• সোমবার, ২৪ জানুয়ারী ২০২২, ১০:০৬ পূর্বাহ্ন |

পাসপোর্টের নাম স্বাধীনতা

Toslimaতসলিমা নাসরিন: ক’দিন আগে প্যারিসে একটা চমৎকার উৎসবে অংশ নিয়েছি। উৎসবটা সর্বজনীন নাগরিকত্বের। পৃথিবীর সব নাগরিকের জন্য এই সর্বজনীন ছাড়পত্রের স্বপ্ন আমরা দেখছি। এই ছাড়পত্র বা পাসপোর্ট পৃথিবীর যে কোনও জায়গায় ভ্রমণ করার আর যেখানে খুশি সেখানে বসবাস করার স্বাধীনতা দেয়। এই পাসপোর্টের অপর নাম স্বাধীনতা। এই পাসপোর্টে পাসপোর্টের নম্বর, ব্যক্তির নাম আর বয়স ব্যতীত আর কিছুর তথ্য নেই। ব্যক্তির জন্ম কোন দেশে, কোথায় থাকা হয়, কোন ধর্মে বিশ্বাস, বাপের নাম কী, গায়ের রং কী, চোখের রং কী ইত্যাদি কিছুরই উল্লেখ নেই। এটি প্রতীকী পাসপোর্ট। এই পৃথিবী সব মানুষের, ধনী দরিদ্র, কালো সাদা, নারী পুরুষ, সবার। এই পৃথিবীতে ভ্রমণ করতে গেলে কোনও মানুষেরই কোনও পাসপোর্ট, যে অর্থে আজকের দুনিয়ায় পাসপোর্ট থাকে, থাকা উচিত নয়। আমি সর্বজনীন ছাড়পত্র বা ইউনিভার্সাল পাসপোর্ট পেয়েছি গত বছর, ইউনেস্কো ভবনে ছিল পাসপোর্ট বিতরণ অনুষ্ঠান। কয়েকজন স্বপ্নবান স্বাধীনতাপ্রাণ মানুষকে এই পাসপোর্ট দেওয়া হয়েছে। এই অসাধারণ পাসপোর্টটি পেয়ে আমি এমনই সম্মানিত বোধ করেছি, মনে হয়েছে, এতকাল যে মানবাধিকারের কথা বলে এসেছি, জীবনের ঝুঁকি নিয়ে বলে এসেছি, এতকাল যে সমতার একটি পৃথিবীর স্বপ্ন দেখেছি, প্রতিবাদ করেছি দেশে দেশে যে জাতীয়তাবাদ, মানুষে মানুষে বিভেদ, দেশ ভাগ করার যে সীমানা, যে কাঁটাতার… তার, তার সামান্য কোনও স্বীকৃতি বেঁচে থাকতে সম্ভবত আমার পাওয়া হল। বেঁচে থাকাকালীন খিস্তি খেউর ছাড়া বেশির ভাগ স্বপ্নবান মানুষের আর কিছু জোটে না। আমিও কি কম লাঞ্ছিত হয়েছি। সেই কৈশোর থেকে আমি লিখেছি দুই বাংলার মাঝখানে যে ধর্ম আর রাজনীতির কাঁটাতার, তার বিপরীতে, সে কারণে আমাকে ভারতের দূত বলা হয়েছে। লিখেছি ইউরোপের নারীদের সমানাধিকারের পক্ষে, সে কারণে আমাকে পাশ্চাত্যের দালাল বলা হয়েছে। মুসলিম মৌলবাদের প্রতিবাদ করেছি, আমাকে বলা হয়েছে আমেরিকার চর। সর্বজনীনতা, সমানাধিকার, সমতা, সহমর্মিতা, এসব শব্দ ক্ষুদ্র-মানুষদের অভিধানে নেই। জাতীয়তাবাদ মানুষকে ক্ষুদ্র করে তোলে। অকারণ অহমিকা মানুষকে শুষ্ক বানিয়ে ফেলে। দেশ জুড়ে এই ক্ষুদ্র-শুষ্ক-কবন্ধ মানুষেরই আস্ফালন। আর আমরা স্বপ্নবান মানুষেরা হয় কারাগারে, নয় দেশান্তরী, নয় মৃত।

প্যারিসে এবার আমাদের উৎসব হলো প্যারিসের টাউন হলে। ফরাসি ভাষায় টাউন হলকে বলা হয় ‘হোটেল দ্য ভিল’। পৃথিবীর যত টাউন হল আছে, তার মধ্যে সবচেয়ে সুন্দর প্যারিসের টাউন হল। এ আমি কোনও রকম দ্বিধা ছাড়াই বলতে পারি। এই টাউন হলে এর আগেও আমি গিয়েছি, প্যারিসের মেয়র জ্যাক শিরাখের আমন্ত্রণে, প্রায় কুড়ি বছর আগে। তিনি আমাকে ভলতেয়ারের পাঁচটি বই উপহার দিয়েছিলেন, সেই সতেরো সালে প্রকাশ হওয়া বই, এখনকার বইয়ের চেয়ে অনেক ছোট, রেঙ্নি বাঁধাই। সেই বইগুলো আমার মূল্যবান সম্পত্তির মধ্যে অন্যতম। দ্বিতীয়বার টাউন হলে গিয়েছিলাম কয়েক বছর আগে, যখন প্যারিসের মেয়র, টাউন হলে একশ আশি সদস্যের হ্যাঁ ভোট নিয়ে আমাকে প্যারিসের সম্মানীয় নাগরিক ঘোষণা করেছিলেন। এবার সেই টাউন হলেই উৎসব হলো সর্বজনীন নাগরিকত্বের। আমার হাত দিয়ে সর্বজনীন পাসপোর্ট দেওয়া হল জার্মান রাজনীতিক ডানিয়েল কন বেনডিটকে। টাউন হলের বাইরে সাধারণ মানুষকে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে যে কেউ এসে পাসপোর্টের ছবি তুলে সেঁটে দিতে পারে দেওয়ালে। শত শত সাদা কালো বাদামী হলুদ মানুষ ভিড় করে উৎসবে যোগ দিয়েছে।

আমি একা নই, ইউটোপিয়ায় বিশ্বাসী আমার মতো কিছু স্বপ্নবান মানুষ নিজেদের উদ্যোগে গড়ে তুলেছে বেশ কয়েকটি সংগঠন। এরাও কোনও দেশের সীমানায় বা ভিসা পাসপোর্টে বিশ্বাস করে না, বিশ্বাস করে পৃথিবীর প্রতিটি মানুষের অবাধ চলাফেরার, স্থানান্তরিত হওয়ার, পছন্দের জায়গায় বাস করার অধিকারে। কাউকে কোনও কৈফিয়ত দিতে হবে না কেন সে স্থান বদল করতে চাইছে, কেন সে এক জায়গা ছেড়ে আরেক জায়গায় বাস করতে চাইছে। মানুষ তার শুরু করে, শত সহস্র বছর ধরে জায়গা পরিবর্তন করছে ভালো জীবন যাপনের আশায়, বাঁচার আশায়। জায়গা পরিবর্তন করেছে বলেই ‘হোমোসাপিয়ান’ নামের এই মানুষ প্রজাতি আজও টিকে আছে, জায়গা পরিবর্তন করেনি বলেই নিয়ানডার্থাল নামের মানুষ প্রজাতি আজ টিকে নেই, প্রজাতিসুদ্ধ বিলুপ্ত হয়ে গেছে। আমি বলছি না, আজ যদি চলাফেরার স্বাধীনতায় বাধা দেওয়া হয় আমাদের, আমরাও বিলুপ্ত হয়ে যাবো। আমরা হয়তো এ কারণে বিলুপ্ত হব না, আমাদের বিলুপ্ত হওয়ার আরও অন্য কারণ আছে। আমরা আমাদের বিলুপ্ত করার জন্য পারমাণবিক অস্ত্র বানিয়েছি, খুব বেশি কিছু কি আর প্রয়োজন! আমরা সভ্যতার নামে নিজেদের মৌলিক স্বাধীনতা বিসর্জন দিয়েছি, অধিকারকে শৃংখলিত করেছি। যত সভ্য হচ্ছি আমরা, যত বড় হচ্ছি, তত আমরা আমাদের ক্ষুদ্র গণ্ডি থেকে বেরিয়ে আসবো, এই তো স্বাভাবিক। কিন্তু ক্ষুদ্রাতিক্ষুদ্র গণ্ডিতে নিজেদের শারীরিক এবং মানসিকভাবে আবদ্ধ করে রাখলে দিন দিন আরও ক্ষুদ্র হওয়ার আশংকা থাকে। আশংকা বারবার সত্যি প্রমাণিত হচ্ছে।

সেই কবে ভারত ভাগ হয়েছে শান্তির আশায়। শান্তি কিন্তু আসেনি। ভারত আর পাকিস্তানের সীমান্তে অশান্তি লেগেই আছে। ভারত আর পাকিস্তানের সীমান্তে গুলি চলে, মানুষ মরে, অশান্তি আরও বাড়ে। পশ্চিমবঙ্গ আর বাংলাদেশ সীমান্তেও মানুষকে হত্যা করা হয়। মানুষের মধ্যে তৈরি করা হয়েছে কৃত্রিম বিভেদ। এই বিভেদ টিকিয়ে রাখতে তৈরি করা হয়েছে বর্ণবাদ, জাতিবাদ, ধনী-দরিদ্রের, নারী-পুরুষের, কালো-সাদার বৈষম্য। শুনছি বাংলাদেশ আর মায়ানমারের সীমান্তে গুলি চলছে, মানুষ মরছে। দুই দেশই কম যায়না মানুষ হত্যায়। যারা মরছে, তারা নিশ্চয়ই নিরীহ ছাপোষা মানুষ। মায়ানমারের বেশির ভাগ মানুষ বৌদ্ধ ধর্মে বিশ্বাসী। এই বৌদ্ধ ধর্মকে শান্তির ধর্ম বলা হয়। অথচ বৌদ্ধরাই রোহিঙ্গা মুসলিমদের অত্যাচার করছে। খুন করছে। ঠেলে ধাক্কিয়ে সীমান্তের ওপারে পাঠিয়ে দিচ্ছে রোহিঙ্গাদের। জাতিসংঘের মানবাধিকার বা শরণার্থী অধিকারের আইনের মোটেও পরোয়া করে না মায়ানমার। অবাক হই, আং সান সুকিও তুচ্ছ রাজনৈতিক স্বার্থে মুখ বুজে থাকেন যখন তার দেশে মানবাধিকার লঙ্ঘন করা হয়। ভাবতে অবাক লাগে এই আং সান সুকি শান্তির জন্য নোবেল পুরস্কার পেয়েছিলেন। তাঁর জীবন কাহিনী নিয়ে তৈরি করা চলচ্চিত্র ‘দ্য লেডি’ দেখে মুগ্ধ হয়েছিলাম। এখন সন্দেহ হয়, চলচ্চিত্রে যেভাবে আং সান সুকিকে মহান বানানো হয়েছে, বাস্তবে তিনি আদৌ ততটুকু মহান কিনা। শেখ হাসিনা ওই একই পদের। দক্ষিণ এশিয়ায় কোনও রাজনীতিক নেই, যাকে বলতে পারি নির্লোভ, সৎ, নির্ভীক, যে সত্যিকারের জনগণের সেবক, দেশের সত্যিকারের ভালো চায়।

রাজনীতি আজকাল খুব খারাপ জিনিস হয়ে দাঁড়িয়েছে। এ কেবল মানুষকে শোষণ করার, মানুষকে নির্যাতন করার, মানুষকে বোকা বানিয়ে রাখার, মানুষকে জাতীয়তাবাদের আফিম খাওয়ানোর, মানুষকে মিথ্যে অহমিকায় বুঁদ রাখার, প্রতিবেশী দেশগুলোকে_ ভিন্ন ধর্মাবলম্বী মানুষকে-ভিন্ন ভাষাভাষী জনগণকে_ ভিন্ন জাতকে ঘৃণা করার প্রেরণা জোগায়। এমন রাজনীতি এই পৃথিবীতে ভালো কিছুর জন্ম দেবে না, সমাজকে বদলাবে না, মানুষকে আলোকিত করবে না।

আমরা প্রতিবেশী দেশের চেয়ে আলাদা, আমরা ভালো, ওরা খারাপ_ দেশের বেশির ভাগ মানুষ এমনই মন্ত্র জপে। এতে হয়তো আত্দতুষ্টি হয়, কিন্তু মনুষ্যত্ব যে অাঁধারে, সে অাঁধারেই থেকে যায়। আত্দসমালোচনা ছাড়া কেউ মানুষ হিসেবে বড় হয় না। আত্দসমালোচনা এখন মনুষ্যসমাজে দুর্লভ জিনিস। বড় একা বোধ করি। আমার ইউটোপিয়া আন্দোলনের বন্ধুরাও বলেছে, বড় একা বোধ করে। পৃথিবীটা ক্ষুদ্র-শুষ্ক-কবন্ধদের দখলে আজ অনেককাল।

লেখক : নির্বাসিত লেখিকা

উৎসঃ   বাংলাদেশ প্রতিদিন


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ