজ্ঞাসাবাদের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট একটি সূত্র জানায়,

তদন্তের প্রায় ৭০ ভাগ শেষ হয়েছে। কিছু প্রশ্নের উত্তর খোঁজা হচ্ছে। সংগ্রহ করার চেষ্টা হচ্ছে আরও কিছু সাক্ষ্য-প্রমাণ। এ ঘটনার অনেক দালিলিক প্রমাণ, যেমনথ কথোপকথনের অডিও রেকর্ড তদন্তকারীদের হাতে রয়েছে।

মানুষ বেশি, আরও ফোর্স লাগবে
তদন্ত-সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, পরিকল্পনা অনুযায়ী শুধু প্যানেল মেয়র নজরুল ইসলাম ও তার গাড়ির চালককে তুলে নেওয়ার কথা ছিল। সে জন্য ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ লিংক রোডের খানসাহেব ওসমান আলী স্টেডিয়ামের ময়লার স্তূপের সামনে একটি মাইক্রোবাস নিয়ে অপেক্ষায় ছিলেন নারায়ণগঞ্জ শহরের পুরনো কারাগারে অবস্থিত র‌্যাব-১১-এর ক্রাইম প্রিভেনশন স্পেশাল কোম্পানি-১-এর সদ্য সাবেক অধিনায়ক লে. কমান্ডার এমএম রানাসহ কয়েকজন র‌্যাব সদস্য। আদালত থেকে সোর্সের মাধ্যমে খবর আসে, নজরুল ইসলামের সঙ্গে ১৪-১৫ জনের একটি দল রয়েছে। সোর্সের মাধ্যমে এ খবর পেয়ে রানা মেজর আরিফকে বার্তা পাঠানথ মানুষ বেশি, আরও ফোর্স লাগবে। এ খবর পেয়ে আরিফ নিজেই অপর একটি মাইক্রোবাসে ফোর্স নিয়ে অপারেশনের জন্য অপেক্ষারত দলটির সঙ্গে যোগ দেন।

এদিকে, আদালতে নজরুলকে অনুসরণ করতে গিয়ে তার সহযোগীদের হাতে ধরা পড়ে যান র‌্যাব সদস্য কামালউদ্দিন। এ বিষয়টিও জানানো হয় অপারেশনে অংশ নেওয়া সদস্যদের। দুপুর সোয়া ১টা থেকে দেড়টার মধ্যে একটি সাদা রঙের প্রাইভেটকারে করে তিন বন্ধু তাজুল ইসলাম, মনিরুজ্জামান স্বপন ও সিরাজুল ইসলাম লিটনকে নিয়ে ঢাকার উদ্দেশে রওনা দেন নজরুল ইসলাম। খানসাহেব ওসমান আলী স্টেডিয়ামের ময়লার স্তূপের সামনে আসামাত্র র‌্যাব সদস্যরা গাড়ির গতি রোধ করে তাদের অস্ত্রের মুখে মাইক্রোবাসে তুলে নেন।

সাহসই কাল হলো আইনজীবী চন্দন সরকারের
পরিকল্পনা ছিল, নজরুল ইসলামের সঙ্গে যাদের পাওয়া যাবে, সবাইকে তুলে আনা হবে। তাহলে আইনজীবী চন্দন সরকার ও তার গাড়ির চালকের কী দোষ? মামলার তদন্তসংশ্লিষ্ট সূত্রটি জানিয়েছে, চন্দন সরকার টার্গেট ছিলেন না। তিনি দূর থেকে র‌্যাব সদস্যরা কিছু মানুষকে একটি প্রাইভেটকার থেকে তুলে নিচ্ছে দেখতে পেয়ে ওই দৃশ্যের ভিডিওচিত্র তার মোবাইল ফোনে ধারণ করছিলেন। এটি অপারেশনের সময় সতর্ক পাহারায় থাকা র‌্যাব সদস্যরা দেখে ফেলে চন্দন সরকারের গাড়িটিরও গতিরোধ করেন এবং একইভাবে চন্দন সরকার ও তার গাড়ির চালক ইব্রাহিমকেও তুলে নিয়ে যান। তাদের ধারণা ছিল, চন্দন সরকার কোনো না কোনোভাবে নজরুল ইসলামের সঙ্গে জড়িত এবং তার লোক। তারা এ ঘটনার কোনো প্রত্যক্ষদর্শী বা প্রমাণ রাখতে চাননি। অপহরণ ঘটনার ভিডিও ধারণ করার কারণেই চন্দন সরকার ও তার গাড়ির চালকেরও একই অবস্থা হয়েছে।
সৌজন্যে- সমকাল অনলাইন


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ