• শনিবার, ২৯ জানুয়ারী ২০২২, ১২:৪১ পূর্বাহ্ন |

দিনাজপুরে খুন গুম ও অপহরণ বাড়ছেই

Opoসিসিনিউজ: দিনাজপুরে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ে উদ্বিগ্ন এলাকাবাসী। দিনাজপুরের সদর, কাহারোল, বীরগঞ্জ ও খানসামা উপজেলায় কিছু দিনের ব্যবধানে একের পর এক এসব অপহরণের ঘটনা ঘটেছে। ইতোমধ্যে মুক্তিপণের ৫০ লাখ টাকা না দেয়ায় প্রাণ হারিয়েছে মুরসালিন নামে নবম শ্রেণীর এক ছাত্র। মুরসালিনের লাশ ও কাহারোলের কম্পিউটার টেকনিশিয়ান জুয়েল জীবিত উদ্ধার হলেও জেলায় এখনো নিখোঁজ রয়েছেন দু’জন। এত কিছুর পরও অপহরণকারী তথা অপরাধীরা থেকে যাচ্ছে ধরাছোঁয়ার বাইরে।

স্কুলছাত্র মুরসালিনের লাশ উদ্ধার ও অপর তিনজন নিখোঁজের ঘটনায় দিনাজপুর আতঙ্ক ও ভীতির শহরে পরিণত হয়েছে। অপহরণের চার দিন পর ২৬ মে ভোরে সদর উপজেলার আউলিয়াপুর ইউনিয়নের মহব্বতপুর গ্রামের দলিল লেখক মোকসেদুল ইসলামের ছেলে ও চেরাডাঙ্গী উচ্চবিদ্যালয়ের নবম শ্রেণীর ছাত্র মুরসালিনের লাশ বাড়ির পাশের রাস্তা থেকে উদ্ধার করা হয়। নিহত মুরসালিন গত ২২ মে বিকেলে অপহৃত হয়। অপহরণকারীরা ৫০ লাখ টাকা দাবি করেছিল বলে জানান তার স্বজনেরা।
এ ঘটনায় দিনাজপুর কোতোয়ালি থানার ওসি আলতাফ হোসেন জানান, অপহরণকারীরা মুরসালিনকে হত্যা করে বাড়ির পাশে ফেলে রেখে যায়। ঘটনার সাথে জড়িত সন্দেহে প্রাথমিকভাবে একই গ্রামের ওবায়দুর রহমান (৫৫), তার স্ত্রী রওশন আরা (৪২), মেয়ে ওয়াসিয়া (১২), ওবায়দুর রহমানের শাশুড়ি মালেকা বেগম (৬৫) ও রশিদুল ইসলামকে (২০) আটক করা হয়েছে। এ ব্যাপারে থানায় হত্যা মামলা দায়ের করা হয়েছে।
এ দিকে খানসামা উপজেলার পাকেরহাট মহিলা কলেজের দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্রী মানতাসা খাতুন চৌধুরীকে বাড়ি থেকে কলেজে যাওয়ার পথে অপহরণ করা হয়। গত ২৪ মে দিনাজপুরের খানসামা উপজেলার ২ নং ভেড়ভেড়ি ইউপির ভেড়ভেড়ি গ্রামের মো: হাফিজুল হক চৌধুরীর দ্বিতীয় মেয়ে পাকেরহাট মহিলা কলেজের দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্রী সকালে কলেজে যাওয়ার পথে অপহৃত হয়। এলাকাবাসী জানান, গ্রামের মমতাজ উদ্দিনের ছেলে নুর ইসলাম ও তার ভাই নুরুজ্জামান গং মাইক্রোবাসযোগে রাস্তা থেকে তাকে তোলে নিয়ে যায়। অপহরণকারীর চাচা সমসেদ আলী ও হাসেন আলী ০১৭১৩৭০৩৪০৬ নম্বর ব্যবহার করে মেয়ের বাবার কাছ থেকে ১০ লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবি করে নানা রকম হুমকি দিচ্ছে বলে জানিয়েছেন মেয়ের বাবা।
খানসামা থানার ওসি কৃষ্ণ রায় জানান, মানতাসার বাবা হাফিজুল হক চৌধুরী ঘটনার দুই দিন পর চারজনকে আসামি করে খানসামা থানায় একটি অপহরণ মামলা দায়ের করেছেন। মামলায় আসামি করা হয়েছে নূর হোসেন ও তার বাবা-মা এবং দুলাভাইকে। ওসি কৃষ্ণ রায় আরো বলেন, ১ জুন রোববার পর্যন্ত কাউকে গ্রেফতার করা যায়নি। তবে জোর তৎপরতা চলছে।
এর আগে কাহারোল উপজেলা ইউএনও অফিসের কম্পিউটার টেকনিশিয়ান মো: জুয়েল (৩০) গত ১৪ মে উপজেলা অফিস থেকে দুপুরে বাড়িতে যাওয়ার সময় নিখোঁজ হন। একটি চক্র তার পরিবারের কাছে মুক্তিপণের টাকা দাবি করে। এ ব্যাপারে জুয়েলের বাবা আনিছুর রহমান কাহারোল থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। পরে ২৪ ঘণ্টা পর জুয়েলের সন্ধান মিললেও এ ঘটনায় জড়িত কাউকেই গ্রেফতার করা হয়নি।
অন্য দিকে এসব ঘটনার আগে বীরগঞ্জে একটি অপহরণের ঘটনায় পুলিশের রহস্যজনক ভূমিকায় শঙ্কিত হয়ে পড়েন এলাকাবাসী। অপহরণের ঘটনাটি পুলিশ বর্তমানে অন্য দিকে প্রবাহিত করার চেষ্টা চালাচ্ছে বলে পরিবারে প থেকে অভিযোগ করা হয়েছে। মামলা হলেও পুলিশ কাউকে গ্রেফতার করছে না। উপজেলার মোহনপুর ইউনিয়নের মাটিয়াকুড়া গ্রামের কাসেম আলীর মেয়ে ও মাটিয়াকুড়া উচ্চবিদ্যালয়ের নবম শ্রেণীর ছাত্রী রুমি আক্তার গত ৩০ এপ্রিল সকালে পাশের আদিবাসী নরেন টুডুর মেয়ে মুক্তি টুডুকে (১৭) বাড়ি থেকে কসমেটিকস কেনার জন্য বাজারে নিয়ে যায়। তারা রাতেও বাড়িতে না পৌঁছায় গত ১ মে নরেন টুডু বীরগঞ্জ থানায় সাধারণ ডায়েরি করেন। ৭ মে দিনাজপুর প্রথম শ্রেণীর জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আমলি আদালত-২-এ (বীরগঞ্জ) নরেন টুডু বাদি হয়ে রুমির বাবা আবুল কাসেম ও মাতা লাইলী বেগম এবং রুমি আক্তারকে আসামি করে একটি অপহরণ মামলা দায়ের করেন। নরেন টুডু জানান, থানার আইওর যোগসাজশে এলাকার ফয়জল, বারেক ও জাহিদুল মামলা তুলে নেয়ার জন্য তাকে হুমকি প্রদান করলে তিনি ২০ মে মামলার আইও এবং ইউপি সদস্য ডা: রইসুল ইসলামকে আসামি করে আদালতে অপর একটি মামলা দায়ের করেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ