• সোমবার, ২৪ জানুয়ারী ২০২২, ১০:৩৪ পূর্বাহ্ন |

সীমান্তে বিজিবির শক্তি বৃদ্ধি, মাইন পুতেছে মিয়ানমার

Ctg news 1 pic 2 (2)সিসিনিউজ: বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ি সীমান্তে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের (বিজিবি) নায়েক সুবেদার মিজানুর রহমান মিয়ানমার বর্ডার গার্ড পুলিশের (বিজিপি) গুলিতে নিহত হওয়ার ঘটনায় বাংলাদেশ-মিয়ানমার সীমান্তে দু’পক্ষই শক্তি বৃদ্ধি করেছে।
যে কোনো পরিস্থিতি মোকাবেলায় সীমান্ত জুড়ে অতিরিক্ত বিজিবি সদস্য মোতায়েন করা হয়েছে।
এদিকে কক্সবাজারের টেকনাফ উপকূলের অদূরে বাংলাদেশি জলসীমার কাছাকাছি তিনটি যুদ্ধজাহাজ মোতায়েন করেছে মিয়ানমার।
পাল্টা জবাবে বাংলাদেশও জলসীমায় যুদ্ধজাহাজ মোতায়েন করেছে। তবে মিয়ানমারের যুদ্ধজাহাজ সরিয়ে নিয়েছে বলে জানা গেছে।
প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়, ৫২, ৫০, ৫১সহ কয়েকটি সীমান্ত পয়েন্টে মায়ানমার সীমান্তরক্ষী বাহিনী মাইন পুতে রাখে। মাইনগুলি বিজিবি ও স্থানীয় জনসাধারণের সহায়তায় মাটি থেকে তুলে নেওয়া হচ্ছে।
এ বিষয়ে বান্দরবান জেলা প্রশাসক কেএম তারিকুল ইসলাম বলেন, ‘মিয়ানমার গায়ে পড়ে কিছু করার চেষ্টা করলে আমরাও তার কড়া জবাব জানাতে প্রস্তুত।
তিনি বলেন, সীমান্ত এলাকায় যে পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়েছে সে জন্য মিয়ানমার সরকার দায়ী। এ মুহুর্তে কূটনৈতিক পর্যায়ে ঢাকা ও মিয়ানমারে পৃথক বৈঠকের মাধ্যমে একটি সুষ্ঠু সমাধানের প্রক্রিয়া চালাচ্ছে সরকার।
এর আগে চট্টগ্রাম রিজিওন কমান্ডার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল সৈয়দ আহাম্মদ আলী সাংবাদিকদের জানান, মিয়ানমার সীমান্তরক্ষী বাহিনী বিনাউস্কনীতে গুলি চালিয়েছে। এ জন্য তাদের জবাবদিহি করতে হবে।
ভবিষ্যতে এ ধরনের ঘটনার কঠোর প্রত্যুত্তর দেওয়া হবে বলে জানান তিনি।
সীমান্তের নির্ভরযোগ্য সূত্রে জানা গেছে, নাইক্ষ্যংছড়ি, উখিয়া ও টেকনাফ সীমান্তের বিপরীতে বিজিপির পাশাপাশি মিয়ানমার অতিরিক্ত সেনা মোতায়েন করেছে। তারা সীমান্ত এলাকায় বসবাসরত রোহিঙ্গাদের নিরাপদ স্থানে সরে যেতে নির্দেশ দিয়েছে। যার ফলে মংডু শহরে সীমান্ত এলাকায় বসবাসকারী ওয়ালিদং, ফকিরাবাজার, সাহাব বাজার, তুমব্রু, ঢেকিবনিয়া, নাইচাদং, পেডানপুরো, বলিবাজারসহ প্রভৃতি গ্রামের রোহিঙ্গা মুসলমানদের মাঝে উদ্বেগ-উৎকন্ঠা ও আতঙ্ক বিরাজ করছে।
নাইক্ষ্যংছড়ি ৩১ বিজিবির অধিনায়ক লেঃ কর্নেল শফিকুর রহমান জানান, সীমান্ত জুড়ে অতিরিক্ত বিজিবি সদস্যদের কঠোর নজরদারিতে রাখা হয়েছে।
মিয়ানমারের অভ্যন্তরে সেনা মোতায়েনের কথা স্বীকার করে তিনি বলেন, তারা এখনো সীমান্ত এলাকায় সেনা শক্তি বৃদ্ধি করে একটি অস্থিতিশীল পরিস্থিতি সৃষ্টির চেষ্টা চালাচ্ছে।
কক্সবাজার ১৭ বিজিবির অধিনায়ক লেঃ কর্নেল খন্দকার সাইফুল আলম বলেন, সীমান্ত পরিস্থিতি অপরিবর্তিত রয়েছে।
তিনি বলেন, ৫ জুন সেক্টর কমান্ডার পর্যায়ে বৈঠক হওয়ার কথা রয়েছে। ওই বৈঠকে বিজিবি কর্মকর্তা নিহত হওয়ার বিষয়ে মিয়ানমার থেকে জবাব চাওয়া হবে।
টেকনাফ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শাহ মুজাহিদ উদ্দীন জানান, সেন্টমার্টিন ও শাহপরীরদ্বীপ এলাকার মাঝামাঝি জল সীমানায় মিয়ানমারের নৌ-বাহিনীর একটি জাহাজ অবস্থান করছে। খবর পেয়ে বাংলাদেশ নৌ-বাহিনীর একটি জাহাজও জল সীমানায় অবস্থান করছে।
প্রসঙ্গত, ২৮ মে সকালে বিজিবির সদস্যরা বাংলাদেশ সীমান্তের পাইনছড়ি এলাকায় টহল দিচ্ছিলেন। এ সময় বিজিপি সদস্যরা তাদের লক্ষ্য করে গুলিবর্ষণ করে। এতে বিজিবি সদস্য নায়েক সুবেদার মিজানুর রহমান গুলিবিদ্ধ হয়ে মারা যান।
উৎসঃ   দ্য রিপোর্ট২৪


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ